চট্টগ্রাম সিটি নির্বাচন ২৭ জানুয়ারি

আগের সংবাদ

ক্ষমা চাইতে পাকিস্তান দূতাবাস ঘেরাও, ইমরান খানকে স্মারকলিপি

পরের সংবাদ

মান্দায় ফসলি জমিতে পুকুর খননের হিড়িক

প্রকাশিত: ডিসেম্বর ১৪, ২০২০ , ৫:১১ অপরাহ্ণ আপডেট: ডিসেম্বর ১৪, ২০২০ , ৫:১১ অপরাহ্ণ

নওগাঁর মান্দায় ফসলি জমির শ্রেণি পরিবর্তন করে পুকুর খননের হিড়িক শুরু হয়েছে। পুকুর খনন করার পর তোলা মাটি বিক্রি করা হচ্ছে উপজেলার বিভিন্ন ইটভাটায়। ভূমি আইন উপেক্ষা করে অবাধে পুকুর খনন করায় দিনদিন কমে যাচ্ছে ফসলি জমির পরিমাণ। অন্যদিকে ইটভাটার চাহিদা মেটাতে দেদারচ্ছে বিক্রি হচ্ছে ফসলি জমির টপসয়েল। মাটিবহনকারী ট্রাক্টরের অবাধ চলাচলে নষ্ট হচ্ছে প্রামীণ কাঁচা-পাকা রাস্তা।

জানা গেছে, উপজেলার প্রসাদপুর ইউনিয়নের গোবিন্দপুর, খুদিয়াডাঙ্গার খুলুর বিল, তেঁতুলিয়া ইউনিয়নের সিংগা (টিটিহারী), গনেশপুর ইউনিয়নের ভেবড়া, ভালাইন ইউনিয়নের বনতসর, ভারশোঁ ইউনিয়নের ঠাকুরমান্দাসহ বিভিন্ন এলাকায় পুকুর খননের হিড়িক পড়ে গেছে। এছাড়া বিভিন্ন এলাকার ফসলি জমির মাটিও কেটে বিক্রি করা হচ্ছে ইটভাটায়। অন্যদিকে ফকিন্নি নদীর মোহনা সংলগ্ন এলাকায় সরকারি সম্পত্তির মাটি কেটেও বিক্রি করেছেন এলাকার কতিপয় অসাধু ব্যক্তি।

উপজেলা কৃষি অফিস সুত্রে জানা গেছে, মান্দা উপজেলায় কৃষি জমির পরিমাণ ২৭ হাজার ৮৫১ হেক্টর। এর মধ্যে তিন ফসলি জমি ১৭ হাজার ২১৮ হেক্টর, দুই ফসলি ৮ হাজার ১৮৫ হেক্টর ও এক ফসলি জমির পরিমাণ ২ হাজার ৩১১ হেক্টর। স্থানীয়রা জানান, উপজেলার বিভিন্ন এলাকায় ভূমি আইন উপেক্ষা করে ফসলি জমিতে পুকুর খনন করা হচ্ছে। অনেকে আবার বাগানের জমির মাটি কেটে সেখানে পুকুর খনন করছেন। এছাড়া আইনের তোয়াক্কা না করেই নদী সংলগ্ন বাঁধের মাটিও কেটে নিচ্ছেন কিছু অসাধু ব্যক্তি। ভূমি অফিসের কিছু কর্মকর্তার সঙ্গে যোগসাজস করে মাটি ব্যবসায়িরা সপ্তাহের বৃহস্পতিবার থেকে শনিবার পর্যন্ত নির্বিগ্নে খনন কাজ চালিয়ে যাচ্ছেন বলেও স্থানীয়দের অভিযোগ।

নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক একাধিক ব্যক্তি জানান, কোনো কোনো এলাকায় এস্কেভেটর (ভেকুমেশিন) আবার কোনো এলাকায় শ্রমিক লাগিয়ে মাটি কেটে ট্রাক্টরের সাহায্যে নিয়ে যাওয়া হচ্ছে। এসব মাটি খননে কোন অনুমোদন নেয়া হয়নি। জমির মালিককে অর্থের লোভ দেখিয়ে কেটে নিয়ে যাওয়া হচ্ছে টপসয়েল। দিনের বেলায় বন্ধ থাকলেও রাতের বেলায় চুটিয়ে চলছে খনন কাজ। এতে করে দিনদিন কমছে ফসলি জমির পরিমাণ। এভাবে চলতে থাকলে আগামিতে শস্যভান্ডারের উপাধি হারাবে এ উপজেলা।

কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তর নওগাঁর অতিরিক্ত উপপরিচালক গোলাম ফারুক হোসেন জানান, শিল্প কলকারখানা, শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান, রাস্তাঘাটসহ বিভিন্ন কারণে দেশে প্রতিবছর এমনিতেই ১% হারে ফসলি জমি কমে যাচ্ছে। এছাড়া ফসলি জমির উপরিভাগের ৬ ইঞ্চি পরিমাণ মাটিতে জৈব পদার্থ থাকায় একে টপসয়েল বলা হয়ে থাকে। জমির এই অংশ কোনোভাবেই কেটে নেওয়া উচিত নয়।

তিনি আরও বলেন, কৃষি জমির টপসয়েল কেটে নেওয়া হলে ওই জমিতে আর কাঙ্খিত ফসল উৎপাদন হবে না। এতে ফসল উৎপাদনের পরিমাণ কমে যাবে।যারা কৃষি জমি কেটে নিচ্ছেন তাদের বিরুদ্ধে আইনগত ব্যবস্থা নেয়া হবে বলে জানান তিনি। উপজেলা সহকারি কমিশনার (ভূমি) ইমরানুল হক বলেন, ইতোমধ্যে কিছু ব্যবস্থা নেয়া হয়েছে। অবিলম্বে অবৈধ মাটি খননকারীদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেয়া হবে।

এসএইচ

মন্তব্য করুন

খবরের বিষয়বস্তুর সঙ্গে মিল আছে এবং আপত্তিজনক নয়- এমন মন্তব্যই প্রদর্শিত হবে। মন্তব্যগুলো পাঠকের নিজস্ব মতামত, ভোরের কাগজ লাইভ এর দায়ভার নেবে না।

জনপ্রিয়