দ্বিতীয়বার ইমপিচমেন্ট নিয়ে ইতিহাস গড়তে যাচ্ছেন ট্রাম্প!

আগের সংবাদ

প্রহার না করেই শিশুদের ইন্টারনেট থেকে ফিরিয়ে রাখতে যা করবেন

পরের সংবাদ

বড়পুকুরিয়ায় কেলেঙ্কারির ঘটনায় ২২ অভিযুক্ত কারাগারে

প্রকাশিত: জানুয়ারি ১৩, ২০২১ , ১০:৫১ অপরাহ্ণ আপডেট: জানুয়ারি ১৩, ২০২১ , ১০:৫১ অপরাহ্ণ

সারাদেশে আলোড়ন সৃষ্টিকারী পার্বতীপুরে বড়পুকুরিয়া খনি থেকে প্রায় ১ লাখ ৪৫ হাজার মেট্রিক টন কয়লা কেলেঙ্কারির ঘটনায় দায়ের করা মামলায় খনির সাবেক ছয় ব্যবস্থাপনা পরিচালকসহ ২২ জনকে কারাগারে পাঠানোর নির্দেশ দিয়েছেন আদালত। বুধবার (১৩ জানুয়ারি) দুপুরে মামলার চার্জ গঠনের দিন ওই কর্মকর্তারা আদালতে হাজির হলে দিনাজপুর স্পেশাল জজ আদালতের বিচারক মাহমুদুল করিম তাদের জামিন বাতিল করে কারাগারে পাঠানোর আদেশ দেন।

জানা গেছে, বড়পুকুরিয়া খনি থেকে প্রায় ২৩০ কোটি টাকা মুল্যের ১ লাখ ৪৪ হাজার ৬৪৪ মেট্রিক টন কয়লা ঘাটতি/চুরির অভিযোগে খনির ১৯ কর্মকর্তার নামে ২০১৮ সালের ২৪ জুলাই ব্যবস্থাপক (প্রশাসন) আনিসুর রহমান বাদী হয়ে পার্বতীপুর মডেল থানায় একটি মামলা দায়ের করেন।

মামলাটি দুদকের তফশীলভুক্ত হওয়ায় দুদক প্রধান কার্যালয়ের উপ-পরিচালক সামসুল আলমকে তদন্ত কর্মকর্তা নিযুক্ত করা হয়। শামসুল আলমের পক্ষে দিনাজপুর দুদকের উপ-পরিচালক আবু হেনা আশিকুর রহমান ২০১৯ সালের ২৪ জুলাই সাবেক সাত ব্যবস্থাপনা পরিচালকসহ (এমডি) ২৩ জনের বিরুদ্ধে মামলাটির চার্জশিট দিনাজপুর আদালতে দাখিল করা হয়। এদের মধ্যে খনির সাবেক ব্যবস্থাপনা পরিচালক মাহবুবুর রহমান মৃত্যুবরণ করেছেন।

চার্জশিটে বলা হয়, আসামিরা পরস্পর যোগসাজশে ২০০৬ সালের জানুয়ারি থেকে ২০১৮ সালের ১৯ জুলাই পর্যন্ত ১ লাখ ৪৩ হাজার ৭২৭.৯৯ টন কয়লা আত্মসাতে জড়িত। যার আনুমানিক বাজার মুল্য ২৪৩ কোটি ২৮ লাখ ৮২ হাজার টাকা। আসামিরা দুর্নীতি প্রতিরোধ আইনের ৫(২) ধারায় শাস্তিযোগ্য অপরাধ করেছেন। এজাহারভুক্তরা ছাড়াও চার্জশিটে ৯ জনকে যুক্ত করা হয় এবং ঘটনার সঙ্গে জড়িত না থাকায় ৫ জনকে আসামির তালিকা থেকে বাদ দেওয়ার কথা বলা হয়।

আসামিরা হলেন- সাবেক ব্যবস্থাপনা পরিচালক (এমডি) আবদুল আজিজ খান, প্রকৌশলী খুরশীদুল হাসান, প্রকৌশলী কামরুজ্জামান, আমিনুজ্জামান, প্রকৌশলী এসএম নুরুল আওরঙ্গজেব, প্রকৌশলী মো. হাবিব উদ্দিন আহমদ, সাবেক মহাব্যবস্থাপক (জিএম, প্রশাসন) শরিফুল আলম, কোম্পানী সচিব আবুল কাশেম প্রধানিয়া, আবু তাহের মো. নুরুজ্জামান চৌধুরী (জিএম-মাইন অপারেশন), খালেদুল ইসলাম উপ-মহাব্যবস্থাপক (স্টোর), মাসুদুর রহমান হাওলাদার ব্যবস্থাপক (জেনারেল সার্ভিসেস), অশোক কুমার হালদার ব্যবস্থাপক (প্রডাকশন ম্যানেজমেন্ট), আরিফুর রহমান ব্যবস্থাপক (মেইনটেনেন্স অ্যান্ড অপারেশন), সৈয়দ ইমাম হাসান ব্যবস্থাপক (নিরাপত্তা), খলিলুর রহমান উপ-ব্যবস্থাপক (কোল হ্যান্ডলিং অ্যান্ড ম্যানেজমেন্ট), মোর্শেদুজ্জামান উপ-ব্যবস্থাপক (মেইনটেনেন্স অ্যান্ড অপারেশন), হাবিবুর রহমান উপ-ব্যবস্থাপক (প্রডাকশন ম্যানেজমেন্ট), জাহিদুর রহমান উপ-ব্যবস্থাপক (মাইন ডেভেলপমেন্ট), সত্যেন্দ্রনাথ বর্মন সহকারী ব্যবস্থাপক (ভেনটিলেশন ম্যানেজমেন্ট) ও জোবায়ের আলী উপ-মহাব্যবস্থাপক (মাইন প্লানিং অ্যান্ড অপারেশন)।

দিনাজপুর আদালতের পুলিশ পরিদর্শক ইসরাইল হোসেন আসামিদেরও জেল হাজতে পাঠানোর বিষয়টি নিশ্চিত করে বলেন, বুধবার ছিল মামলার শুনানির দিন। তবে শুনানি অনুষ্ঠিত হয়নি।

এসআর

মন্তব্য করুন

খবরের বিষয়বস্তুর সঙ্গে মিল আছে এবং আপত্তিজনক নয়- এমন মন্তব্যই প্রদর্শিত হবে। মন্তব্যগুলো পাঠকের নিজস্ব মতামত, ভোরের কাগজ লাইভ এর দায়ভার নেবে না।

জনপ্রিয়