নিউজ ফ্ল্যাশ

আগের সংবাদ

মেলায় ৫০ বই নিয়ে ভোরের কাগজ প্রকাশন

পরের সংবাদ

মেলার সময় বিকেল ৪টা থেকে রাত ৮টা পর্যন্ত করার প্রস্তাব

প্রকাশিত: এপ্রিল ১, ২০২১ , ৯:০০ অপরাহ্ণ আপডেট: এপ্রিল ১, ২০২১ , ৯:০৭ অপরাহ্ণ

প্রকাশকদের সঙ্গে কোন ধরণের আলোচনা না করে অমর একুশে বইমেলা বন্ধের সময় সাড়ে ছয়টা পর্যন্ত বেঁধে দেওয়াতে প্রতিবাদে সোচ্চার প্রকাশকরা। প্রকাশকদের মতে, যে সময়টাতে মেলায় মানুষ আসা শুরু করে সেই সময়টাতে মেলা বন্ধ করা হলে প্রকাশকরা ক্ষতিগ্রস্থ হবে এবং প্রকাশনাশিল্প হুমকির মুখে পড়বে বলে গণমাধ্যমকে জানান প্রকাশকদের দুই সমিতি বাংলাদেশ জ্ঞান ও সৃজনশীল প্রকাশক সমিতি ও বাংলাদেশ পুস্তক প্রকাশক ও বিক্রেতা সমিতি।

তিনটায় শুরু করে সাড়ে ছয়টায় বন্ধ না করে শুরুর সময় একঘন্টা পিছিয়ে দিয়ে চারটায় শুরু করে রাত আটটা পর্যন্ত মেলা চালু রাখার পক্ষে নিজেদের মতামত ব্যক্ত করেছেন প্রকাশকরা। বৃহস্পতিবার (১ এপ্রিল) বাংলা একাডেমির মহাপরিচালকের সঙ্গে সাক্ষাৎ করে ৪টা থেকে রাত ৮টা পর্যন্ত মেলা চালু রাখার বিষয়ে প্রকাশকদের প্রস্তাবিত সময়সূচি বাংলা একাডেমির মহাপরিচালককে জানায় প্রকাশকদের দুই সমিতি। একাডেমি সূত্র জানায়, বিকেল ৪টা থেকে রাত ৮টা পর্যন্ত অমর একুশে বইমেলা চালু রাখার প্রকাশকদের প্রস্তাবটি একাডেমি কর্তৃপক্ষ প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাকে জানাবে। পরবর্তীতে প্রধানমন্ত্রীর সিদ্ধান্তের প্রেক্ষিতেই সময়সূচি পরিবর্তনের বিষয়ে প্রকাশকদের জানানো হবে।

জ্ঞান ও সৃজনশীল প্রকাশক সমিতির সভাপতি ফরিদ আহমেদ বলেন, বিকেল তিনটায় মেলায় কোন মানুষ আসে না। এ সময়টাতে প্রায় প্রতিটি স্টল ও প্যাভিলিয়নের লোকজন অলস সময় কাটায়। ৫টায় অফিস-আদালত বন্ধ হওয়ার পর ৬টার দিকে মেলা জমে উঠে। কিন্তু বাংলা একাডেমি সাড়ে ৬টায় মেলা বন্ধের সময় বেঁধে দিয়েছে এবং বন্ধ হওয়ার আধঘন্টা আগে ৬টায় লোকজনের প্রবেশ নিষিদ্ধ করেছে। যেই সময়টাতে মেলা জমে উঠবে সেই সময়টাতে যদি বন্ধই করে দেওয়া হয় তাহলে মেলা আয়োজন করে লাভ কি? বাংলা একাডেমির এমন সিদ্ধান্তের প্রতিবাদ জানিয়ে আমরা বিকেল ৪টা থেকে রাত ৮টা পর্যন্ত মেলা চালু করার প্রস্তাব বাংলা একাডেমিকে দিয়েছি। তারা বলেছেন মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর সঙ্গে এই বিষয়ে কথা বলে তাদের পরবর্তী সিদ্ধান্ত আমাদের জানাবেন। অতএব সেই পর্যন্ত অপেক্ষা করা ছাড়া আমাদের সামনে আর বিকল্প কোন পথ নেই।

এদিকে গতকাল বিকেলে মেলায় এসেছিলেন সংস্কৃতিসচিব বদরুল আরেফীন। তিনি মেলা প্রাঙ্গণ পরিদর্শন শেষে সাংবাদিকদের জানান, এবারের মেলা খুবই গোছানো একটি মেলা। দেখলাম সবাই স্বাস্থ্যবিধি মেনে বই কিনছে। সবার মুখেই মাস্ক দেখলাম ও সামাজিক দূরত্ব বজায় রাখতেও দেখেছি। এটা খুবই ভালো যে, মানুষ স্বাস্থ্যসচেতন হয়ে মেলায় আসছে এবং বই কিনছে। বিকেল ৪টা থেকে রাত ৮টা পর্যন্ত প্রকাশকদের প্রস্তাবিত সময়সূচিটি সরকারের উচ্চপর্যায়ে জানানো হবে এবং পরবর্তীতে সিদ্ধান্ত নেওয়া হবে বলেও জানান সংস্কৃতিসচিব।

ইভূ

মন্তব্য করুন

খবরের বিষয়বস্তুর সঙ্গে মিল আছে এবং আপত্তিজনক নয়- এমন মন্তব্যই প্রদর্শিত হবে। মন্তব্যগুলো পাঠকের নিজস্ব মতামত, ভোরের কাগজ লাইভ এর দায়ভার নেবে না।

জনপ্রিয়