রেসিপিকুমড়া ফুল রান্না

আগের সংবাদ

বিশ্বজুড়ে ফিশিং হামলা বৃদ্ধির ইঙ্গিত

পরের সংবাদ

মোজা বিতর্ক…

প্রকাশিত: ফেব্রুয়ারি ২৮, ২০২১ , ১২:৪০ পূর্বাহ্ণ আপডেট: ফেব্রুয়ারি ২৭, ২০২১ , ১০:০৪ অপরাহ্ণ

ডা. আশরাফুন্নাহার চৈতী
মোজা পরে ঘুমানোর ভালো মন্দ দু-দিকই আছে। তবে বিছানায় মোজা পরা ঘুমকে ভালো করে তথ্যটি দেবার জন্য স¤প্রতি এক চিকিৎসক টিকটকে ভাইরাল হয়েছেন। টিকটিকে “ডা. জেসস”” নামে পরিচিত ওই চিকিৎসকের নাম জেস অ্যানড্রেড। তিনি জানান, তিনি প্রায়ই রাতে বিছানায় মোজা পরে ঘুমান এবং এটি তার ঘুমের রুটিনকে ব্যাপকভাবে উপকৃত করেছে। টিকটকে ভিডিওটি ১৬ মিলিয়নেরও বেশি বার দেখা হয়েছে।
এই চিকিৎসক বলেন,“মোজা পরলে পা গরম থাকে এবং এটি রক্তনালীগুলো উন্মুক্ত করে দেয় যা শরীরকে শীতল রাখে। আর দেহ শীতল থাকলে মস্তিষ্ক বুঝতে পারে এখন ঘুমোনোর সময়। সেজন্যই মোজা পরা লোকেরা খুব দ্রুত ঘুমিয়ে পড়ে।” ডা. অ্যানড্রেড ব্যাখ্যায় আরও বলেন, তিনি শুধু একাই এই কৌশল খুঁজে পাননি। বরং, ২০০৬ সালে একটি জার্নালে প্রকাশিত একটি গবেষণায় বিষয় এসেছিল। সেখানে পায়ের তাপমাত্রা ঘুমের গুণমানের ওপর কেমন প্রভাব ফেলে তা পরীক্ষা করে দেখা হয়েছিল। সমীক্ষাটির উপসংহার টেনে তিনি বলেন, “আলো বন্ধ করার পরে এবং উষ্ণ ও আরামদায়ক মোজা পরে ঘুমের ফলে প্রাপ্তবয়স্কদের মধ্যে ঘুমের মাত্রা ত্বরান্বিত হয়েছিল।” মোজা পরে ঘুমানোর ক্ষতিকর দিকও আছে
এদিকে মোজা পরে ঘুমালে পায়ের ত্বকের আর্দ্রতা বজায় থাকে। তবে কিছু নেতিবাচক দিকও আছে। স্বাস্থ্যবিষয়ক একটি ওয়েসাইটের প্রতিবেদনের আলোকে এবার থাকছে মোজার কিছু নেতিবাচক দিকের তথ্যও।
শরীরের তাপমাত্রা বাড়ায়: বাতাস চলাচল করতে পারেনা এমন কাপড়ের মোজা পরলে তা পায়ে অতিরিক্ত তাপমাত্রা সৃষ্টি করতে পারে। যা পক্ষান্তরে পুরো শরীরের তাপমাত্রা বাড়াবে। শীতের দিনে ব্যাপারটা সমস্যা না হলেও উষ্ণ আবহাওয়ায় তা অস্বস্তি তৈরি করবে।
রক্ত চলাচলে বাধা দিতে পারে: ঢিলেঢালা মোজা পরে ঘুমানোতে রক্ত সঞ্চালনে কোনো সমস্যা হয় না, বরং অনেক বিশেষজ্ঞ দাবি করেন আরও উন্নত হয়। তবে মোজা যদি আঁটসাঁট হয় সেক্ষেত্রে পায়ে রক্ত সঞ্চালনে বাধা সৃষ্টি হবে।
ত্বকের প্রদাহ: সুতি ছাড়া সব ধরনের কাপড়ের মোজাতেই ত্বকে প্রদাহ সৃষ্টি হওয়া ঝুঁকি থেকেই যায়, বিশেষত নাইলনের মোজায়। তাই সুতি আর শীতের জন্য উলের মোজাতেই সীমাবদ্ধ থাকা উচিত। পরিষ্কারের দিকেও নজর রাখতে হবে। যে মোজা পরে ঘুমানো হয় তা ময়লা হতেই পারে।
ঘুমের সমস্যা: অভ্যাস না থাকলে কিংবা মোজার ‘ইলাস্টিক’ আঁটসাঁট হলে তা পরে থাকা অস্বস্তি তৈরি করতে পারে। আর সেই অস্বস্তি ঘুমের ব্যাঘাত ঘটাবে।
পরিষ্কার পা: মোজা পরে ঘুমানোর আগে পা ভালো করে পরিষ্কার করে মুছে মোজা পরা উচিত। অন্যথায় বাজে গন্ধ তৈরি হবে। না ?ধুয়ে টানা কয়েকদিন মোজা ব্যবহার করলে তা থেকে পায়ে সংক্রমণ দেখা দিতে পারে।
মনে রাখতে হবে
মোজা পরে ঘুমানোর ভালো মন্দ দু-দিকই আছে। তাই ঘুমানোর সময় মোজা যদি পরতেই চান তবে ঢিলেঢালা, পরিষ্কার এবং বাতাস চলাচল করতে পারে এমন মোজা পরতে হবে।

মন্তব্য করুন

খবরের বিষয়বস্তুর সঙ্গে মিল আছে এবং আপত্তিজনক নয়- এমন মন্তব্যই প্রদর্শিত হবে। মন্তব্যগুলো পাঠকের নিজস্ব মতামত, ভোরের কাগজ লাইভ এর দায়ভার নেবে না।

জনপ্রিয়