আজ ফের মাঠে নামছেন সাকিব

আগের সংবাদ

লকডাউনের আগে ব্যাংক ও বুথে টাকা তোলার হিড়িক

পরের সংবাদ

লকডাউনে ৮টি পণ্য পরিবহন ট্রেন চলবে

প্রকাশিত: এপ্রিল ১৩, ২০২১ , ১২:৪২ অপরাহ্ণ আপডেট: এপ্রিল ১৩, ২০২১ , ১:৩৫ অপরাহ্ণ

বুধবার ১৪ এপ্রিল থেকে শুরু হচ্ছে কঠোর লকডাউন। লকডাউনে পণ্য পরিবহনের অনুমতি দিয়েছে সরকার। লকডাউনের ভেতরে ৮টি পণ্যপরিবহন ট্রেন চলবে বলে জানিয়েছেন রেলপথ মন্ত্রী নুরুল ইসলাম সুজন।

রেলমন্ত্রী জানান, লকডাউনে স্বল্পমূল্যে কৃষি পণ্য পরিবহনের জন্য কাল ১৪ এপ্রিল থেকে ৪ টি রুটে ৮ টি পার্সেল ও মালবাহী ট্রেন চলবে। মঙ্গলবার (১৩ এপ্রিল) রেল ভবনে আয়োজিত এক সংবাদ সম্মেলনে এ তথ্য জানান রেলমন্ত্রী নুরুল ইসলাম সুজন।

তিনি বলেন, সরকার ঘোষিত লকডাউনের সময় যাতে কৃষকরা তাদের পণ্য বাজারে সরবরাহ করতে পারে এবং ভোক্তাদের কাছে পৌঁছে দিতে পারে সেজন্য পণ্যবাহী ট্রেন চালু রাখার সিদ্ধান্ত নিয়েছে রেলওয়ে।

প্রতিদিন বিকেল সাড়ে ৩ টায় ঢাকা থেকে একটি ট্রেন সিলেট যাবে। পরের দিন সকাল ৬ টা ৪৫ মিনিটে সিলেট থেকে ছেড়ে আসবে। চট্টগ্রাম-সরিষাবাড়ি প্রতিদিন ১ টি ট্রেন বিকেল তিনটায় ছেড়ে যাবে আবার পরের দিন ভোর সাড়ে ৪ টার সময় সরিষাবাড়ি থেকে চট্টগ্রামের উদ্দেশ্যে ছেড়ে আসবে। এদিকে পশ্চিমাঞ্চলের চাষীদের সুবিধার জন্য সপ্তাহের তিন দিন শনি সোম বুধ খুলনা থেকে চিলাহাটি এবং রবি, মঙ্গল ও বৃহস্পতিবার চিলাহাটি থেকে খুলনার উদ্দেশ্যে পণ্যবাহী ট্রেন চলবে। আবার বীর মুক্তিযোদ্ধা সিরাজুল ইসলাম স্টেশন থেকে একটি ট্রেন দুপুর ১ টায় ঢাকায় আসবে এবং পরের দিন সন্ধ্যে ৬ টায় ফিরে যাবে।

রেল মন্ত্রী বলেন, ট্রেনে করে ২৫ শতাংশ কম ভাড়ায় চাষীরা মালামাল আনা নেয়া করতে পারবেন। সেই সঙ্গে রমজানের সময় ভোক্তাদের কাছে সহজে তা পৌঁছে যাবে। এছাড়া ভারত থেকে পচনশীল পণ্য পরিবহনের কাজ চালু থাকবে বলে জানান তিনি।

করোনা সংক্রমণ নিয়ন্ত্রণে বুধবার ভোর ৬টা থেকে ২১ এপ্রিল মধ্যরাত পর্যন্ত স্বাভাবিক জীবনযাত্রায় ১৩ দফা কঠোর বিধিনিষেধ আরোপ করা হয়েছে। এই আট দিন গণপরিবহন-বাস, ট্রেন, লঞ্চ, অভ্যন্তরীণ ও আন্তর্জাতিক বিমান চলাচল বন্ধ থাকবে। সব সরকারি, আধা সরকারি, স্বায়ত্তশাসিত ও বেসরকারি অফিস এবং আর্থিক প্রতিষ্ঠানও বন্ধ থাকবে। তবে কর্মকর্তা-কর্মচারিদের নিজ নিজ কর্মস্থলে (কর্ম এলাকা) থাকতে হবে।

শপিংমল ও অন্যান্য দোকানপাটও বন্ধ থাকবে। তবে নির্দিষ্ট সময় খোলা থাকবে কাঁচাবাজার ও নিত্যপণ্যের দোকান। অতি জরুরি প্রয়োজন ছাড়া কোনোভাবেই বাড়ির বাইরে বের হওয়া যাবে না। তবে এই সময়ের মধ্যে শিল্পকারখানাগুলো স্বাস্থ্যবিধি অনুসরণ করে নিজস্ব ব্যবস্থাপনায় চালু থাকবে। শ্রমিকদের নিজ নিজ প্রতিষ্ঠান কর্তৃক নিজস্ব পরিবহণ ব্যবস্থাপনায় আনা-নেওয়া নিশ্চিত করতে হবে। কৃষিশ্রমিক পরিবহণ ও গণমাধ্যমসহ সব ধরনের জরুরি পরিষেবা চালু থাকবে।

এফবি

মন্তব্য করুন

খবরের বিষয়বস্তুর সঙ্গে মিল আছে এবং আপত্তিজনক নয়- এমন মন্তব্যই প্রদর্শিত হবে। মন্তব্যগুলো পাঠকের নিজস্ব মতামত, ভোরের কাগজ লাইভ এর দায়ভার নেবে না।

জনপ্রিয়