প্রতিটি ওয়ার্ডে খেলার মাঠ করার ঘোষণা মেয়র তাপসের

আগের সংবাদ

নারী দিবসের প্রয়োজন আছে কি

পরের সংবাদ

ভাবতে হবে খাদ্য নিরাপত্তার কথা

আবু জাফর সিদ্দিকী

লেখক ও গবেষক

প্রকাশিত: মার্চ ৬, ২০২১ , ১২:২৮ পূর্বাহ্ণ আপডেট: মার্চ ৬, ২০২১ , ১২:২৮ পূর্বাহ্ণ

করোনার জীবাণু ধনী আর দরিদ্রের পার্থক্য বিবেচনা না করে আঘাত হানলেও এ অদৃশ্য আঘাত আসছে মূলত গরিবের ওপর। খাদ্যসহ প্রায় সব ধরনের পণ্য উৎপাদনে নেতিবাচক প্রভাব পড়ছে। ফলে সারা বিশ্বেই পণ্যমূল্য দ্রুত ওঠানামা করছে। বিশেষ করে জ্বালানি তেল, খাদ্যসহ নিত্যপ্রয়োজনীয় পণ্যের উৎপাদন, মজুত ও সরবরাহ চেইনেও প্রভাব পড়েছে। দামেও হেরফের হচ্ছে। খাদ্য বিভাগের চাল আমদানি ও অভ্যন্তরীণ বাজার থেকে খাদ্যপণ্য সংগ্রহ শীর্ষক প্রতিবেদনে দাম বৃদ্ধির জন্য করোনা পরিস্থিতিকে দায়ী করা হয়েছে। এ জন্য মজুত বাড়ানো ও সংকট এড়াতে আমদানি এবং অভ্যন্তরীণ বাজার থেকে নিরবচ্ছিন্ন খাদ্যপণ্য সংগ্রহের পরিকল্পনা করেছে সরকার।
এদিকে মজুত পরিস্থিতি দ্রুত কমে আসছে। খাদ্য মন্ত্রণালয়ের ২৮ ফেব্রুয়ারি, ২০২১ পর্যন্ত খাদ্যশস্যের সরকারি মোট মজুত ৬ লাখ ৪৪ হাজার টন। এর মধ্যে চাল ৫ লাখ ৩৬ হাজার টন এবং গম ১ লাখ ৮ হাজার টন। অথচ ২৫ জানুয়ারি পর্যন্ত খাদ্যশস্যের সরকারি মজুত ছিল ৭ লাখ ৮ হাজার টন। এর মধ্যে চাল ৫ লাখ ৪৮ হাজার টন এবং গম ১ লাখ ৫৬ হাজার টন। আর মাত্র ছয় মাস আগে খাদ্যপণ্য মজুত ছিল ১০ লাখ টনের বেশি। আশঙ্কা করা হচ্ছে, করোনা-পরবর্তী বিশ্বে দরিদ্র মানুষের সংখ্যা ৪০ থেকে ৬০ কোটি বাড়তে পারে। পরিসংখ্যান ব্যুরোর সবশেষ হিসাব অনুযায়ী বর্তমানে দেশের ১৬ কোটি ৫০ লাখ জনসংখ্যার ৩ কোটি ৩০ লাখ দরিদ্র। এর মধ্যে আবার ১ কোটি ৭০ লাখ অতিদরিদ্র। তবে বেসরকারি গবেষণা সংস্থাগুলোর মতে দরিদ্র মানুষের সংখ্যা ৪ কোটি ছাড়িয়ে গেছে। জাতিসংঘ আশঙ্কা করছে, করোনা-পরবর্তী দিনগুলোয় বিশ্বমন্দার ভয়াল থাবার পাশাপাশি হানা দিতে পারে দুর্ভিক্ষ। ফলে ২০৩০ সালের মধ্যে দারিদ্র্য দূর করার লক্ষ্য পূরণে বিশাল চ্যালেঞ্জের মুখোমুখি হতে হবে। এই যখন সার্বিক প্রেক্ষাপট তখন কৃষি নিয়ে নতুন করে ভাবতে হচ্ছে কৃষিপ্রধান দেশ বাংলাদেশকে। এসডিজির ১৭টি অভীষ্টের মধ্যে ১০টিই কোনো না কোনোভাবে কৃষির সঙ্গে জড়িত। ফলে সামনের দিনগুলোয় খাদ্য সংকটের আশঙ্কা আমলে নিয়েই মজুত ও উৎপাদন বাড়ানোর উদ্যোগ নিয়েছে সরকার।
