ব্যাংকের মত বীমা খাতে নজর দিতে হবে

আগের সংবাদ

আবারও ক্ষমতায় আসছে মমতার তৃণমূল, বুথফেরত জরিপ

পরের সংবাদ

নালিতা বাড়িতে হারিয়ে যেতে বসেছে বকবাড়ির বকপাখি

প্রকাশিত: এপ্রিল ২৯, ২০২১ , ৯:৫৯ অপরাহ্ণ আপডেট: এপ্রিল ২৯, ২০২১ , ৯:৫৯ অপরাহ্ণ

শেরপুরের নালিতাবাড়ীতে রক্ষনাবেক্ষনের অভাবে হারিয়ে যেতে বসেছে বক বাড়ির বক পাখি। এ বক বাড়িটি হচ্ছে উপজেলার বাঘবেড় গ্রামের বজেন্দ্র চন্দ্র বর্মনের বাড়ি। জানা গেছে, দেশ স্বাধীনের পূর্বে থেকেই বজেন্দ্র চন্দ্র বর্মনের বাড়িতে বক পাখির অভয়ারন্য গড়ে উঠে। শত শত বক পাখি তার বাড়ির বাঁশ ঝাড়ে বসবাস করে। এসব পাখির অভয়ারন্য দেখতে প্রতিদিন এলাকার শত শত মানুষের ভীড়জমে ওই বাড়িতে। বজেন্দ্র চন্দ্র বর্মন বক পাখি গুলোর পরিচর্চাও করতেন। অনেক সময় বকগুলো তার ঘরে নেমে এসে আহার করতো। বজেন্দ্র চন্দ্র বর্মনের শরীরে এসে বসতো বক পাখি। তখন থেকেই বজেন্দ্র চন্দ্র বর্মনের বাড়িটি বক বাড়ি হিসেবে ব্যাপকভাবে পরিচিতি লাভ করে।

প্রায় এক বছর পূর্বে বজেন্দ্র চন্দ্র বর্মনের মৃত্য হয়। তিনি মারা যাওয়ার পর থেকেই বিপর্যয়ের মুখে পরে বক পাখিগুলো। জানা গেছে রক্ষণাবেক্ষণের অভাব ও পাখি শিকারীদের অত্যাচারে দিনে দিনে বকগুলো এখন প্রায় বিলপ্তির পথে। বজেন্দ্র চন্দ্র বর্মনের ছেলে সতিন্দ্র চন্দ্র বর্মন, সুকেন্দ্র চন্দ্র বর্মন ও রমেশ চন্দ্র বর্মন জানান, বর্তমানে যে পরিমানে বক পাখি রয়েছে সরকারিভাবে রক্ষণাবেক্ষণের ব্যাবস্থা করা গেলে এখনও অভয়ারন্যটি টিকিয়ে রাখা সম্ভব। তারা জানান,বকগুলো আহার করতে গেলে আশপাশের শিকারীরা ধরে নিয়ে যায়। আবার রাতের অন্ধকারে প্রতিবেশীরা বাঁশ ঝাড়ে উঠে ধরে নিয়ে যায়। তাদের মতে সরকারি পৃষ্ঠপোষকতা পেলে বক পাখি গুলোকে রক্ষা করা সম্ভব।

ইভূ

মন্তব্য করুন

খবরের বিষয়বস্তুর সঙ্গে মিল আছে এবং আপত্তিজনক নয়- এমন মন্তব্যই প্রদর্শিত হবে। মন্তব্যগুলো পাঠকের নিজস্ব মতামত, ভোরের কাগজ লাইভ এর দায়ভার নেবে না।

জনপ্রিয়