সমন্বিত ৬ ব্যাংকের পরীক্ষা বৃহস্পতিবার

আগের সংবাদ

ই-কমার্স ব্যবসা নিয়ন্ত্রণে আনুন

পরের সংবাদ

২১০০ কোটি টাকার বিদেশি পুঁজি সংগ্রহে দেশবন্ধু গ্রুপ

প্রকাশিত: মার্চ ১৪, ২০২১ , ১১:৪৮ অপরাহ্ণ আপডেট: মার্চ ১৬, ২০২১ , ৫:০৭ পূর্বাহ্ণ

আন্তর্জাতিক বিনিয়োগকারীদের কাছ থেকে ২ হাজার ১০০ কোটি টাকারও বেশি পুঁজি সংগ্রহের পরিকল্পনা করেছে দেশবন্ধু গ্রুপ। সুকুক বন্ডের মাধ্যমে এ তহবিল সংগ্রহ করা হবে। এর মাধ্যমে সংস্থাটি ব্যবসা সম্প্রসারণ এবং নিজের স্থানীয় ঋণ শোধ করার কথা ভাবছে।

শনিবার (১৩ মার্চ) গ্রুপের চেয়ারম্যান গোলাম মোস্তফা জানান, দেশীয় ব্যাংকিং সোর্স ব্যয়বহুল। তাই শরিয়াহ ভিত্তিক সুকুক বন্ডের মাধ্যমে তারা তহবিল বাড়াতে আগ্রহী। তিনি আরও বলেন, ‘ব্যাংক ঋণের বিপরীতে বস্তুত ১৬ শতাংশের বেশি সুদ দিয়ে ব্যবসা করার সামর্থ্য আমাদের নেই। তহবিল বাড়িয়ে আমাদের ঋণ পরিশোধ করতে চাই। আমরা ঋণশূন্য কোম্পানি হিসেবে দাঁড়াতে চাই।’

দেশবন্ধু গ্রুপের খাদ্য ও পানীয়, টেক্সটাইল, রিয়েল এস্টেট, শিপিং এবং পরিষেবাসহ বিভিন্ন খাতে ব্যবসা রয়েছে। এ প্রতিষ্ঠানের বার্ষিক আয় ২ হাজার ৪০০ কোটি টাকা।

দেশবন্ধু গ্রুপের ওয়েবসাইটে বিদেশি বিনিয়োগ সম্পর্কে বলা হয়েছে, ২ হাজার ১০০ কোটি টাকার বিদেশি তহবিলের একটি অংশ সিরাজগঞ্জে একটি ফাইবার কারখানা স্থাপনে ব্যয় করা হবে। এ কারখানায় উৎপাদন হবে পলিয়েস্টার চিপস (পিইটি চিপস) এবং পলিয়েস্টার স্ট্যাপল ফাইবার (পিএসএফ)। এসব পণ্য ইউরোপীয় এবং যুক্তরাষ্ট্রের বাজারে রফতানি করা হবে। কারখানার বার্ষিক উৎপাদন ক্ষমতা হবে তিন লাখ টন।

গ্রুপের চেয়ারম্যান আরও বলেন, ‘আমরা এরই মধ্যে কারখানা স্থাপনের জন্য জমি তৈরি করেছি। আমরা পিইটি চিপস এবং পিএসএফ রফতানি করব। আমরা ইউরোপীয় বাজারগুলিতে শুল্কমুক্ত এবং কোটা-মুক্ত সুবিধা অর্জন করতে চাই। আমরা যুক্তরাষ্ট্রের রাজারে শুল্ক সুবিধা পেতে সক্ষম হবো। ’

সুকুক বন্ডের সরবরাহকারী আন্তর্জাতিক প্রতিষ্ঠানটির নাম লন্ডন ভিত্তিক আল ওয়াসিলাহ পিএলসি। তারা বেডফোর্ড রো ক্যাপিটাল (বিআরসি) নামে এক প্রতিষ্ঠানকে এই ২ হাজার ১০০ কোটি টাকা দেওয়ার প্রস্তাব দিয়েছে।

সুকুক বন্ড হলো একটি ইসলামিক ফাইন্যান্সিয়াল সার্টিফিকেট। এটি ট্রেজারি বন্ডের সমতুল্য, এবং ইসলামী আর্থিক নীতিগুলির সঙ্গে সম্মতিক্রমে এটি পরিচালিত হয়।

মধ্যপ্রাচ্য উত্তর আফ্রিকা ফাইনান্সিয়াল নেটওয়ার্কের (এমইএনএএফএন) ওয়েবসাইটে প্রকাশিত বিআরসি’র সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়েছে, বিআরসি আন্তর্জাতিক লিড ম্যানেজার ব্লুমাউন্ট ক্যাপিটালের পাশাপাশি দেশবন্ধু গ্রুপকে তার পরবর্তী বৃদ্ধির পর্যায়ে সহায়তা করার জন্য সুকুক গঠন করবে। সুকুক বর্তমান বকেয়া ঋণ পরিশোধের জন্য অর্থায়ন করবে, নতুন প্রযুক্তিতে বিনিয়োগ করবে এবং গ্রুপের ব্যবসায়ের সক্ষমতা বাড়িয়ে দেবে। এটি ফ্র্যাঙ্কফুর্ট স্টক এক্সচেঞ্জে তালিকাভুক্ত হবে, ২০২৮ সালে তা পরিপক্ক হবে।

বিআরসি এবং ব্লুমাউন্ট ক্যাপিটাল দেশবন্ধু গ্রুপকে আইনগত দলিল, কাঠামো, খসড়া বিনিয়োগের মেমোরেন্ডাম এবং বিস্তৃত কর্পোরেট প্রেজেন্টেশন প্যাক প্রস্তুত করতে সহায়তা করবে।

দেশবন্ধু গ্রপের চেয়ারম্যান জানান, এই বছরের জুনের মধ্যে সুকুক ফ্র্যাঙ্কফুর্ট স্টক এক্সচেঞ্জে তালিকাভুক্ত হওয়ার কথা রয়েছে। তিনি আরও বলেন, ২০২৩ সালের মধ্যে এই প্রতিষ্ঠানের লক্ষ্য পিইটি চিপস এবং পিএসএফ রফতানির মাধ্যমে ৬০ কোটি ডলার আয় করা। আমাদের প্রতিষ্ঠান রফতানিমুখী শিল্পে বিনিয়োগ করবে। আমাদের লক্ষ্য ২০২৩ সালের মধ্যে নিউইয়র্ক স্টক এক্সচেঞ্জে তালিকাভুক্ত হওয়া।

সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে বিআরসির প্রধান নির্বাহী স্কট লেভি বলেছেন, এই সুকুক ম্যান্ডেট প্রাপ্ত হওয়া একটি গুরুত্বপূর্ণ অর্জন।

মন্তব্য করুন

খবরের বিষয়বস্তুর সঙ্গে মিল আছে এবং আপত্তিজনক নয়- এমন মন্তব্যই প্রদর্শিত হবে। মন্তব্যগুলো পাঠকের নিজস্ব মতামত, ভোরের কাগজ লাইভ এর দায়ভার নেবে না।

জনপ্রিয়