নিউজ ফ্ল্যাশ

আগের সংবাদ

ট্রান্স ফ্যাট নিয়ন্ত্রণে স্মারকলিপি প্রদান

পরের সংবাদ

প্রতিষ্ঠার ৪৩ বছরে প্রথমবার ৭ মার্চ পালন, মুজিব বন্দনায় বিএনপি

প্রকাশিত: মার্চ ৭, ২০২১ , ৮:১৫ অপরাহ্ণ আপডেট: মার্চ ৮, ২০২১ , ১:৩৯ পূর্বাহ্ণ

প্রতিষ্ঠার ৪৩ বছরের মধ্যে এই প্রথমবার স্বাধীনতার সুবর্ণজয়ন্তী উপলক্ষে দলীয় কর্মসূচির অংশ হিসেবে ঐতিহাসিক ৭ মার্চ পালন করেছে বিএনপি। এ উপলক্ষে আলোচনা সভায় বিএনপির নেতারা বলেছেন, ৭ মার্চ দেশের মুক্তিযুদ্ধের ইতিহাসের অনেকগুলো গূরত্বপূর্ণ মাইলফলকের একটি। এই দিনে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ভাষণে জাতি উজ্জীবিত হয়েছিলো ঠিকই কিন্তু তার ভাষণে স্বাধীনতার ঘোষণা আসেনি। নেতাদের অভিযোগ, স্বাধীনতার পঞ্চাশ পরও ৭ মার্চের নির্দেশনা পুরণ করেনি আওয়ামী লীগ।

রবিবার (৭ মার্চ) দুপুরে জাতীয় প্রেসক্লাবে ঐতিহাসিক ৭ মার্চের আলোচনা সভায় বিএনপির নেতারা এসব কথা বলেন। দলটির স্থায়ী কমিটির সদস্য ড. খন্দকার মোশাররফ হোসেনের সভাপতিত্বে ও চেয়ারপার্সনের উপদেষ্টা আব্দুস সালামের সঞ্চালনায় আলোচনা সভায় আরোও বক্তব্য রাখেন- স্থায়ী কমিটির সদস্য মির্জা আব্বাস, আমির খসরু মাহমুদ চৌধুরী, সেলিমা রহমান, ইকবাল হাসান মাহমুদ টুকু।

আওয়ামী লীগ দলীয় দৃষ্টিকোণ থেকে স্বাধীনতার ইতিহাসকে জনগণের উপর চাপিয়ে দিচ্ছে বলে মন্তব্য করেন বিএনপির মহসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলগমীর বলেছেন, জোর করে ক্ষমতায় টিকে থাকতে সরকার একটি দলের ও পরিবারের এজেন্ডাকে ইতিহাস বানিয়ে জাতির সমানে তুলে ধরছে। কিন্তু স্বাধীনতার পঞ্চাশ বছর পরে সঠিক ইতিহাস নতুন প্রজন্মের জানার অধিকার রয়েছে।

ফখরুল বলেন, ৭ মার্চ শেখ মুজিবর রহমানের ভাষন জাতিকে উজ্জীবিত করেছিলো তাতে কোন সন্দেহ নেই। তার ইতিহাস অত্যন্ত সম্মানের। তাকে আমরা ছোট করতে চাই না। তিনি বলেন, স্বাধীনতা আওয়ামী লীগের একার না। তবুও সুপরিকল্পিতভাবে তারা ইতিহাস বিকৃত করে মানুষকে ভ্রান্ত ধারণা দিয়ে যাচ্ছ। সবার কৃতিত্ব বাদ দিয়ে ইতিহাসে নিজেদের কৃতিত্ব তুলে ধরতে চাইছে। যুদ্ধ কালীন প্রবাসী সরকারের প্রধান যে ছিলো তাদেরকে ও তারা স্মরণ করে না। তাই এই মূহর্তে স্বাধীনতার সঠিক ইতিহাস তুলে ধরাই বিএনপির প্রধান দায়িত্ব হয়ে দাঁড়িয়েছে। এ সময় তারেকের নেতৃত্বে গণতন্ত্র ফিরে আসবে ও খালেদা জিয়া মুক্ত হবে বলেও আশা প্রকাশ করেন তিনি।

দলটির স্থায়ী কমিটির সদস্য ড. খন্দকার মোশাররফ হোসেন বলেন, মুক্তিযুদ্ধের প্রকৃত ইতিহাস প্রজন্মের কাছে তুলে ধরতেই আমরা সারা বছরের কর্মসূচি নিয়েছি। তিনি বলেন, স্বাধীনতার ৫০ বছর উপলক্ষে দেশের জনগণকে এসব প্রকৃত সত্য জানাতেই যে কর্মসূচি নেয়া হয়েছে, সেই কর্মসূচির অংশ হিসেবেই আমরা আজ ৭ মার্চ পালন করছি।

বিএনপির এই নেতা বলেন, ৭ মার্চে বাংলাদেশ জাতীয়তাবাদী দল ছিলো না। জিয়াউর রহমানকে কেউ চিনতো না। আমরা কারো দলকে ছোট করার জন্য বা ইতিহাস কে বিকৃত করার জন্য আজ আলোচনা করতে আসিনি। তিনি বলেন, এই ভাষণ দর কষাকষির অংশ নয়। সংগ্রাম আর যুদ্ধও এক নয়। ৭ মার্চের ভাষণ মানুষকে উৎসাহিত করেছে। এ সময় ৭ মার্চের ভাষণের কিছু অংশে অসঙ্গতি রয়েছে দাবি করে তার বিশ্লেষণ করেন ড. মোশাররফ।

মির্জা আব্বাস বলেন, আমরা ৭ মার্চ পালন করছি সেটাই যেন সরকারের মাথা ব্যাথার কারণ হয়ে গেছে। তবে শেখ মুজিবের বক্তব্য আওয়ামী লীগ যা খুজে পেয়েছে আমরা তা পাইনি। বানানো ইতিহাস দিয়ে জিয়াউর রহমান কে মুছে ফেলা যাবে না বলেও মন্তব্য করেন তিনি।

আমির খসরু মাহমুদ চৌধুরী বলেন, পূর্ব পাকিস্তানে সংখ্যাগরিষ্ঠ ভাবে জয়ী হবার পর তৎকালীন আওয়ামী লীগকে ক্ষমতা হস্তান্তর করার জন্যই এই ৭ মার্চ। মানুষের গণতান্ত্রিক অধিকার সংস্কারের অভাবে অনেক মাইলফলক ধূলিসাৎ হয়েছে ৫০ বছরে এসে ফিরে তাকানোর সময় এসে গেছে। এই মাইলফলকের পিছনে কাদের কি ভূমিকা আছে তা বুঝিয়ে দিতে হবে।

এফবি

মন্তব্য করুন

খবরের বিষয়বস্তুর সঙ্গে মিল আছে এবং আপত্তিজনক নয়- এমন মন্তব্যই প্রদর্শিত হবে। মন্তব্যগুলো পাঠকের নিজস্ব মতামত, ভোরের কাগজ লাইভ এর দায়ভার নেবে না।

জনপ্রিয়