অছাত্র ও বিবাহিতদের দিয়ে চলছে চৌগাছা ছাত্রলীগ, কেন্দ্রে অভিযোগ

আগের সংবাদ

বাউফলে নার্সিং ইনিস্টিটিউটের ভিত্তি প্রস্তর স্থাপন

পরের সংবাদ

জাবির ছাত্র বলে গর্বিত মুশফিক

প্রকাশিত: জানুয়ারি ১২, ২০২১ , ৫:৩৩ অপরাহ্ণ আপডেট: জানুয়ারি ১২, ২০২১ , ৫:৩৩ অপরাহ্ণ

জাতীয় দলের তারকা ব্যাটসম্যান মুশফিকুর রহিম ইতিহাস বিভাগে পড়েছেন জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ে। মঙ্গলবার ১২ জানুয়ারি ছিল সেই শিক্ষাঙ্গনের ৫০তম প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী। নিজের প্রতিষ্ঠানের সুবর্ণজয়ন্তীতে এক ভিডিও বার্তায় বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রতি শুভেচ্ছা জানিয়েছেন উইকেটরক্ষক এ ব্যাটসম্যান। একই সঙ্গে তিনি বলেন, এ প্রতিষ্ঠানের শিক্ষার্থী হিসেবে আমি গর্বিত । এ প্রতিষ্ঠানটিই নাকি তাকে পরিপূর্ণ মানুষ হিসেবে গড়ে উঠতে সহায়তা করেছে।

সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুকে মুশফিকুর রহিম বলেন, ‘আসসালামু আলাইকুম। আশা করি আপনারা সবাই ভালো আছেন। জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ের পঞ্চাশ বছর পূর্তিতে আমি সম্মানিত সাবেক, বর্তমান সকল শিক্ষার্থী-শিক্ষকসহ বিশ^বিদ্যালয় পরিবারের সবাইকে শুভেচ্ছা জানাচ্ছি। একজন জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থী হিসেবে সবসময় আমি গর্ব অনুভব করি।’

ওই ভিডিও বার্তায় মুশফিক আরও বলেন, তাকে জীবনে পরিপূর্ণ একজন মানুষ হতে সহায়ক ভূমিকা পালন করেছে জাহাঙ্গীরনগর বিশ^বিদ্যালয়। তার ভাষ্য, ‘বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষা আমাকে একজন পরিপূর্ণ মানুষ হিসেবে গড়ে তুলতে সহায়ক ভূমিকা পালন করেছে। বিশেষ করে, আমি আমার প্রিয় ডিপার্টমেন্ট, ইতিহাস বিভাগের শিক্ষক-শিক্ষিকা, কর্মচারীসহ আমার ব্যাচের সকল বন্ধু-বান্ধবীদের নিকট চির কৃতজ্ঞ। আমি আশা করছি, আমাদের বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার মান ও গবেষণা কার্যক্রম উত্তরোত্তর বৃদ্ধি পাবে।’

তার ওই ভিডিও বার্তায় মুশফিকুর রহিম চলমান করোনা পরিস্থিতি নিয়েও বক্তব্য রেখেছেন। করোনার কারণে স্থবির হয়ে যাওয়া শিক্ষা প্রতিষ্ঠান নিয়ে তিনি বলেন, ‘বর্তমানে কোভিড-১৯ মোকাবিলা করে খুব শিগগিরই আমাদের প্রিয় ক্যাম্পাস শিক্ষার আলোয় আলোকিত হয়ে পুনরায় ফিরে আসবে, এই আশা ব্যক্ত করছি। পরিশেষে উক্ত আয়োজনে সংশ্লিষ্ট বিশ^বিদ্যালয় কর্তৃপক্ষ ও ছাত্র-শিক্ষক কেন্দ্রের সবাইকে আবারো ধন্যবাদ জানাচ্ছি। সবাই নিরাপদে থাকুন, সুস্থ থাকুন। আল্লাহ হাফেজ।’

উল্লেখ্য, ১৯৭০ সালের ২০ আগস্ট তৎকালীন সরকার এক অধ্যাদেশের মাধ্যমে ঢাকার পূর্বনাম অনুসারে রাজধানীর অদূরে সাভারে ‘জাহাঙ্গীরনগর মুসলিম বিশ^বিদ্যালয়’ নামের এ প্রতিষ্ঠানটি গড়ে উঠে। ১৯৭১ সালের ১২ জানুয়ারি তৎকালীন পূর্ব পাকিস্তানের গভর্নর ও বিশ^বিদ্যালয়ের আচার্য রিয়ার অ্যাডমিরাল এস এম আহসান আনুষ্ঠানিকভাবে বিশ্ববিদ্যালয়ের উদ্বোধন করেন। চারটি বিভাগে ২৩ জন শিক্ষক ও ১৫০ জন শিক্ষার্থী নিয়ে পথচলা শুরু হয় জাহাঙ্গীরনগর বিশ^বিদ্যালয়ের।

স্বাধীনতার পর ১৯৭৩ সালে বিশ্ববিদ্যালয় অধ্যাদেশ পাস হলে মুসলিম শব্দটি বাদ দিয়ে নাম পরিবর্তন করে রাখা হয় ‘জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়’। ২০০১ সাল থেকে ১২ জানুয়ারিকে ‘জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয় দিবস’ হিসেবে পালন করে আসছে কর্তৃপক্ষ। প্রতিবারের মতো এবারো নানা কর্মসূচি হাতে নিয়েছে বিশ^বিদ্যালয়। করোনা ভাইরাসের কারণে সব কিছু অনলাইনেই সীমাবদ্ধ থাকছে। তবে ৫০ তম প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী উপলক্ষে বর্ণিল সাজে সাজানো হয়েছে ক্যাম্পাস।

এসএইচ

মন্তব্য করুন

খবরের বিষয়বস্তুর সঙ্গে মিল আছে এবং আপত্তিজনক নয়- এমন মন্তব্যই প্রদর্শিত হবে। মন্তব্যগুলো পাঠকের নিজস্ব মতামত, ভোরের কাগজ লাইভ এর দায়ভার নেবে না।

জনপ্রিয়