ভালুকায় বিদ্যুৎস্পৃষ্টে দুজনের মৃত্যু

আগের সংবাদ

তিন দফা দাবিতে রবিবার সারাদেশে পরিবহন শ্রমিকদের বিক্ষোভ

পরের সংবাদ

এপ্রিলে মজুরি ও মে’র প্রথম সপ্তাহে ঈদ বোনাস দেবার দাবি জি-স্কপের

প্রকাশিত: এপ্রিল ৩০, ২০২১ , ১:০৪ অপরাহ্ণ আপডেট: এপ্রিল ৩০, ২০২১ , ১:০৪ অপরাহ্ণ

এপ্রিল মাসের মধ্যে মজুরি এবং মে মাসের প্রথম সপ্তাহের মধ্যে পোষাক শ্রমিকদের পূর্ণ ঈদ বোনাস দেবার দাবি জানিয়েছে গার্মেন্টস শ্রমিক কর্মচারী ঐক্য পরিষদ (জি-স্কপ)। শুক্রবার (৩০ এপ্রিল) জি-স্কপের এর যুগ্ম সমন্বকারী আব্দুল ওয়াহেদ এবং কামরুল আহসান এক বিবৃতিতে এ দাবি জানান।

তারা শ্রম মন্ত্রণালয়ের পক্ষ থেকে গার্মেন্টস মালিকদের প্রতি ১০ মে‘র মধ্যে পোষাক শ্রমিকদের বেতন-বোনাস দেবার জন্য যে আহবান জানিয়েছে তার তীব্র নিন্দা জানান। তারা বলেন, এটি অমানবিক, এ সময়ে ব্যাংক বন্ধ হয়ে যাবার অজুহাতে মালিকরা বেতন বোনাস দিতে টালবাহনা শুরু করবে, সে কারণে এই করোনার মধ্যে কাজ করা শ্রমিকরা ঈদ উপভোগ করতে পারবে না।

বিবৃতিতে জি স্কপের নেতারা বলেন, করোনা সংক্রমণ থেকে রক্ষা পেতে লকডাউন ঘোষণা করে সব কিছু বন্ধ ঘোষণা করা হলেও পোষাক শ্রমিকদের জীবনের ঝুঁকি নিয়ে কাজ করতে হচ্ছে। করোনা সংক্রমণ ঝুঁকির মধ্যে কাজ করায় সরকারি কর্মকর্তা, ব্যাংক কর্মকর্তাদের জন্য বিভিন্ন প্রণোদনা ঘোষণা করা হয়েছে। কিন্তু বৈদেশিক মূদ্রা অর্জনের অন্যতম প্রধান খাত পোষাক শিল্পের শ্রমিকদের জন্য ঝুঁকি ভাতা প্রদানের ঘোষণা দেওয়া হলো না। জী-স্কপ’সহ অধিকাংশ দায়িত্বশীল শ্রমিক সংগঠন ২০ রোজা তথা ৩ মে’র মধ্যে পোষাক শ্রমিকদের বেতন-ভাতা পরিশোধের আহবান জনালেও তাদের দাবি উপেক্ষা করে শ্রম মন্ত্রণালয় মালিকদের বিশেষ সুবিধা দিতে ১০ মে’র মধ্যে বেতন-ভাতা প্রদানের নির্দেশনা দিয়েছেন।

নেতারা, শ্রম মন্ত্রণালয়ের এই অবস্থানের নিন্দা জানিয়ে বলেন, ৭ ও ৮ মে শুক্র-শনিবার, ১০ মে শবে কদরের জন্য ব্যাংক বন্ধ, যা মালিকদের অজুহাত তৈরির সুযোগ দেবে। আর সুযোগসন্ধানি মালিকেরা ঈদের নিকটবর্তী সময়ে শ্রমিকদের পরিবারের সঙ্গে মিলিত হয়ে উৎসব করার আকাংখার সুযোগ নিয়ে বরাবরের মত তাদের ন্যায্য প্রাপ্য বেতন-বোনাস থেকে বঞ্চিত করবে। পোষাক শিল্প মালিকদের দ্বারা প্রভাবিত হয়ে সরকার শ্রমিকদের পুণরায় বঞ্চিত করার পথ উম্মুক্ত রাখলো।

তারা বলেন, ১০ মে নয়, মে মাসের প্রথম সপ্তাহের মধ্যেই পোষাক শ্রমিকদের কমপক্ষে এক মাসের মুল মজুরির সমান ঈদ বোনাসসহ এপ্রিল মাসের মজুরি পরিশোধ করতে হবে। আর সময়মত বেতন-বোনাস পরিশোধ না করার কারণে কোন অনাকাঙ্খিত পরিস্থিতির উদ্ভব হলে তার দায় পোষাক শিল্প মালিকদের বহন করতে হবে।

এসআর

মন্তব্য করুন

খবরের বিষয়বস্তুর সঙ্গে মিল আছে এবং আপত্তিজনক নয়- এমন মন্তব্যই প্রদর্শিত হবে। মন্তব্যগুলো পাঠকের নিজস্ব মতামত, ভোরের কাগজ লাইভ এর দায়ভার নেবে না।

জনপ্রিয়