করোনা আক্রান্ত এমপি বাদশাকে ঢাকায় আনা হলো

আগের সংবাদ

করোনা ম্যানেজমেন্ট গাইডলাইন তৈরি করা হবে: স্থানীয় সরকারমন্ত্রী

পরের সংবাদ

পানির দাবিতে রাস্তায় রাজধানীর শাহজাদপুরবাসী, কর্তৃপক্ষের নজর নেই

প্রকাশিত: এপ্রিল ১৫, ২০২১ , ৪:৪২ অপরাহ্ণ আপডেট: এপ্রিল ১৫, ২০২১ , ৬:৫৫ অপরাহ্ণ

বেশ কয়েকমাস ধরেই পানির অভাবে ভুগছেন রাজধানীর দক্ষিণ শাহজাদপুর এলাকার বাসিন্দারা। কয়েকবার ওয়াসা কর্তৃপক্ষকে অভিযোগ জানিয়েও কোনো সমাধান হয়নি। বাধ্য হয়ে কঠোর লকডাউনের মধ্যেও রাস্তায় নেমে বিক্ষোভ করেন ওই এলাকার বাসিন্দারা।

বৃহস্পতিবার (১৫ এপ্রিল) দুপুর ১২টার দিকে মিছিল নিয়ে ঢাকা ওয়াসার মডস জোন-৮ এর অফিসের সামনে জড়ো হন শাহজাদপুরে এলাকার বাড়ির মালিকসহ শতাধিক বাসিন্দা। বিক্ষোভের সময় তাদের হাতে পানির দাবিতে লেখা বিভিন্ন ব্যানার, ফেস্টুন ও খালি কলসি ছিল।

এসময় তারা ওয়াসা অফিসের ভেতরে প্রবেশে করতে চাইলে ভাটারা থানার পুলিশ তাদের বাধা দেয়। পানির জন্য হাহাকার করা জনগণ উত্তেজিত হয়ে পড়লে ভাটারা থানার ওসি মধ্যস্থতার আশ্বাস দেন। পরে পুলিশের মধ্যস্থতায় বিক্ষোভকারীদের মধ্য থেকে ২ জন প্রতিনিধি ও ঢাকা ওয়াসার মডস-৮ এর নির্বাহী প্রকৌশলী মো. আব্দুল মজিদ ওয়াসা অফিসের ভেতরে বৈঠক করেন।

বৈঠক শেষে সেখানকার নেতৃত্বে থাকা দক্ষিণ শাহজাদপুরের স্থানীয় বাসিন্দা হবিবুর রহমান জানান, আমরা প্রায় তিন মাস ধরে একদমই পানি পাচ্ছি না। কর্তৃপক্ষের সঙ্গে আমাদের বৈঠক হয়েছে। তারা বলেছেন সন্ধ্যা ৬টা থেকে সকাল ৭টা পর্যন্ত পানি নিশ্চিত করবেন। পানি না পাওয়ায় আমরা এর আগেও লিখিত অভিযোগ দিয়েছি। কিন্তু তা নাকি কর্তৃপক্ষ জানেনই না। অথচ আমরা যখন অভিযোগ দিয়েছি, তখনও তারা একইভাবে আশ্বাস দিয়েছেন।

মিছিল নিয়ে ওয়াসার সামনে আসলে স্থানীয়দের বাধা দেয় পুলিশ

মো. আল আমিন নামের একজন স্থানীয় বাসীন্দা জানান, কয়েক মাস ধরে আমরা পানি পাই না। আজকে আমরা মিছিল নিয়ে এসেছি, তাদের সঙ্গে কথা হয়েছে। সন্ধ্যা ৬টা থেকে পানি পাব বলে ওয়াসা কর্তৃপক্ষ আশ্বাস দিয়েছে। এর আগে আরও একাধিকবার আমরা অভিযোগ দিয়েছি। কিন্তু তারা বলছেন কিছুই জানেন না। এতদিন আমরা যে লিখিত অভিযোগ দিয়েছি, তারা কোনো পদক্ষেপেই নেননি। আজকে ভাটারা থানার ওসি উপস্থিত ছিলেন। তার সামনে ওয়াসা কর্তৃপক্ষ প্রতিশ্রুতি দিয়েছে।

