নোয়াখালীতে সড়ক দুর্ঘটনায় সাবেক ব্যাংক কর্মকর্তার মৃত্যু

আগের সংবাদ

নাগরপুরে ঝর্ণা বৈদ্যের পরিবারের পাশে এমপি টিটু

পরের সংবাদ

ঢাকায় তরী ডুবল চট্টগ্রামের

প্রকাশিত: ডিসেম্বর ৬, ২০২০ , ৬:১৩ অপরাহ্ণ আপডেট: ডিসেম্বর ৬, ২০২০ , ৬:১৩ অপরাহ্ণ

বঙ্গবন্ধু টি-টোয়েন্টি কাপে এক প্রকার উড়ছিল গাজী গ্রুপ চট্টগ্রাম। শুরুর চার ম্যাচের চারটিতেই জিতেছিল মোহাম্মদ মিঠুনের দল। রবিবার সেই চট্টগ্রামের তরী ডুবল ঢাকায়। শুরুর তিন ম্যাচে হারা বেক্সিমকো ঢাকা মুশফিকুর রহিমের ব্যাটে জিতেছে ৭ রানে। ১৪৬ রানের দেয়া টার্গেটে খেলতে নেমে নির্ধারিত ওভার শেষে সবকটি উইকেট হারিয়ে লিটন দাসরা করতে পেরেছেন মাত্র ১৩৯ রান। ম্যাচসেরা হন ঢাকার অধিনায়ক মুশফিকুর রহিম।

টস হেরে ব্যাট করতে নেমে মুশফিকুর রহিমের ব্যাটে লড়াকু পুঁজি পায় বেক্সিমকো ঢাকা। নাঈম শেখ, সাব্বির রহমান ও তানজিদ হাসানদের ব্যর্থতার পর ৭৩ রানের ইনিংস আসে দরপতির ব্যাট থেকে। যেখানে ৫০ বলে ৭ চার ও ৩ ছয়ের মার ছিল তার ইনিংসে। আগের ম্যাচে ঢাকার হয়ে ৬৭ রান করা ইয়াসির আলি করেন দলের দ্বিতীয় সর্বোচ্চ রান। ৩৮ বলে ৩৪ রান করেন তিনি। আকবল আলি করেন ১০ রান। নাঈম শেক ১৩ ও সাব্বির রহমান করেছেন ৭ রান। চট্টগ্রামের হয়ে একটি করে উইকেট পান মোস্তাফিজুর রহমান, শরিফুল ইসলাম, নাহিদুল ইসলাম ও রাকিবুল হাসান।

জবাবে সৌম্য সরকার-লিটন দাসের জুটি ভাঙে মাত্র ১ রানে। এ সময় সৌম্যকে আইবিডব্লিউর ফাঁদে ফেলেন রুবেল হোসেন। সৌম্য ফিরে গেলেও ক্রিজে টিকে ছিলেন টুর্নামেন্টে ব্যাট হাতে ঝলক দেখাতে থাকা লিটন দাস। মাহমুদুল হাসান জয়কে নিয়ে ৪৭ রানের জুটি গড়েন তিনি। মাহমুদুল হাসান জয় ফিরেন ২৬ রানের ইনিংস খেলে। দলীয় ৯৬ রানের মাথায় আউট কয়েকবার প্রাণ ফিরে পাওয়া হন লিটন দাস। ৪০ বলে হাফসেঞ্চুরি থেকে ৩ রান দূরে থাকতে প্যাভিলিয়নে ফেরেন তিনি। এরপর মোহাম্ম মিঠুন ২১, মোসাদ্দেক হোসেন সৈকত ১৩ ও শামসুর রহমান ১০ রান করেন। শেষ দিকে নাহিদুলের ৯ ও মোস্তাফিজুর রহমানের ৭ রানে জয়ের বন্দরে নোঙর করা হয়নি উড়ন্ত চট্টগ্রামের।

মন্তব্য করুন

খবরের বিষয়বস্তুর সঙ্গে মিল আছে এবং আপত্তিজনক নয়- এমন মন্তব্যই প্রদর্শিত হবে। মন্তব্যগুলো পাঠকের নিজস্ব মতামত, ভোরের কাগজ লাইভ এর দায়ভার নেবে না।

জনপ্রিয়