রবিবার সকাল-সন্ধ্যা হরতালের ডাক হেফাজতের

আগের সংবাদ

ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় মাদ্রাসাছাত্রদের তাণ্ডবে নিহত এক তরুণ

পরের সংবাদ

অমর একুশে গ্রন্থমেলা

সকালে ফাঁকা বিকেলে লাল-সবুজে ভিড়

প্রকাশিত: মার্চ ২৬, ২০২১ , ১০:০৯ অপরাহ্ণ আপডেট: মার্চ ২৬, ২০২১ , ১০:০৯ অপরাহ্ণ

স্বাধীনতার সুবর্ণজয়ন্তীর দিনটিতে অমর একুশে গ্রন্থমেলা সেজে উঠেছে লাল-সবুজ রঙে। শিশু-কিশোর থেকে শুরু করে বয়সীরা পর্যন্ত স্বাধীনতা সুবর্ণজয়ন্তীর স্মরণে পরেছেন লাল সবুজ রঙের জামা। সকালে ফাঁকা থাকলেও বিকেলে দুয়ার খোলার পরই বাড়তে থাকে ভিড়।

মহান স্বাধীনতা দিবস তথা স্বাধীনতার সুবর্ণজয়ন্তীর এই দিনটি ছুটির দিন শুক্রবার (২৬ মার্চ) হওয়ায় প্রকাশকরা আশায় বুক বেঁধেছিলেন পাঠক-বইপ্রেমীদের ঢল নামবে। তবে সকালে মেলা চত্বর ফাঁকা থাকায় তাদের মধ্যে যে খানিকটা শঙ্কা ছিল তা বিকেলেই কেটে যায়।

সন্ধ্যা নামতেই লাল সবুজের মেলবন্ধনে মুখর হয়ে ওঠে মেলা প্রাঙ্গণ। বিশেষ করে সোহরাওয়ার্দী চত্বরেই ঢল নামে। স্বাধীনতার সুবর্ণজয়ন্তীর ঐতিহাসিক এই দিনে অনেকের পরনে লাল সবুজ পোশাক। অনেকে পরেছেন সবুজ গেঞ্জি বা টি-শার্ট। তার মাঝখানে লাল রঙে বাংলাদেশের মানচিত্র। কেউ কেউ মাথায় লাল সবুজের বেন্ড পরেছেন। অনেক স্টলেও রাখা হয়েছে লাল-সবুজ পতাকা। যেন মেলা চত্বর জুড়ে বাঙালির স্বাধীনতার সংগ্রামের স্মারক চিহ্ন।

মেলায় আসা এক পরিবারের সবার পরনেই লাল-সবুজ জামা। জানতে চাইলে পরিবারের প্রধান সাহিন আনোয়ার বলেন, করোনার কারণে বাড়তি সর্তকতার সঙ্গেই বাসা থেকে বের হতে হচ্ছে। সন্তানদেরও সেভাবে নিয়ে আসতে হচ্ছে। তবে প্রাণের আবেগ কোনো কিছুতেই বাঁধ মানে না। আজ আমাদের স্বাধীনতার ৫০ বছর। ভাবতেই আপ্লুত হয়ে পড়ছি।

বিভিন্ন স্টলের কয়েকজন বিক্রয়কর্মী বললেন, আজকের এই দিনে লোক সমাগম তো হবেই। সেটা বলাই বাহুল্য। তবে সকালের দিকে তেমন কেউ ছিল না। বিকেল পড়তেই ক্রেতাদের দেখা মিলছে। বই বিক্রিও বেড়েছে।

অন্য প্রকাশের বিক্রয় কর্মী জাহিদ বললেন, করোনাকালে এই মেলায় অন্যান্য দিনের চাইতে এই দিনটাতেই বিক্রি ভালো হচ্ছে। অন্য বছর এমন দিনে নিঃশ্বাস ফেলারই সময় পেতাম না।

এসআর

মন্তব্য করুন

খবরের বিষয়বস্তুর সঙ্গে মিল আছে এবং আপত্তিজনক নয়- এমন মন্তব্যই প্রদর্শিত হবে। মন্তব্যগুলো পাঠকের নিজস্ব মতামত, ভোরের কাগজ লাইভ এর দায়ভার নেবে না।

জনপ্রিয়