তবে, এ ব্যাপারে জানতে চাইলে স্থানীয় বাসীন্দাদের অভিযোগ অস্বীকার করেন ঢাকা ওয়াসা মডস জোন-৮ এর নির্বাহী প্রকৌশলী মো. আব্দুল মজিদ। তিনি বলেন, ‘পানির কোনো সমস্যাই নেই। আমরা শিডিউল অনুযায়ী পানির পাইপের চাবি খুলে দিই। এতদিন তারা রাতে পানি পেতেন, এখন সেই পানিটা আরও দুই ঘণ্টা আগ থেকে চাচ্ছেন। ওই লাইনে এমনিতে কোনো সমস্যা নেই। আমরা কাছাকাছি আরেকটা পাম্প তৈরি করছি। সেটা চালু হলে এ সমস্যা আর থাকবে না।

আগেও জনগণ লিখিত অভিযোগ করেছেন এ ব্যাপারে জানতে চাইলে তিনি বলেন, আমি নতুন এসেছি। এক সপ্তাহ হয়েছে আমি এখানে কাজে যোগ দিয়েছি। আগে কী অভিযোগ তারা দিয়েছিলেন সে ব্যাপারে আমার জানা নেই। আমি আশ্বাস দিচ্ছি এখন থেকে সমস্যা অনেকটাই সমাধান হয়ে যাবে।

ওয়াসার সামনে বিক্ষোভরত স্থানীয়রা

জানা গেছে, শাহজাদপুর দক্ষিণ এলাকায় পানির সমস্যা অনেক পুরনো। তবে মাঝেমধ্যে তা তীব্রতর হয়। মোরশেদ আলম নামের একজন স্থানীয় বাসিন্দা বলেন, গত ১০ বছরের বেশি সময় ধরেই আমরা পানির সমস্যায় আছি। বছরে ৬ মাস পানির খুব বেশি সমস্যা দেখা দেয়। মাঝখানে কর্তৃপক্ষ পানির লাইনে কাজ করেছে। তাতেও কোনো সমাধান হয়নি। এর আগে এডিবির লোকজন এসেছিল। তারা এসে পরীক্ষা নীরিক্ষা করে বলেছেন, লাইনে একটু উঁচু-নিচু আছে। আমাদের দক্ষিণ এলাকার লাইন একটু নিচু হওয়ায় আমরা নাকি পানি পাই কম। আমরা অনেক বার বলেছি। অথচ কোনো কাজই হচ্ছে না। তাদের লাইনে সমস্যা তারা ঠিক করছেন না। আমরা জনগণ কেন ভুক্তভোগী হব।

স্থানীয় বাসিন্দাদের অনেকেই অভিযোগ করে বলেন, গত তিন মাসে ২৪ ঘণ্টায় একবারের জন্যও পানি আসেনি। ওয়াসার গাড়ি থেকে পানি কিনে কিনে ব্যবহার করতে হয়। যখন আসে অল্প কিছুক্ষণের জন্য থাকে। থানা থেকে শুরু করে ওয়াসা ভবন, সবখানেই জানানো হয়েছে। এ ব্যাপারে একাধিকবার জানিয়েও লাভ হয়নি। ওয়াসার দাবি, পানির উৎপাদন ঠিকই হচ্ছে। হতে পারে চাপ কম। অথচ আমরা পানি একদমই পাচ্ছি না। তাহলে পানি যাচ্ছে কোথায়? তাদের অভিযোগ, জনগণকে ন্যায্য পানি না দিয়ে বরং গাড়িতে টাকার বিনিময়ে পানি সরবরাহ করে বাড়তি আয় করছে ওয়াসা। এমনটাই অভিযোগ তাদের।

এমআই

মন্তব্য করুন

খবরের বিষয়বস্তুর সঙ্গে মিল আছে এবং আপত্তিজনক নয়- এমন মন্তব্যই প্রদর্শিত হবে। মন্তব্যগুলো পাঠকের নিজস্ব মতামত, ভোরের কাগজ লাইভ এর দায়ভার নেবে না।

জনপ্রিয়