ক্ষেত থেকে সবজি আনতে গিয়ে ধর্ষিত শিশু, গ্রেপ্তার বৃদ্ধ

আগের সংবাদ

ফাঁকা বাড়িতে শিশু ধর্ষণের চেষ্টা, থানায় মামলা

পরের সংবাদ

টিকা নেওয়ার অনীহার মধ্যেই বৃহস্পতিবার শুরু দ্বিতীয় ডোজ

প্রকাশিত: এপ্রিল ৭, ২০২১ , ৫:০১ অপরাহ্ণ আপডেট: এপ্রিল ৮, ২০২১ , ২:৪৪ পূর্বাহ্ণ

দেশে করোনা প্রতিষেধক টিকা গ্রহণে মানুষের আগ্রহ দিন দিনই কমছে। স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের এমআইএস শাখার করোনা ভাইরাসের টিকা বিষয়ক তথ্য অনুযায়ী, দেশে গত কয়েক দিন যাবতই টিকা গ্রহিতার সংখ্যা কমতির ধারা অব্যাহত রয়েছে।

গণ টিকা কার্যক্রম শুরুর পর গতকাল মঙ্গলবারই সবচেয়ে কম সংখ্যক মানুষ টিকা নিয়েছেন। গতকাল সারা দেশে টিকা নিয়েছেন মাত্র ১৬ হাজার ১৮১ জন। সোমবার টিকা নিয়েছেন ৪২ হাজার ৩২২ জন। রবিবার ৪৫ হাজার ৫৩৮ জন টিকা নিয়েছেন। এর আগে শনিবার ৩৯ হাজার ৮৪৩ জন। ২ মার্চ শুক্রবার সরকারি ছুটির দিন টিকা কর্মসূচি বন্ধ ছিল। পহেলা মার্চ সারা দেশে টিকা নিয়েছেন ৪২ হাজার ৩৬০ জন। ৩১ মার্চ ৫০ হাজার ৭৫২ জন, ৩০ মার্চ সরকারি ছুটির দিন থাকায় কার্যক্রম বন্ধ ছিল। ২৯ মার্চ টিকা নিয়েছেন ৫৬ হাজার ৪৩১ জন। ২৮ মার্চ ৫৮ হাজার ৪২৪ জন, ২৭ তারিখ ৬৫ হাজার ৩৬৮ জন টিকা নেন। ২৫ মার্চ ৭০ হাজার ৪০৭ জন ২৪ মার্চ ৭৮ হাজার ৮১৭ জন সারা দেশে টিকা নিয়েছেন।

৭ ফেব্রুয়ারি থেকে সরকারি ছুটির দিন বাদে প্রতিদিন সকাল সাড়ে ৮টা থেকে দুপুর আড়াইটা পর্যন্ত টিকাদান কর্মসূচি চলছে।

মঙ্গলবার (৬ এপ্রিল) টিকা নেওয়া ১৬ হাজার ১৮১ জনের মধ্যে ৯ হাজার ৬১০ জন পুরুষ এবং ৬ হাজার ৫৭১ জন নারী। কারোর মধ্যেই সামান্য পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া যেমন জ্বর, টিকা নেওয়ার স্থানে লাল হওয়া ইত্যাদি দেখা যায়নি। আর এ পর্যন্ত টিকা গ্রহীতার সংখ্যা ৫৫ লাখ ৫৫ হাজার ৬৭৫ জন। এর মধ্যে ৩৪ লাখ ৪৫ হাজার ৩১১ জন পুরুষ। আর ২১ লাখ ১০ হাজার ৩৬৪ জন নারী। ৯৩৯ জনের মধ্যে। গতকাল বিকাল সাড়ে ৫টা পর্যন্ত টিকা নিতে অনলাইনে নিবন্ধন করেছেন ৬৯ লাখ ৬০ হাজার ৬২৫ জন।

এরই মধ্যে আগামীকাল বৃহস্পতিবার দেশব্যাপী টিকার দ্বিতীয় ডোজ দেওয়া শুরু হচ্ছে। প্রথম ধাপে যারা টিকা নিয়েছেন তাদের টিকার দ্বিতীয় ডোজ দেওয়া হবে। বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার পরামর্শ অনুযায়ী ৮ থেকে ১২ সপ্তাহের ব্যবধানে টিকার দ্বিতীয় ডোজ দেওয়া পরিকল্পনা নেয় সরকার। বর্তমান সময়ে টিকা দেওয়ার সর্বনিম্ন বয়সসীমা ৪০ বছর।

দ্বিতীয় ডোজ টিকা পাওয়ার জন্য টিকা কার্ডে দেওয়া মোবাইল নম্বরে এসএমএস পাঠানো হবে। গত ৪ এপ্রিল কোভিড ১৯ এর পরবর্তী টিকাদান কার্যক্রম সংক্রান্ত ৬টি দিকনির্দেশনা দেয় স্বাস্থ্য অধিদপ্তর। কোভিড-১৯ এর টিকা প্রিপেয়ার্ডনেস অ্যান্ড ডিপ্লয়মেন্ট কোর কমিটির সভায় এই নির্দেশনাগুলো নির্ধারিত হয়েছে।

নির্দেশনাগুলো হলো- আগামী ৮ এপ্রিল থেকে দেশব্যাপী দ্বিতীয় ডোজ করোনা টিকা দেওয়ার পাশাপাশি প্রথম ডোজ টিকাদান অব্যাহত রাখতে হবে। রোজার মাসে টিকাদান কার্যক্রম অব্যাহত রাখতে হবে। লকডাউনে টিকাদান কার্যক্রম অব্যাহত রাখতে হবে। টিকা কার্ড সঙ্গে রেখে রিকশা বা ব্যক্তিগত যানবাহন নিয়ে টিকা গ্রহীতারা কেন্দ্রে যেতে পারবেন। টিকা নিতে জনগণকে উদ্বুদ্ধ করতে মসজিদের মাইক, ক্যাবল টিভি ইত্যাদি ব্যবহারসহ বিভিন্নভাবে প্রচার প্রচারণার ব্যবস্থা করতে হবে।

এছাড়া ওই নির্দেশনায় উল্লেখ করা হয়, ৫ এপ্রিল থেকে প্রথম ডোজের পাশাপাশি দ্বিতীয় ডোজ টিকার তারিখ এসএমএস দিয়ে জানানো যাবে। এসএমএসে উল্লেখ করা তারিখ অনুযায়ী প্রথম ডোজ নেওয়ার কেন্দ্রে গিয়ে দ্বিতীয় ডোজ টিকা নিতে হবে। ৬ এপ্রিল থেকে বেক্সিমকোর সহায়তায় দেশব্যাপী টিকা পরিবহন শুরু করতে হবে। জেলা পর্যায়ের সংশ্লিষ্ট কমিটির কাছে টিকা পৌঁছে দেওয়া হবে।

এমএইচ

মন্তব্য করুন

খবরের বিষয়বস্তুর সঙ্গে মিল আছে এবং আপত্তিজনক নয়- এমন মন্তব্যই প্রদর্শিত হবে। মন্তব্যগুলো পাঠকের নিজস্ব মতামত, ভোরের কাগজ লাইভ এর দায়ভার নেবে না।

জনপ্রিয়