রোহিঙ্গাদের ফেরাতে ত্রিপক্ষীয় বৈঠক ১৯ জানুয়ারি

আগের সংবাদ

মিথিলার নতুন ছবি ভাইরাল

পরের সংবাদ

মেঘনায় নৌ-পথে চাঁদাবাজি বন্ধে পুলিশের অভিযান

প্রকাশিত: জানুয়ারি ১৩, ২০২১ , ৯:২৭ অপরাহ্ণ আপডেট: জানুয়ারি ১৩, ২০২১ , ৯:২৭ অপরাহ্ণ

কুমিল্লার মেঘনা, হোমনা ও তিতাস উপজেলার নৌ পথে চাঁদাবাজি বন্ধে দিনভর অভিযান চালিয়েছ পুলিশ। সহকারী পুলিশ সুপার (হোমনা সার্কেল) মো. ফজলুল করিম এর নেতৃত্বে বুধবার (১৩ জানুয়ারি) সকাল থেকে সন্ধ্যা পর্যন্ত এ অভিযান চালান।

জানা যায়, কুমিল্লার উত্তরাঞ্চলীয় নদীবেষ্টিত উপজেলা তিতাস (আংশিক) হোমনা ও মেঘনা। তিনটি উপজেলার নদীপথে প্রতিদিন জাহাজ, বালুবাহী বল্কহেড, ট্রলারসহ বিভিন্ন পণ্যবাহী নৌযান চলাচল করে।

একটা মহল প্রশাসনের চোখ ফাঁকি দিয়ে নৌ-পথে এসব জলযান থেকে চাঁদা উত্তোলন করে আসছিল। গত বছরের ৫ অক্টোবর তিতাসের কাঠালিয়া নদীতে সিলেট থেকে ছেড়ে আসা সিলেকশন বালু বোঝাই বালগেট মোহন-৬ পরিবহন চাদা না দেয়ায় হামলা ও লুটপাটের ঘটনা ঘটে। ওই সময় মেঘনা উপজেলার জহিরুল ইসলাম দিপু, তমিজ উদ্দিনসহ নয় জনের নামে তিতাস থানায় মামলা হয়।

সম্প্রতি কুমিল্লায় যোগদান করা নবনিযুক্ত পুলিশ সুপার মো. ফারুক আহমেদ পিপিএম (বার) জেলা আইন শৃঙ্খলা সভায় নৌ-পথসহ কুমিল্লাকে চাঁদাবাজ, সন্ত্রাস ও মাদকমুক্ত করার ঘোষণা দিয়েছেন।

তিনি প্রকাশ্যে এসব সন্ত্রাস চাঁদাবাজ, মাদকসহ সব অপরাধীদের বিরুদ্ধে কঠিন হুশিয়ারির উচ্চারণ করেন। এরই পরিপ্রেক্ষিতে নৌ-পথের চাঁদাবাজি বন্ধে এই যৌথ অভিযান পরিচালনা করেন সিনিয়র পুলিশ সুপার (এএসপি সার্কেল হোমনা) মো. ফজলুল করিম এর নেতৃত্বে হোমনা ও মেঘনা থানার পুলিশ। ৪টি ট্রলার নিয়ে অভিযান শুরু হয় হোমনার উত্তরে তিতাস নদী থেকে পরে কাঠালিয়া নদীসহ শাখা নদীগুলোতে দিনভর অভিযান চালানো হয়।

অভিযান পরিচালনার সময় মাইকে চাঁদাবাজ, সন্ত্রাস, ডাকাত, মাদক ব্যবসায়ীদের কঠিন হুশিয়ারি দিয়ে বলা হয় পুলিশ সুপার মহোদয়ের ঘোষণা নদীপথে পণ্যবাহী নৌযান চলাচলে কোন ধরনের চাঁদাবাজি, সন্ত্রাসী কার্যক্রম চলবে না। এ সময় নৌপথে চলাচলরত নৌযানে হোমনা মেঘনা সার্কেল, হোমনা থানা অফিসার ইনচার্জ ও মেঘনা থানা অফিসার ইনচার্জের মুঠোফোন নাম্বার দেয়া হয়।

দিনভর এই নৌপথে এই অভিযানে মেঘনা উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান সাইফুল্লাহ মিয়া রতন শিকদার, জেলা পরিষদ সদস্য নাসির উদ্দিন শিশির, মেঘনা থানা ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মো. আব্দুল মজিদ ও হোমনা থানার পুলিশ পরিদর্শক (তদন্ত) আমিনুর রসুলসহ গণমাধ্যম কর্মীরা ছিলেন।

এসআর

মন্তব্য করুন

খবরের বিষয়বস্তুর সঙ্গে মিল আছে এবং আপত্তিজনক নয়- এমন মন্তব্যই প্রদর্শিত হবে। মন্তব্যগুলো পাঠকের নিজস্ব মতামত, ভোরের কাগজ লাইভ এর দায়ভার নেবে না।

জনপ্রিয়