পেছাতে পারে ৪৩তম বিসিএস পরীক্ষা, ৪০-৪১-৪২তম যথাসময়ে

আগের সংবাদ

রোনালদোর জোড়া গোলে তিনে জুভেন্টাস

পরের সংবাদ

ইংল্যান্ডে লকডাউন প্রত্যাহার, স্কুল খুলবে ৮ মার্চ

প্রকাশিত: ফেব্রুয়ারি ২৩, ২০২১ , ৯:৫৩ পূর্বাহ্ণ আপডেট: ফেব্রুয়ারি ২৩, ২০২১ , ১২:২৫ অপরাহ্ণ

চার দফায় লকডাউন তুলে ইংল্যান্ডে করোনা সংক্রান্ত বিধিনিষেধ শিথিল করতে চলেছেন প্রধানমন্ত্রী বরিস জনসন। প্রথম ধাপে দু’ভাগে লকডাউন তোলা হবে বলে পরিকল্পনা করেছে সরকার। ৮ মার্চ থেকে খুলে দেওয়া হবে সব স্কুল। পাশাপাশি দু’জন ব্যক্তি একসঙ্গে পার্কে বা কফি খেতে বা পিকনিক করতে যেতে পারবেন। দ্বিতীয় ভাগে অর্থাৎ, ২৯ মার্চ থেকে বাড়ির বাইরে দেখা করতে পারবেন ছ’জন বা দু’টি আলাদা বাড়ির বাসিন্দারা। বাইরে বেরিয়ে টেনিস ও বাসকেট বল খেলার অনুমতি দেওয়া হবে বড়দের পাশাপাশি ছোটদেরও। খবর আনন্দবাজারের।

৮ মার্চ থেকে ইংল্যান্ডের কেয়ার হোমের বাসিন্দাদের সঙ্গে প্রতিদিন একজন করে আত্মীয় বা বন্ধু দেখা করতে পারবেন। মনে করা হচ্ছে, ২৯ মার্চ থেকে নিজের এলাকার বাইরে ফের পা রাখতে পারবেন বাসিন্দারা। তবে রাত কাটানো চলবে না বাইরে।

২৯ মার্চ থেকে অর্থাৎ লকডাউন তোলার দ্বিতীয় পর্যায়ে খোলা হবে দোকানপাট। পাব ও রেস্তোরাগুলিতে বাইরে বসে পানাহার করা যাবে। মে মাস থেকে খেলাধুলা ও গানবাজনার অনুষ্ঠান চালু হবে। তবে প্রয়োজন না-হলে বাড়ি থেকে অফিসের কাজ করার চালু থাকবে এখনও। এবং আন্তর্জাতিক সফর এখনও বন্ধই রাখা হবে বলে স্থির করেছে সরকার।

ধাপে ধাপে লকডাউন তোলার এই গোটা প্রক্রিয়ার উপরে নজর রাখবে প্রশাসন। সঙ্গে চলবে টিকাকরণের কাজও। সরকার আশা করছে, মে মাসের মধ্যে ব্রিটেনের প্রত্যেক প্রাপ্তবয়স্ককে টিকা দেওয়া সম্ভব হবে।

রবিবার এক বিবৃতিতে বরিস জনসন বলেন, ‘‘শিশুদের স্কুলে ফিরিয়ে আনা সবসময়েই আমাদের প্রথম লক্ষ্য। তাদের শিক্ষা এবং মানসিক ও শারীরিক সুস্থতার জন্য যা সবচেয়ে জরুরি। পাশাপাশি, সাধারণ মানুষ যাতে ফের প্রিয়জনদের সঙ্গে মেলামেশা করতে পারেন, তা-ও আমরা দেখছি।’’

এদিকে, টিকাকরণ সত্ত্বেও আমেরিকায় করোনায় মৃত্যুর হার দুশ্চিন্তা বাড়াচ্ছে সরকারের। গত কালই মৃত্যু পাঁচ লক্ষ ছাড়িয়ে গিয়েছিল। এই অবস্থায় বিশেষজ্ঞেরা বলছেন, আমেরিকায় স্বাভাবিক অবস্থা ফিরতে কেটে যাবে এ বছরটাও। সংক্রমক রোগ বিশেষজ্ঞ অ্যান্টনি ফাউচিও জানাচ্ছেন, এই বছরটা মাস্ক পরেই কাটাতে হবে আমেরিকাবাসীকে। প্রেসিডেন্ট জো বাইডেনের মুখ্য চিকিৎসা উপদেষ্টা ফাউচির কথায়, ‘‘এই অতিমারি ভয়ঙ্কর। ঐতিহাসিক। ১৯১৮ সালের ইনফ্লুয়েঞ্জার পরে গত ১০০ বছরে এর কাছাকাছি কোনও বিপর্যয় ঘটেনি।’’

পিআর

মন্তব্য করুন

খবরের বিষয়বস্তুর সঙ্গে মিল আছে এবং আপত্তিজনক নয়- এমন মন্তব্যই প্রদর্শিত হবে। মন্তব্যগুলো পাঠকের নিজস্ব মতামত, ভোরের কাগজ লাইভ এর দায়ভার নেবে না।

জনপ্রিয়