সিলেটে ভাই-বোনসহ সৎ মাকে কুপিয়ে হত্যা, ঘাতক আটক

আগের সংবাদ

নিউজ ফ্ল্যাশ

পরের সংবাদ

যুক্তরাজ্য-কানাডায় এবার নিষিদ্ধ মিয়ানমার জেনারেলরা

প্রকাশিত: ফেব্রুয়ারি ১৯, ২০২১ , ১০:২৬ পূর্বাহ্ণ আপডেট: ফেব্রুয়ারি ১৯, ২০২১ , ১১:০৮ পূর্বাহ্ণ

মিয়ানমারে সেনা ক্যু ও জান্তা সরকার ইস্যুতে যুক্তরাষ্ট্রের পথে এগিয়েছে যুক্তরাজ্য ও কানাডা। এবার এই দেশ দুটিও মিয়ানমার সেনাবাহিনীর বেশ কজন জেনারেলের ওপর নিষেধাজ্ঞা দিয়েছে। গত ১ ফেব্রুয়ারি গণতান্ত্রিকভাবে নির্বাচিত অং সান সু চি সরকারকে উত্খাত করে ক্ষমতা দখল ও মানবাধিকার লঙ্ঘনের দায়ে যুক্তরাজ্য ও কানাডা ওই নিষেধাজ্ঞা দেয়। কানাডার নিষেধাজ্ঞার তালিকায় ৯ জন জেনারেলের নাম রয়েছে। অন্যদিকে ব্রিটেনের নিষেধাজ্ঞার তালিকায় জান্তা সরকারের প্রতিরক্ষামন্ত্রী জেনারেল মিয়া তুন ও, স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী লেফটেন্যান্ট জেনারেল সো তুত এবং উপস্বরাষ্ট্রমন্ত্রী লেফটেন্যান্ট জেনারেল থান লাইং রয়েছেন। বৃহস্পতিবার (১৮ ফেব্রুয়ারি) রাতে এ নিষেধাজ্ঞা আরোপ হয়। খবর: আলজাজিরা, ইউরোঅবজারভার ও গ্লোবাল নিউজ

এর আগে গত ১১ ফেব্রুয়ারি মিয়ানমারের সশস্ত্র বাহিনীর সর্বাধিনায়ক সিনিয়র জেনারেল অং মিন লাইংসহ বর্তমান ও সাবেক ১০ জেনারেলের ওপর নিষেধাজ্ঞা আরোপ করে যুক্তরাষ্ট্র। নিষিদ্ধ সেনা কর্মকর্তাদের সম্পদ বাজেয়াপ্ত করাসহ তাদের ওপর ভ্রমণ নিষেধাজ্ঞাও দেওয়া হয়েছে।

কানাডার পররাষ্ট্রমন্ত্রী মার্ক গারনিউ এক টুইট বার্তায় জানান, মিয়ানমারে সে ক্যুর প্রতিক্রিয়া হিসেবে যুক্তরাজ্যের সঙ্গে সমন্বয় করে সেনা কর্মকর্তাদের ওপর কানাডা নিষেধাজ্ঞা আরোপ করেছে। আমরা আন্তর্জাতিকমহলের সঙ্গে মিলে মিয়ানমারের জনগণের পাশে আছি। কানাডার পররাষ্ট্রমন্ত্রী তাঁর বিবৃতিতে মিয়ানমার সেনাবাহিনীর বিরুদ্ধে নির্বাচিত সরকারকে উত্খাত, দমন-পীড়ন, মত প্রকাশের স্বাধীনতা হরণ ও নির্বিচারে গ্রেপ্তারের অভিযোগ তুলেছেন।

এদিকে ব্রিটিশ পররাষ্ট্রমন্ত্রী ডমিনিক রাব এক বিবৃতিতে মিয়ানমারের সেনা জেনারেলদের ওপর নিষেধাজ্ঞা আরোপের কথা জানিয়েছেন। একই সঙ্গে তিনি আন্তর্জাতিক মহলকে সঙ্গে নিয়ে মানবাধিকার লঙ্ঘনকারী মিয়ানমার সেনাবাহিনীর জবাবদিহি নিশ্চিতের কথা বলেছেন। ব্রিটিশ পররাষ্ট্র দপ্তর জানায়, তারা মিয়ানমার সেনাবাহিনীর সঙ্গে আর সম্পর্ক রাখবে না। জান্তা সরকার যাতে যুক্তরাজ্য সরকারের অর্থ না পায়, তা নিশ্চিত করতেও ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

এদিকে ইউরোপের ২৭টি দেশের জোট ইউরোপীয় ইউনিয়নও (ইইউ) মিয়ানমারের জেনারেলদের বিরুদ্ধে নিষেধাজ্ঞা আরোপের প্রস্তুতি নিচ্ছে। এ বিষয়ে সিদ্ধান্ত নিতে ইইউ সদস্য দেশগুলোর পররাষ্ট্রমন্ত্রীরা আগামী সোমবার বৈঠকে বসতে যাচ্ছেন। নিষেধাজ্ঞার সিদ্ধান্ত গৃহীত হলে গত ১ ফেব্রুয়ারির ‘ক্যু’তে নেতৃত্ব দেওয়া মিয়ানমারের শীর্ষ জেনারেল ইইউ অঞ্চলে ঢুকতে পারবেন না। এ ছাড়া ইইউতে তাঁদের কোনো সম্পদ থাকলে তা বাজেয়াপ্ত হবে।

আরআর

মন্তব্য করুন

খবরের বিষয়বস্তুর সঙ্গে মিল আছে এবং আপত্তিজনক নয়- এমন মন্তব্যই প্রদর্শিত হবে। মন্তব্যগুলো পাঠকের নিজস্ব মতামত, ভোরের কাগজ লাইভ এর দায়ভার নেবে না।

জনপ্রিয়