ঢাকা দক্ষিণে বাস ভাড়া বাড়ছে প্রতি কিলোমিটারে ৫০ পয়সা

আগের সংবাদ

করোনায় যুক্তরাষ্ট্রে মৃত্যু ছাড়াল ৫ লাখ

পরের সংবাদ

মিয়ানমারের জেনারেলদের বিরুদ্ধে নতুন নিষেধাজ্ঞা

প্রকাশিত: ফেব্রুয়ারি ২৩, ২০২১ , ২:৪২ অপরাহ্ণ আপডেট: ফেব্রুয়ারি ২৩, ২০২১ , ২:৪৫ অপরাহ্ণ

মিয়ানমারের জান্তা সরকারের দুই জেনারেলের বিরুদ্ধে নতুন করে নিষেধাজ্ঞা জারি করেছে যুক্তরাষ্ট্র। সোমবার (২২ ফেব্রুয়ারি) যুক্তরাষ্ট্রের অর্থ মন্ত্রণালয়ের ফরেন অ্যাসেট কন্ট্রোল দফতর এই নিষেধাজ্ঞা জারি করে। এ দিকে দেশটির জনগণ ও রাজনৈতিক নেতাদের ওপর সেনাবাহিনীর চলমান ‘দমন-পীড়ন বন্ধ করতে’ বললেন জাতিসংঘ মহাসচিব আন্তোনিও গুতেরেস। খবর রয়টার্স ও বিবিসির

নিষিদ্ধ তালিকাভুক্তরা হলেন মিয়ানমারের বিমান বাহিনীর প্রধান জেনারেল মুং মুং কিয়াও এবং সেনাবাহিনীর সাবেক চিফ অব স্টাফ সামরিক বাহিনীর অন্যতম স্পেশাল অপারেশন ব্যুরোর কমান্ডার লেফটেন্যান্ট জেনারেল মোয়ে মিন্ট তুন। দুজনই মিয়ানমারের জান্তা সরকারের স্টেট অ্যাডমিনিস্ট্রেশন কাউন্সিলের সদস্য। রাজধানী নেপিদো থেকে জেনারেল মিন্ট তুনের পরিচালনাধীন ব্যুরোই সেনাবাহিনীরর বিভিন্ন অভিযান নিয়ন্ত্রণ করে। এই নিষেধাজ্ঞার বলে যুক্তরাষ্ট্রে তাদের কোনো সম্পদ থাকলে তা জব্দ হবে। যুক্তরাষ্ট্রের নাগরিকরা এদের সঙ্গে কোনো ধরনের লেনদেন করতে পারবে না।

যু্ক্তরাষ্ট্রের অর্থ মন্ত্রণালয় এক বিবৃতিতে বলেছে, মিয়ানমার সেনাবাহিনীকে অবশ্যই তাদের পদক্ষেপ থেকে সরে আসতে হবে। জরুরিভিত্তিতে গণতান্ত্রিকভাবে নির্বাচিত সরকারকে মিয়ানমারের ক্ষমতায় পুনর্বহাল করতে হবে। এই বিবৃতিতে যুক্তরাষ্ট্রের পররাষ্ট্রমন্ত্রী অ্যান্টনি ব্লিনকেন বলেছেন, ‘জনগণের ইচ্ছাকে যারা দমন করছে ও সহিংসতা চালাচ্ছে তাদের বিরুদ্ধে আরও পদক্ষেপ নিতে আমরা দ্বিধা করবো না।’

গত ১ ফেব্রুয়ারি দেশের ক্ষমতা দখল করে মিয়ানমার সেনাবাহিনী। এদিন রাষ্ট্রীয় উপদেষ্টা অং সান সু কি এবং ক্ষমতাসীন দলের শীর্ষস্থানীয় নেতাদের আটক করে তারা। পাশাপাশি সারাদেশে জরুরি অবস্থা জারি করা হয়। এ ঘটনায় মিয়ানমারের বেশ কয়েকজন সেনা জেনারেলের বিরুদ্ধে নিষেধাজ্ঞা জারি করেছিল যুক্তরাষ্ট্র। এবার নতুন করে দুই জনের বিরুদ্ধে নিষেধাজ্ঞা জারি করা হয়েছে।

সেনাবাহিনীকে ‘দমন-পীড়ন বন্ধ করতে’ বললেন জাতিসংঘ মহাসচিব

মিয়ানমারের সেনাবাহিনীকে দমনপীড়ন বন্ধ করে বন্দি রাজনৈতিক নেতাদের অবিলম্বে মুক্তি দেওয়ার আহ্বান জানিয়েছেন জাতিসংঘের মহাসচিব আন্তোনিও গুতেরেস। সোমবার জেনিভায় জাতিসংঘের মানবাধিকার কাউন্সিলে দেওয়া বার্ষিক ভাষণে তিনি এ আহ্বান জানান।

গুতেরেস বলেন, “গণতন্ত্রকে পঙ্গু হতে দেখছি। নিষ্ঠুর শক্তির ব্যবহার, যথেচ্ছ গ্রেপ্তার, দমন- সবই দেখছি। নাগরিকদের গণতান্ত্রিক অধিকারের ওপর নিয়ন্ত্রণ আরোপ, সুশীল সমাজের ওপর হামলা হতে দেখছি। জবাবদিহিতা ছাড়াই সংখ্যালঘুদের অধিকারের গুরুতর লঙ্ঘন, এর মধ্যে যাকে সঠিকভাবে বলা যায় রোহিঙ্গা জনগোষ্ঠীর জাতিগত নির্মূলকরণ। তালিকা বাড়ছে। আজ, আমি মিয়ানমারের সেনাবাহিনীকে অবিলম্বে দমন বন্ধের আহ্বান জানাচ্ছি। বন্দিদের মুক্তি দিন। সহিংসতা শেষ করুন। মানবাধিকারের প্রতি এবং সাম্প্রতিক নির্বাচনে জনগণের যে ইচ্ছা প্রকাশ পেয়েছে তার প্রতি শ্রদ্ধা দেখান। বর্তমান বিশ্বে সেনা অভ্যুত্থানের কোনো জায়গা নেই।

 

আরআর

মন্তব্য করুন

খবরের বিষয়বস্তুর সঙ্গে মিল আছে এবং আপত্তিজনক নয়- এমন মন্তব্যই প্রদর্শিত হবে। মন্তব্যগুলো পাঠকের নিজস্ব মতামত, ভোরের কাগজ লাইভ এর দায়ভার নেবে না।

জনপ্রিয়