ফ্যাশন ম্যাগাজিনের কভারে নজর কাড়ল অনুষ্কা

আগের সংবাদ

গুরুদাসপুরে চুরি যাওয়া শিশু তাইবা উদ্ধার

পরের সংবাদ

কাপ্তান বাজারে মরা মুরগির ভাগাড়

প্রকাশিত: ডিসেম্বর ৩১, ২০২০ , ১২:৪৮ অপরাহ্ণ আপডেট: ডিসেম্বর ৩১, ২০২০ , ১২:৪৮ অপরাহ্ণ

রাজধানীর গুলিস্তানের ব্রিজ থেকে শুরু করে কাপ্তান বাজার মোড় পর্যন্ত সকালে গেলে চোখে পড়ে বাইরে থেকে আসা নানা ফার্মের ব্রয়লার, দেশি, সোনালী ও পাকিস্তানি কক মুরগির গাড়ি। এখান থেকে পাইকারি দামে কাপ্তান বাজারসহ পুরান ঢাকার বিভিন্ন খুচরা বাজারগুলোর জন্য কেনা হয় মুরগি। কিন্তু এসব মুরগির বিষ্ঠা ও পরিবহনের সময় মরা মুরগি পড়ে থাকতে দেখা যায় যেখানে সেখানে। পরে সেই মরা মুরগিগুলো ফেলা হয় কাপ্তান বাজার মোড়ে (মাওয়াগামী বাসস্টান্ডের পাশে)।

সকালে এসব এলাকায় সরেজমিনে গিয়ে দেখা যায়, গুলিস্তান ব্রিজের পাশসহ কাপ্তান বাজারে মুরগির গাড়ি দাঁড়ানো স্থানে যেখানে যেখানে পড়ে আছে বিষ্ঠা। সাথে মরা মুরগি। কেউ কেউ এগুলো স্তুপ করে রাখছে কাপ্তান বাজার মোড়ে। সেখানে প্রায় অর্ধশতাধিক মরা মুরগি পড়ে থাকতে দেখা যায়। এর মধ্যে বেশির ভাগই ফার্মের ব্রয়লার। সেগুলো অসংখ্য কাক ঠুকরে ঠুকরে খাচ্ছে। সাথে কয়েকটি কুকুর যোগ দিয়েছে খাবার খাওয়ার জন্য টানা হেঁচড়ায়। এতে দুর্গন্ধ ছড়িয়ে পড়ছে চারিদিকে। এসব এলাকার পথচারীদের অনেককে যাতায়াতের সময় মুখে হাত, অনেককে মাস্কের উপর হাত দিয়ে মুখ চেপে চলতে দেখা যায়।

দুর্গন্ধের বিষয়ে জয়নাল আবেদিন নামে এক পথচারী বলেন, আমাকে প্রায় প্রতিদিন এ রাস্তা দিয়ে কর্মস্থলে যেতে হয়। কিন্তু কাপ্তান বাজার মোড় পার হওয়ার সময় দুর্গন্ধে টেকা দায় হয়ে যায়। ব্যবসায়ীদের অসাবধানতায় ভোগান্তিতে পড়তে হয় আমাদের মতো পথচারীদের যোগ করেন তিনি।

ওইজায়গায় ফুটপাতে নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক একজন অস্থায়ী ফলের দোকানী বলেন, মরা মুরগি ও বিষ্ঠার দুর্গন্ধে ক্রেতারা ফল কিনতে চায় না। সকালে এখানকার অবস্থা খুবই খারাপ থাকে বলে এসময় জানান তিনি।

দোকানের সামনে পড়ে থাকা কয়েকটি মরা মুরগি হাতে করে ময়লার ভাগাড়ে ফেলার সময় একজনের কাছে যত্রতত্র ময়লা ফেলে রাখার কথা জানতে চাইলে তিনি বলেন, এখানে সাধারণত সবাই ময়লা রাখেন। পরে সিটি কর্পোরেশনের লোকজন এখান থেকে ময়লা নিয়ে যায়। মরা এসব মুরগি ও বিষ্ঠা রাখার জন্য কোন নির্দিষ্ট জায়গা আছে কিনা প্রশ্নে তিনি কোন মন্তব্য করতে রাজি হননি। তবে তিনি বলেন, একজন দুইজনকে বলে লাভ নেই। এখানে যত ব্যবসায়ী আছে সবার জন্য সরকারি নির্দেশ হলে এ এলাকার দুরাবস্থা দূর হবে।

উলেখ্য, সাম্প্রতিক সময়ে ঢাকা দক্ষিণ সিটি কর্পোরেশন থেকে গুলিস্তানের অবৈধ স্থাপনা উচ্ছেদে এ এলাকার চেহারা পাল্টে যেতে দেখা গেছে। এতোদিন ধরে গুলিস্তানের সাথে কাপ্তান বাজারে এমন ময়লার অব্যস্থাপনায় সৃষ্ট জন দূর্ভোগান্তি লাঘবের আশা ব্যক্ত করেন এসব এলাকার কর্মজীবী মানুষজন।

এমআই

মন্তব্য করুন

খবরের বিষয়বস্তুর সঙ্গে মিল আছে এবং আপত্তিজনক নয়- এমন মন্তব্যই প্রদর্শিত হবে। মন্তব্যগুলো পাঠকের নিজস্ব মতামত, ভোরের কাগজ লাইভ এর দায়ভার নেবে না।

জনপ্রিয়