স্বাধীনতার সুবর্ণজয়ন্তীতে প্যারেড গ্রাউন্ডে ১০ দিনের আয়োজন

আগের সংবাদ

এবার তৃণমূলে যোগ দিলেন অদিতি মুন্সি

পরের সংবাদ

উন্নয়নশীল দেশে উত্তরণ

চ্যালঞ্জের সাথে সুযোগও বাড়বে: পররাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী

প্রকাশিত: মার্চ ৪, ২০২১ , ৯:৫২ অপরাহ্ণ আপডেট: মার্চ ৪, ২০২১ , ৯:৫৪ অপরাহ্ণ

এলডিসি থেকে বের হলে একদিকে চ্যালেঞ্জ আছে, অন্যদিকে সুযোগ বাড়বে বলে জানিয়েছেন পররাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী শাহরিয়ার আলম। তিনি বলেন, এলডিসি উত্তরণকালীন সময়ের মধ্যে পদ্মা সেতুর মতো মেগা প্রকল্পগুলো শেষ হয়ে যাবে, যা ব্যবসায় প্রতিযোগিতা সক্ষমতা বাড়াতে সহায়তা করবে। তাই এলডিসি উত্তরণের ফলে যে ক্ষতি হবে, তা কাটানো সহজ হবে।
বৃহস্পতিবার (৪ মার্চ) ‘এলডিসি থেকে উত্তরণ: গতিশীল উত্তরণের কৌশল’ শীর্ষক সংলাপে প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এসব কথা বলেন। অনুষ্ঠানে সভাপতিত্ব করেন সিপিডির চেয়ারম্যান রেহমান সোবহান।

অনুষ্ঠানে আরো বক্তব্য দেন তৈরি পোশাকমালিকদের সংগঠন বিজিএমইএ সভাপতি রুবানা হক, বাংলাদেশ টেক্সটাইল মিলস অ্যাসোসিয়েশনের (বিটিএমএ) সাবেক সভাপতি মতিন চৌধুরী, আন্তর্জাতিক শ্রম সংস্থার (আইএলও) কান্ট্রি ডিরেক্টর টমো পৌতিয়ানেন প্রমুখ। অনুষ্ঠান সঞ্চালনা করেন সিপিডির নির্বাহী পরিচালক ফাহমিদা খাতুন।
অনুষ্ঠানে অর্থনীতিবিদ রেহমান সোবহান বলেন, ২০২৬ সালে বাংলাদেশ সংখ্যার বিচারে স্বল্পোন্নত দেশের (এলডিসি) তালিকা থেকে উত্তরণ হবে। একই সঙ্গে বাস্তব জীবনের সঙ্গে সংগতিপূর্ণ উত্তরণও লাগবে। যেমন এলডিসি থেকে বের হয়ে যাওয়ার পর আন্তর্জাতিক বাজারে বাংলাদেশের রপ্তানি পণ্য যাতে প্রতিযোগিতাসক্ষম হতে পারে। ওষুধ খাতের চ্যালেঞ্জগুলো দূর করা দরকার। তাই এখন থেকে পর্যাপ্ত প্রস্তুতি নিতে হবে। তিনি বলেন, ২০০৮ সালে ওষুধশিল্পের এপিআই পার্ক স্থাপনের উদ্যোগ নেওয়া হয়। কিন্তু এখনো তা শেষ হয়নি। অথচ এলডিসি থেকে উত্তরণ হলে স্থানীয় বাজারেও ওষুধের দাম বাড়তে পারে।
বেসরকারি গবেষণা প্রতিষ্ঠান সেন্টার ফর পলিসি ডায়ালগের (সিপিডি) বিশেষ ফেলো মোস্তাফিজুর রহমান বলেন, ২০২৬ সালে সকালে উঠে যেন এমন মনে না হয়, অনেক কিছুই করা হয়নি। তাহলে বিপাকে পড়তে হবে। বাংলাদেশের রপ্তানি, ওষুধ খাতসহ বিভিন্ন খাত চ্যালেঞ্জের মুখে পড়বে। স্থানীয় বাজারে শুধু ইনুসলিনের দাম আট গুণ বাড়তে পারে।
দেশের প্রধান অন্যতম রপ্তানি খাত তৈরি পোশাকমালিকদের সংগঠন বিজিএমইএ সভাপতি রুবানা হকের মত হলো, প্রতিযোগিতা সক্ষমতা টিকিয়ে রাখতে এখনই কৌশল ঠিক করতে হবে।
এলডিসি থেকে বের হলে অর্থায়নের কী ধরনের সমস্যা হতে পারে, তা তুলে ধরেন স্ট্যান্ডার্ড চার্টার্ড ব্যাংকের প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা নাসের এজাজ বিজয়। তিনি বলেন, জলবায়ু তহবিল থেকে অর্থ মিলবে না। এ ছাড়া অন্য বিদেশি ঋণ পাওয়ার খরচ বাড়বে। তিনি পুঁজিবাজার থেকে বিনিয়োগের অর্থ আনাকে উৎসাহিত করার পরামর্শ দেন।

আরআর

মন্তব্য করুন

খবরের বিষয়বস্তুর সঙ্গে মিল আছে এবং আপত্তিজনক নয়- এমন মন্তব্যই প্রদর্শিত হবে। মন্তব্যগুলো পাঠকের নিজস্ব মতামত, ভোরের কাগজ লাইভ এর দায়ভার নেবে না।

জনপ্রিয়