রাণীনগরে বিধবাকে ধর্ষণ: গ্রাম্য শালিশে ধামাচাপার চেষ্টা

আগের সংবাদ

প্রথম আলোর যুগ্ম সম্পাদক মিজানুর রহমান খান আর নেই

পরের সংবাদ

ভারতের মান বাঁচালেন বিহারি-অশ্বিন

প্রকাশিত: জানুয়ারি ১১, ২০২১ , ৬:১৭ অপরাহ্ণ আপডেট: জানুয়ারি ১১, ২০২১ , ৬:১৭ অপরাহ্ণ

সমীকরণ ছিল স্বাগতিক অস্ট্রেলিয়ার পক্ষে। ম্যাচ জিততে ৯৮ ওভার থেকে নিতে হতো ৮ উইকেট। সোমবার দিনের দ্বিতীয় ওভারেই প্রথম উইকেট নিয়ে সম্ভাবনা আরো উজ্জ্বল করে তারা। কাজ কঠিন হয় ভারতের জন্য। ম্যাচ জিততে দিনের শুরুতে তাদের লক্ষ্য ছিল ৩০৯ রান। অথবা পরাজয় এড়াতে খেলতে হতো পুরো ৯৮ ওভার। যা সফলতার সঙ্গেই করে দেখিয়েছে ভারত। অশ্বিন-বিহারির জমাট জুটিতে সিডনি টেস্টে ড্র করেছে ভারত। চোট নিয়ে চোয়ালবদ্ধ লড়াই চালিয়ে গেছেন দুজন। পঞ্চম দিনের পুরো ৯০ ওভার খেলাই যে কোনো ব্যাটিং দলের জন্য দুঃসাধ্য কাজ। এর সঙ্গে আবার আগের দিনের শেষ সেশন যোগ করলে চ্যালেঞ্জটা হয়ে যায় পাহাড়সম।

বোর্ডার-গাভাস্কার ট্রফির সিডনি টেস্টে ভারতীয় ক্রিকেট দলের সামনে এমনই চ্যালেঞ্জ ছুড়ে দিয়েছিল অজিরা। যেখানে চতুর্থ দিনের শেষ বিকালে আবার ২টি উইকেটও তুলে নিয়েছিল স্বাগতিকরা। ফলে শেষদিন ম্যাচ বাঁচাতে ভারতকে খেলতে হতো ৯৮টি ওভার, হাতে ছিল ৮টি উইকেট। রীতিমতো রেকর্ড গড়েই এ চ্যালেঞ্জে জিতেছে ভারত। ম্যাচের চতুর্থ ও নিজেদের দ্বিতীয় ইনিংসে তারা সবমিলিয়ে ব্যাটিং করেছে ১৩১ ওভার, উইকেট হারিয়েছে মাত্র ৫টি। দিনের ১ ওভার বাকি থাকতে ভারতের সংগ্রহ যখন ৫ উইকেটে ৩৩৪ রান, তখন ড্র মেনে নেন অস্ট্রেলিয়ার অধিনায়ক টিম পেইন। অস্ট্রেলিয়ার মাটিতে টেস্ট ড্র করার পথে ম্যাচের চতুর্থ ইনিংসে এটি দ্বিতীয় সর্বোচ্চ সংগ্রহ। ১৯৯১ সালে এডিলেডে ম্যাচের শেষ ইনিংসে ৩৩৫ রান নিয়ে ড্র করেছিল ইংল্যান্ড। এছাড়া ওভারের হিসাবে ভারতের ম্যাচ বাঁচানোর তালিকায় এটি চলে এসেছে চতুর্থ স্থানে।

১৯৭৯-৮০ মৌসুমে পাকিস্তানের বিপক্ষে দিল্লি টেস্টে ১৩১ ওভার ব্যাট করে ম্যাচ ড্র করেছিল তারা। চতুর্থ ইনিংসে সর্বোচ্চ ১৫০.৫ ওভার ব্যাটিং করে ম্যাচ ড্র করার রেকর্ড রয়েছে ভারতের। যা তারা করেছিল ইংল্যান্ডের বিপক্ষে, ১৯৭৯ সালের ওভাল টেস্টে। টেস্ট ক্রিকেটে গতকাল অস্ট্রেলিয়ান অধিনায়ক টিম পেইনের এমনই এক দিন কাটল। কিপি-গ্লাভস হাতে সিডনি টেস্টে আজ পঞ্চম ও শেষ দিনটা মোটেও ভালো কাটেনি পেইনের। ৯৭ রান করে ভারতকে লড়াইয়ে টিকিয়ে রাখা ঋষভ পন্তের দুটো ক্যাচ ছেড়েছেন। জয় ছিনিয়ে নিতে প্রতিপক্ষকে ‘স্লেজিং’ করেছেন ইচ্ছেমতো। তাতে নিজেদের অধিনায়কের ওপর খেপেছেন অস্ট্রেলীয়রা, মুখ বন্ধ ছিল না ভারতীয় সমর্থকদেরও। ঋষভ পন্তের দুটো ক্যাচ ছাড়াও হনুমা বিহারির একটি ক্যাচ ছেড়েছেন পেইন। এ নিয়ে সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে রসিকতা এখনো চলছে।

ভারতের এমন দৃঢ়তাপূর্ণ ব্যাটিংয়ে ম্যাচ ড্র করে ফেলাটা ঠিক হজম করতে পারছেন না অজি অধিনায়ক পেইন। ম্যাচ শেষে তিনি বলেন, ‘ম্যাচ জেতার মতো যথেষ্ট সুযোগ আমরা তৈরি করেছিলাম। এটা হজম করার মতো নয়। আমাদের বোলাররা দারুণ ছিল। নাথান লিয়ন দুর্দান্ত বোলিং করেছে।’ অস্ট্রেলিয়ার বোলাররা সত্যিই অনেক সুযোগ তৈরি করেছে। কিন্তু একের পর এক সেগুলো হাত থেকে ফেলে দিয়েছেন উইকেটরক্ষক পেইন। তিনি দুইবার জীবন দান করেছেন ঋষভ পন্তকে। যিনি খেলেছেন ৯৭ রানের ইনিংস। এছাড়া দিনের একদম শেষভাগে গিয়ে ছেড়েছেন হনুমা বিহারির ক্যাচ। যিনি ১৬১ বল খেলে নিশ্চিত করেছেন ড্র।

ক্যাচ ছাড়ার কথাও এসেছে ম্যাচ পরবর্তী পুরস্কার বিতরণীতে। অজি অধিনায়ক বলেন, ‘সুযোগ এসেছিল আমাদের হাতে। কিন্তু আমরা বিশেষ করে আমি ক্যাচগুলো হাতে রাখতে পারিনি। ব্রিসবেন টেস্টের অপেক্ষায় আছি। চার ম্যাচ টেস্ট সিরিজে ১-১ এ সমতায় আছে দুদল।

এসএইচ

মন্তব্য করুন

খবরের বিষয়বস্তুর সঙ্গে মিল আছে এবং আপত্তিজনক নয়- এমন মন্তব্যই প্রদর্শিত হবে। মন্তব্যগুলো পাঠকের নিজস্ব মতামত, ভোরের কাগজ লাইভ এর দায়ভার নেবে না।

জনপ্রিয়