করোনা-পরবর্তী বিশ্বে দরিদ্র মানুষের সংখ্যা ৪০ থেকে ৬০ কোটি বাড়তে পারে। সার্বিক প্রেক্ষাপটে কৃষি নিয়ে নতুন করে ভাবতে হচ্ছে কৃষিপ্রধান দেশ বাংলাদেশকে। খাদ্যপণ্যের মজুত শক্ত থাকলে যে কোনো দেশের সরকার স্বস্তিতে থাকে। ফলে দুর্যোগ এলে সবার আগে জনসাধারণের জীবনের নিরাপত্তা এবং এর পরই স্থান পায় খাদ্য নিরাপত্তা নিশ্চিত করা। খাদ্য নিরাপত্তা নিশ্চিত করতে দ্রুত খাদ্য আমদানির উদ্যোগও নিয়েছে সরকার। করোনায় কাজ হারিয়েছে দেশের পিছিয়ে পড়া শ্রমিক শ্রেণি। আঘাতটা তাই বেশি করে আসছে গরিবের ওপর। রাষ্ট্রের সেখানে কী করণীয় আছে গভীরভাবে ভেবে দেখা দরকার। কেবল বস্তাভর্তি চাল বিতরণেই সমাধান নেই। ক্ষুদ্র ও মাঝারি শিল্পের বিকাশ এবং কর্মসংস্থান সৃষ্টির উদ্যোগ নিলে সত্যিকার অর্থে রাষ্ট্র কল্যাণমুখী হয়ে উঠবে। ভবিষ্যতে এমন আঘাত এলে তা সামলে ওঠার মতো ক্ষমতা অর্জন করবে।
গ্রামীণ অবকাঠামো উন্নয়নের কারণে বাংলাদেশের দরিদ্র মানুষের আয় বেড়েছে। অনেক হতাশার মধ্যেও আশা জাগিয়েছে প্রবাসীদের পাঠানো রেমিট্যান্স। জাতিসংঘ উন্নয়ন কর্মসূচি প্রকাশিত মানব উন্নয়ন সূচক প্রতিবেদন ২০২০-এ বলা হয়েছে, করোনার সময়েও বিশ্বের মানব উন্নয়ন সূচকে এগিয়ে যাওয়ার ধারাবাহিকতায় গত ৩০ বছরে বাংলাদেশ এগিয়েছে ৬০ শতাংশ। সর্বশেষ মানব উন্নয়ন সূচকে বাংলাদেশ আরো দুই ধাপ এগিয়েছে। মানুষের প্রত্যাশিত গড় আয়ু বেড়েছে।
একনেকের বৈঠকে ১ লাখ সাড়ে ৯৭ হাজার কোটি টাকার সংশোধিত উন্নয়ন বাজেট অনুমোদন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা দিয়েছেন, দেশের অর্থনৈতিক কর্মকাণ্ডের প্রসার, বেশি কর্মসংস্থান, শিক্ষা-স্বাস্থ্যসেবার মানোন্নয়ন, মহামারি কোভিড-১৯ পরিস্থিতি মোকাবিলা, মানবসম্পদ উন্নয়ন, খাদ্য উৎপাদন, খাদ্য নিরাপত্তা ও নিরাপদ খাদ্য নিশ্চিতকরণ হয়েছে বলে খবরে প্রকাশ।

আবু জাফর সিদ্দিকী
লেখক ও গবেষক, ঢাকা।
[email protected]

মন্তব্য করুন

খবরের বিষয়বস্তুর সঙ্গে মিল আছে এবং আপত্তিজনক নয়- এমন মন্তব্যই প্রদর্শিত হবে। মন্তব্যগুলো পাঠকের নিজস্ব মতামত, ভোরের কাগজ লাইভ এর দায়ভার নেবে না।

জনপ্রিয়