এই নাও বর্ণমালা

আগের সংবাদ

ভাস্কর্য

পরের সংবাদ

ফেসবুক আলজাজিরার তথ্যচিত্র সরাবে: আশাবাদ টেলিযোগাযোগ মন্ত্রীর

প্রকাশিত: ফেব্রুয়ারি ২০, ২০২১ , ৮:৫৯ অপরাহ্ণ আপডেট: ফেব্রুয়ারি ২০, ২০২১ , ৯:০০ অপরাহ্ণ

সেনাপ্রধানকে নিয়ে আল জাজিরায় প্রচারিত প্রতিবেদনটি ইউটিউব ও ফেসবুক কর্তৃফক্ষ শিগগিরই সরিয়ে নেবে বলে আশাবাদী ডাক ও টেলিযোগাযোগ মন্ত্রী মোস্তাফা জব্বার। শনিবার (২০ ফেব্রুয়ারি) ভোরের কাগজকে তিনি বলেন, এখনো কোনো সিদ্ধান্ত হয়নি ঠিকই, কিন্তু আমরা আশা করছি, এ দেশের আদালতের রায়কে সম্মান দেখিয়ে কন্টেন্টটি সরিয়ে নেবে তারা। ফেসবুকের রিভিউ কমিটি বিষয়টি বিবেচনা করছে বলে জানান তিনি।

এর আগে কোনো কোনো গণমাধ্যমে খবর বের হয় যে, ফেসবুক ওই প্রতিবেদনটি সরিয়ে নিতে রাজি হয়েছে। এ প্রসঙ্গে মন্ত্রী বলেন, উচ্চ আদালত বিষয়টি সরিয়ে নিতে টেলিযোগাযোগ নিয়ন্ত্রক সংস্থা বিটিআরসিকে নির্দেশ দিয়েছেন। কিন্তু আমরা তো চাইলেই ফেসবুক, ইউটিউব বা টুইটারের কন্টেন্ট সরাতে পারি না। তাই ওইসব কর্তৃপক্ষকে আমরা অনুরোধ জানিয়েছি। তারা সাধারণত এ ধরনের অনুরোধ বিবেচনায় নিয়ে থাকে। সব শেষ আমরা জানতে পেরেছি ফেসবুক কর্তৃপক্ষ বিষয়টি রিভিউ কমিটিতে তুলেছে। শিগরিই আমরা সিদ্ধান্ত পাব। আমরা প্রত্যাশা করছি, ওই তথ্যচিত্রটি তারা সরিয়ে নেবে।

আল-জাজিরায় সম্প্রচারিত ‘অল দা প্রাইম মিনিস্টারস মেন’ শিরোনামের তথ্যচিত্রটি ইন্টারনেট মাধ্যম থেকে সরাতে গত বুধবার বিটিআরসিকে নির্দেশ দেন উচ্চ আদালত। এরপর গণমাধ্যমে পাঠানো এক বার্তায় বিটিআরসি চেয়ারম্যান শ্যাম সুন্দর সিকদার বলেন, ‘যেহেতু বিজ্ঞ হাই কোর্ট উক্ত কনটেন্ট সরানোর বিষয়ে নির্দেশনা প্রদান করেছেন, এ প্রেক্ষিতে বিটিআরসি কনটেন্ট সরানোর বিষয়ে যথাযথ পদক্ষেপ গ্রহণ করবে।’ সংশ্লিষ্টরা জানান, প্রথমে নিয়ম অনুযায়ী ফেসবুক ও ইউটিউবকে ওই কনটেন্ট সরানোর জন্য ই-মেইলে অনুরোধ জানানো হয়েছে। বাংলাদেশে ফেসবুক কর্তৃপক্ষের দায়িত্বশীল ব্যক্তিকে বিটিআরসির পক্ষ থেকে ফোনও করা হয়েছে। টুইটারের সঙ্গেও যোগাযোগের চেষ্টা চলছে। তাদের ই-মেইলে অনুরোধ জানানো হয়েছে যেন কন্টেন্টটি সরিয়ে নেয়।

জানা গেছে, সাধারণত অভিযোগ পাওয়ার পর ওইসব কর্তৃপক্ষ এক থেকে তিন দিনের মধ্যে কনটেন্ট সরিয়ে থাকে। তবে অনেক সময় কন্টেন্ট সরানো হয় না। গত ১ ফেব্রুয়ারি রাতে ‘অল দা প্রাইম মিনিস্টারস মেন’ প্রতিবেদনটি প্রচার করে আল-জাজিরা। ৮ ফেব্রুয়ারি বাংলাদেশে আল-জাজিরার সম্প্রচার বন্ধে নির্দেশনা চেয়ে হাই কোর্টে রিট আবেদন করেন সুপ্রিম কোর্টের আইনজীবী এনামুল কবির ইমন। এর পরিপ্রেক্ষিতে গত বুধবার আদালতের নির্দেশনা আসে।

আরআর

মন্তব্য করুন

খবরের বিষয়বস্তুর সঙ্গে মিল আছে এবং আপত্তিজনক নয়- এমন মন্তব্যই প্রদর্শিত হবে। মন্তব্যগুলো পাঠকের নিজস্ব মতামত, ভোরের কাগজ লাইভ এর দায়ভার নেবে না।

জনপ্রিয়