করোনা প্রতিরোধে দিল্লিতে আজ থেকে ৭ ঘণ্টা কারফিউ

আগের সংবাদ

‘বিষন্নতা থেকে মুক্তি পেতে পরিবারকে হত্যা করেছি’

পরের সংবাদ

আমেরিকায় বন্ধ হচ্ছে গুয়ান্তানামো কারাগার

প্রকাশিত: এপ্রিল ৬, ২০২১ , ১:০৪ অপরাহ্ণ আপডেট: এপ্রিল ৬, ২০২১ , ১:০৪ অপরাহ্ণ

আমেরিকায় বন্ধ হচ্ছে গুয়ান্তানামো কারাগার। মায়ামির ক্যাম্প ৭ থেকে বন্দিদের স্থানান্তরিত করা হল অন্যত্র। প্রেসিডেন্ট জো বাইডেনের সময়ে মার্কিন কংগ্রেসের অনুমোদন সাপেক্ষে এ ঐতিহাসিক সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়। রবিবার (৪ মার্চ) মার্কিন সাদার্ন কমান্ডের তরফে বিবৃতি দিয়ে জানিয়ে দিল।

ক্যাম্প ৭ থেকে প্রায় জনা চল্লিশ বন্দিকে ক্যাম্প ৫-এ নিয়ে যাওয়া হয়েছে বলে খবর। এই সিদ্ধান্ত কার্যকর হওয়া ঐতিহাসিক বলেই মনে করছেন আন্তর্জাতিক সম্পর্ক বিশেষজ্ঞরা।

২০০৬ সাল থেকে আমেরিকার মাটিতে গুয়ান্তানামো কারাগার চলছে। এটি মূলত মার্কিন সেনার অপারেশনের কেন্দ্র। কিউবা যুদ্ধের সময় থেকে গুয়ান্তানামো সৈকতের কাছে বেশ কয়েকটি বন্দি শিবির চলছে সেনার অধীনে। বহু বিতর্কের জন্মদাতা এই কারাগার। অনেকদিন ধরেই এসব বন্দি শিবির বন্ধ করার দাবি উঠছিল। কিন্তু আন্তর্জাতিক রাজনীতির জটিলতার জন্য বন্ধ করা সম্ভব হয়নি। কখনও কখনও শিবিরগুলি থেকে বন্দিদের আদানপ্রদান করা হয়। মার্কিন সেনা বন্দিদের উপর অকথ্য অত্যাচার চালায় বলে বারবারই অভিযোগ উঠেছে।

এমনকী কোনও কোনও শিবিরে অত্যন্ত চুপিসাড়ে গোপন কাজকর্ম হয় বলেও অভিযোগ। মানবাধিকার লঙ্ঘন হচ্ছে, এই অভিযোগে বারবার সরব হয়েছে মানবাধিকার সংগঠনগুলিও। তবে সেসবে কর্ণপাত না করে এত বছর ধরে গুয়ান্তানামোয় বন্দি শিবিরগুলি চালু রেখেছে প্রশাসন।

এ বছর মার্কিন প্রেসিডেন্ট জো বাইডেন জানান, তিনি গুয়ান্তানামো কারাগার বন্ধ করতে চান। বন্দি শিবির তুলে দেওয়ার প্রতিশ্রুতিও দিয়েছিলেন তিনি। এর মধ্যে ক্যাম্প ৭ নিয়ে বিতর্ক দানা বাঁধে। ২০১১এ ৯/১১ জঙ্গি হামলার সময় এই ক্যাম্পের ৫ জন ষড়যন্ত্রে জড়িত ছিল বলে অভিযোগ ওঠে।

তাই ওই ক্যাম্পটিই তড়িঘড়ি বন্ধ করার টার্গেট নিয়েছিলেন বাইডেন। সেই সিদ্ধান্ত কার্যকর করতে মার্কিন কংগ্রেসের অনুমোদন প্রয়োজন ছিল। অবশেষে তা মেলায় গুয়ান্তানামোর ক্যাম্প ৭ বন্ধ হচ্ছে। এখানকার বন্দিদের নিয়ে যাওয়া হয়েছে নিরাপদ ক্যাম্প ৫’এ।

এফবি

মন্তব্য করুন

খবরের বিষয়বস্তুর সঙ্গে মিল আছে এবং আপত্তিজনক নয়- এমন মন্তব্যই প্রদর্শিত হবে। মন্তব্যগুলো পাঠকের নিজস্ব মতামত, ভোরের কাগজ লাইভ এর দায়ভার নেবে না।

জনপ্রিয়