দেখা মিলল বিলুপ্তপ্রায় হলুদ পেঙ্গুইন

আগের সংবাদ

‘ভয়ঙ্কর’ দুনিয়ায় বরুণকে স্বাগত জানালেন জাহ্নবী

পরের সংবাদ

প্রশাসনের নির্দেশেও হল ছাড়েনি জাবি শিক্ষার্থীরা

প্রকাশিত: ফেব্রুয়ারি ২২, ২০২১ , ১২:৪১ অপরাহ্ণ আপডেট: ফেব্রুয়ারি ২২, ২০২১ , ৬:০৪ অপরাহ্ণ

জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষ ছাত্র-ছাত্রীদের আবাসিক হল ছাড়ার নির্দেশ দিলেও হল ছাড়েনি শিক্ষার্থীরা। সোমবার আবাসিক হলগুলোতে ঘুরে প্রভোস্টরা শিক্ষার্থীদের হল ছাড়ার অনুরোধ জানাচ্ছেন। তারা কোনোভাবেই হল ছাড়বে না বলে জানিয়ে দিয়েছে প্রশাসনকে। এ নিয়ে উভয় সংকটে পড়েছে বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষ।

এর আগে রোববার (২১ ফেব্রুয়ারি) রাতে বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসন শিক্ষার্থীদের হল ত্যাগের নির্দেশ দেয়। হল ছাড়ার সময় বেঁধে দেওয়া হয় সোমবার সকাল ১০টা পর্যন্ত। কিন্তু শিক্ষার্থীরা এখনও যার যার হলে অবস্থান করছেন।

সোমবার (২২ ফেব্রুয়ারি) সকাল সোয়া ১১টায় প্রভোস্টদের নেতৃত্বে হলে পরিদর্শন শুরু হয়। এ সময় প্রভোস্টদের সঙ্গে হলের অন্যান্য দায়িত্বপ্রাপ্ত শিক্ষকরাও ছিলেন।

হল খুলে দেওয়ার দাবিতে সোমবার ক্যাম্পাসে বিক্ষোভ মিছিল করছেন জাবি শিক্ষার্থীরা। ছবি: ভোরের কাগজ

আ ফ ম কামালউদ্দিন হলের প্রভোস্ট ও বিশ্ববিদ্যালয়ের ভারপ্রাপ্ত প্রক্টর আ স ম ফিরোজ উল হাসান অভিযান পরিচালনার সময় বলেন, আমরা সরকারের নির্দেশনা জানাতে এসেছি। আইন ভঙ্গ করে হলে অবস্থান করা যাবে না। শিক্ষার্থীদের অনুরোধ করছি, যাতে তারা আইন মেনে হল ছেড়ে দেন।

শিক্ষার্থীরা কোথায় যাবে- এমন প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, শিক্ষার্থীরা বাড়ি চলে যেতে পারেন। গেরুয়া এলাকার বিকল্প তো হল হতে পারে না। শিক্ষার্থীদের নিরাপত্তার বিষয়ে তিনি বলেন, ‘গেরুয়া এলাকার সমস্যার ব্যাপারে আমরা কথা বলছি। আর আশুলিয়া থানায় মামলা করেছি।

প্রক্টর ফিরোজ উল হাসান আরও জানান, প্রত্যেক প্রভোস্ট তার নিজস্ব হলে অভিযান করছে, শিক্ষার্থীদের সঙ্গে কথা বলছে। সবাইকে অনুরোধ করছি, হল ছেড়ে দেওয়ার জন্য। তারপর প্রশাসনের অন্যান্যদের সঙ্গে বসে এ বিষয়ে সিদ্ধান্ত নেয়া হবে।


সোমাবার দুপুরে জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ের বঙ্গমাতা বেগম ফজিলাতুন্নেসা মুজিব হলের তালা ভাঙছেন শিক্ষার্থীরা। ছবি: ভোরের কাগজ

অন্যদিকে শিক্ষার্থীরা কোনোভাবেই হল ছাড়বে না বলে প্রভোস্টকে জানিয়ে দিয়েছে। প্রভোস্টের প্রশ্নের জবাবে ম্যানেজমেন্ট স্টাডিস বিভাগের দ্বিতীয়বর্ষের শিক্ষার্থী মেহেদী হাসান বলেন, আমাদের অনলাইনে ক্লাস ও পরীক্ষা চলছে। গ্রামের বাড়িতে নেট সমস্যা থাকায় ক্লাস-পরীক্ষায় অংগ্রহণ করা যায় না।

তিনি আরও বলেন,টিউশনি করে আমাকে চলতে হয় ও পরিবারকেও টাকা দিতে হয়। হলের বাইরে থাকা আমার জন্য নিরাপদ নয়।

এর আগে সকাল সাড়ে ৯টায় প্রভোস্ট কমিটির মিটিং শুরু হয়। ১১টায় মিটিং শেষে সাংবাদিকদের জানানো হয়, প্রতি হলে প্রভোস্টদের নেতৃত্বে অভিযান চালানো হবে। প্রভোস্টরা শিক্ষার্থীদের অনুরোধ করবেন ও বুঝাবেন যাতে তারা আইন মেনে হল ত্যাগ করে।

এসআর

মন্তব্য করুন

খবরের বিষয়বস্তুর সঙ্গে মিল আছে এবং আপত্তিজনক নয়- এমন মন্তব্যই প্রদর্শিত হবে। মন্তব্যগুলো পাঠকের নিজস্ব মতামত, ভোরের কাগজ লাইভ এর দায়ভার নেবে না।

জনপ্রিয়