তদন্তের মাধ্যমে মোশতাকের মৃত্যুর রহস্য উন্মোচিত হবে: কাদের

আগের সংবাদ

কার্টুনিস্ট আহমেদ কবির কিশোরের রিমান্ড নামঞ্জুর

পরের সংবাদ

গেটওয়েতে ডলার লেনদেনের মাধ্যমে প্রতারণা করত সাজ্জাদ

প্রকাশিত: ফেব্রুয়ারি ২৮, ২০২১ , ১:৫৫ অপরাহ্ণ আপডেট: ফেব্রুয়ারি ২৮, ২০২১ , ১:৫৬ অপরাহ্ণ

অনলাইন পেমেন্ট গেটওয়েতে হাজার হাজার ডলার লেনদেনের মাধ্যমে প্রতারণার অভিযোগে সাজ্জাদুল আলম নামে এক ব্যক্তিকে গ্রেপ্তার করেছে সিআইডি।

রবিবার (২৮ ফেব্রুয়ারি) এ বিষয়ে এক সংবাদ সম্মেলন অনুষ্ঠিত হয়। সংবাদ সম্মেলনটি ব্রিফ করেন মো. কামরুল আহসান অতিরিক্ত ডিআইজি সাইবার ইউনিট।

তিনি বলেন, একজন অস্ট্রেলিয়ান-প্রবাসী বাংলাদেশি ডাক্তার চৌধুরী সাইফুল আলম বেগ আন্তর্জাতিক বিভিন্ন প্রয়োজনে অনলাইন পেমেন্ট গেটওয়ে পেপাল, স্ক্রিল নেটলার এর মাধ্যমে তার ডলার লেনদেন এর প্রেয়োজন হতাে। সেই সুবাদে তিনি অভিযুক্ত জেড এম সাজ্জাদুল আলম এর সাথে পরিচিত হন। মাঝেমধ্যেই অভিযুক্ত জেড এম সাজ্জাদুল আলম ডাক্তার সাইফুল আলম বেগ এর সাথে স্বাভাবিকভাবে ডলারের লেনদেন করে আসছিলেন। গতবছর হতে এ বছর ফেব্রুয়ারি মাস পর্যন্ত অভিযুক্ত জেড এম সাজ্জাদুল আলম প্রায় ১০ লক্ষ টাকার পরিমাণ ডলার প্রতারণার মাধ্যমে আত্মসাৎ করে নিয়ে নেয়, যা তিনি বাংলাদেশে অবস্থানরত ডাক্তার ফাহিম আহমেদকে প্রদান করতে বলেন।

ডাক্তার সাইফুল আলম বেগ অভিযুক্ত জেড এম সাজ্জাদুল আলমকে টাকা পরিশােধ করতে বলেন এবং সময় প্রদান করেন। একপর্যায়ে অভিযুক্ত জেড এম সাজ্জাদুল আলম ডাক্তার চৌধুরী সাইফুল আলম বেগ এর সাথে যােগাযােগ বন্ধ করে দেন। ডাক্তার চৌধুরী সাইফুল আলম বেগ কোন উপায় না পেয়ে বাংলাদেশ সাইবার পুলিশ সিআইডির নিকট অভিযােগ করেন।

সিআইডি সাইবার পুলিশ তদন্ত করতে গিয়ে দেখেন অভিযুক্ত জেড এম সাজ্জাদুল আলম পূর্বে একজন আইটি ব্যবসায়ী ছিলেন। অভিযুক্ত সাজ্জাদুল আলম রাতারাতি বিত্তবান হওয়ার আশায় অনলাইন পেমেন্ট গেটওযের ডলার ব্যবসা শুরু করেন। প্রবাসী ভিকটিম এর আগে অল্প অল্প করে কিছু টাকা পাঠান । ফলে বিশ্বস্ততা তৈরি হয় তিনি আমেরিকা প্রবাসী তাহমিদ এর সাথেও প্রতারণা করেন। এছাড়া তিনি দেশের অনেক ফ্রিল্যান্সারের সাথে পেপাল এর ডলার নিয়ে আত্মসাৎ করেছেন। অভিযুক্ত জেড সাজ্জাদুল আলম প্রতারণার মাধ্যমে প্রাপ্ত ডলার দিয়ে ইন্টারন্যাশনাল অনলাইন বেটিং করতেন। অভিযােগ তদন্ত করতে গিয়ে দেখা যায় জেড এম সাজ্জাদুল আলমের নামে কোর্টে তিনটি সিআর মামলা রয়েছে। প্রত্যেক মামলার বাদী ফ্রিল্যান্সিং ব্যবসার সাথে জড়িত।

অভিযুক্ত জেড এম সাজ্জাদুল আলম বিভিন্ন উপায়ে মানুষের অর্থ আত্মসাৎ করেছেন। দেশের ভিতরে অনেকে তার মাধ্যমে বিদেশি শিক্ষা প্রতিষ্ঠান কোর্স ফি প্রদান করতে গিয়ে প্রতারণার শিকার হয়েছেন এবং অনেকে দেশের বাইরে থেকে অনলাইনে প্রােডাক্ট আনার জন্য তার কাছ থেকে পেপাল অথবা ক্রিলের ডলার নিতে গিয়ে প্রতারিত হয়েছেন (অভিযুক্ত জেড এম সাজ্জাদুল আলম এর বর্তমান ঠিকানা মিরপুর প্যারিস রােড এবং তার স্থায়ী ঠিকানা শৈলকুপা গার্লস হাই স্কুলের পিছনে, বাজারপাড়া এলাকায়, থানা-শৈলকুপা, জেলা-ঝিনাইদহ। অভিযুক্ত সাজ্জাদুল আলমকে সিআইডি সাইবার মনিটরিং টিম নওগাঁর বদলগাছী থানার মাস্টার পাড়া এলাকা থেকে গ্রেফতার করেন । তাকে গ্রেফতারের সময় তার নিকট হতে দুইটি মােবাইল ফোন এবং তার ব্যবহৃত স্ক্রিল অনলাইন পেমেন্ট গেটওমের একাউন্ট জব্দ করা হয়।

ডাক্তার ফাহিম আহমেদ বাদী হয়ে গত ২৪/০২/২০২১ ইং তারিখে পল্টন থানায় ২০১৮ ডিজিটাল নিরাপত্তা আইন এর ২৩(২) তৎসহ ১৯৭৪ বিশেষ ক্ষমতা আইনের ২৫-খ ধারায় মামলা রুজু করেন।

এখন পর্যন্ত এ মাধ্যম ব্যবহার করে বিভিন্ন ভিকটিমের কাছে থেকে প্রায় ৫০ লক্ষাধিক টাকা প্রতারণার মাধ্যমে আত্বসাতের কথা সে স্বীকার করেছে। ধারনা করা যাচ্ছে যে একই প্রক্রিয়ায় সে বিভিন্ন ভিকটিমের কাছে হতে কয়েক কোটি টাকা আত্বসাৎ করেছে। উল্লিখিত মামলায় সে ইতোমধ্যেই বিজ্ঞ আদালতে ফৌঃ কাঃ বিঃ এর ১৬৪ ধারা মােতাবেক জবানবন্দি প্রদান করেছে।

এমআই

মন্তব্য করুন

খবরের বিষয়বস্তুর সঙ্গে মিল আছে এবং আপত্তিজনক নয়- এমন মন্তব্যই প্রদর্শিত হবে। মন্তব্যগুলো পাঠকের নিজস্ব মতামত, ভোরের কাগজ লাইভ এর দায়ভার নেবে না।

জনপ্রিয়