অভিষেক অনুষ্ঠানে পৌঁছেছেন বাইডেন

আগের সংবাদ

প্রচারণার নামে শব্দদূষণ বন্ধ করুন!

পরের সংবাদ

ভাগ্যের পরিবর্তন চান তারা

প্রকাশিত: জানুয়ারি ২০, ২০২১ , ১০:০৫ অপরাহ্ণ আপডেট: জানুয়ারি ২০, ২০২১ , ১০:২৭ অপরাহ্ণ

দেশে মাঠে থেকে সরাসরি সেবা দিয়ে যাচ্ছেন কমিউনিটি ক্লিনিকের কর্মচারীরা। এতে কোনো সন্দেহ নেই। পরামর্শ থেকে সেবার জন্য তারা আজ জনগণের কাছে আস্থাভাজন হয়ে উঠেছে। অথচ এই কর্মীরা আজ ৯ বছর এক বেতনে চাকরি করে আসছেন। কোনো সুযোগ-সুবিধা পান না। প্রথমে রাজস্বের আশ্বাস দিয়ে তা বাস্তবায়ন করা হয়নি। ২০১৮ সালের ফেব্রুয়ারিতে ঢাকা জাতীয় প্রেস ক্লাবের সামনে দীর্ঘ এক মাস টানা অবস্থান কর্মসূচি চলাকালীন প্রধানমন্ত্রী জাতীয় সংসদে কমিউনিটি ক্লিনিক স্বাস্থ্য সহায়তা ট্রাস্ট গঠনের ঘোষণা দেন। একই বছর ৮ অক্টোবর জাতীয় সংসদে কমিউনিটি ক্লিনিক স্বাস্থ্য সহায়তা ট্রাস্ট আইন পাস হয় এবং গেজেট প্রকাশিত হয়। ওই আইনের ২৪ ধারায় কর্মীদের সরকারি চাকরির মতো সব সুযোগ-সুবিধা বিদ্যমান রাখার কথা বলা হয়েছে। সেই সঙ্গে আইন কার্যকর হওয়ার দিন থেকে কমিউনিটি ক্লিনিক প্রকল্পের সব কিছু কমিউনিটি ক্লিনিক স্বাস্থ্য সহায়তা ট্রাস্ট আইনে পরিচালিত হবে বলে বিধান রাখা হয়েছে। এরপর ঊর্ধ্বতনদের বারবার নির্দেশনার পরও কয়েক বছর অতিবাহিত হয়ে যাচ্ছে, তবুও আইনটি বাস্তবায়নে গড়িমসি করছেন কর্মকর্তারা।
কিন্তু আর কতকাল? সোনালি সূর্য কেউ দমিয়ে রাখতে পেরেছিল কোনো দিন? একদিন সেই সোনালি সকাল আসবে। সূর্যের আলো সব অস্থায়ী কালো মেঘ সরিয়ে ছড়িয়ে পড়বে সারাদেশে। হটে যাবে হঠকারী আর দুর্নীতিবাজরা। সিএইচসিপিদের জয়ের উল্লাসে মাতোয়ারা হবে সারা বিশ্ব। দেশের সবাই বুক ফুলিয়ে গর্ব করবে কমিউনিটি ক্লিনিক নিয়ে। হয়তো সেদিন বা সে সকাল আমি কিংবা আমার কিছু সহকর্মী দেখে যেতে পারবে না!
ইতোমধ্যে কমিউনিটি ক্লিনিকে দায়িত্ব পালনকালে বহু সিএইচসিপি অকাল মৃত্যুবরণ করেছেন। সেবা দিতে গিয়ে করোনায় আক্রান্ত হয়েও অনেক কর্মী মারা গেছেন। কিন্তু সরকার বা প্রকল্পের পক্ষ থেকে কর্মীর পরিবারকে কোনো আর্থিক সহায়তা প্রদান করা হয় না, শুধু একটি শোকবার্তা চিঠিতে সীমাবদ্ধ। এছাড়াও এসব কর্মী ন্যায্য পাওনা থেকে বঞ্চিত থাকেন সবসময়। নানা অজুহাতে তাদের সঠিক পাওনা বুঝিয়ে দিতে গড়িমসি করা হয়। ছুটি ভোগ করা তাদের কাছে অনেকটা ‘সোনার হরিণের’ মতো! প্রধানমন্ত্রীর অগ্রাধিকার দেয়া এই প্রকল্পের কর্মীদের বঞ্চিত করে কার লাভ হচ্ছে কিংবা দেশের কী লাভ হচ্ছে এখন সেই প্রশ্ন অনেকের মনে। নতুন বছরের শুরুতেই কমিউনিটি ক্লিনিকের কর্মচারীরা ভাগ্যের পরিবর্তন দেখতে চায়!

ফেনী, ছাগলনাইয়া।
[email protected]

এসএইচ

মন্তব্য করুন

খবরের বিষয়বস্তুর সঙ্গে মিল আছে এবং আপত্তিজনক নয়- এমন মন্তব্যই প্রদর্শিত হবে। মন্তব্যগুলো পাঠকের নিজস্ব মতামত, ভোরের কাগজ লাইভ এর দায়ভার নেবে না।

জনপ্রিয়