‘বীরশ্রেষ্ঠ’র অপেক্ষায় অর্ধশতক

আগের সংবাদ

সাজেকের ‘প্রিয়া’ পড়তে চায় অস্ট্রেলিয়ায়

পরের সংবাদ

১০ জেলায় এন্টিজেন পরীক্ষা কাল থেকেই

প্রকাশিত: ডিসেম্বর ৪, ২০২০ , ১:০৪ অপরাহ্ণ আপডেট: ডিসেম্বর ৪, ২০২০ , ১:১৩ অপরাহ্ণ

ধাপে ধাপে শুরু হবে সারাদেশে

করোনা শনাক্তে বহুল প্রতীক্ষিত এন্টিজেন পরীক্ষা (র‌্যাপিড টেস্ট) শুরু হচ্ছে আগামীকাল শনিবার। তবে এখনই পুরো দেশে নয়, সরকার নির্ধারিত ১০ জেলায় এই পরীক্ষা শুরু হচ্ছে। জেলাগুলো হলো- মুন্সীগঞ্জ, ব্রাহ্মণবাড়িয়া, সিলেট, পঞ্চগড়, গাইবান্ধা, জয়পুরহাট, মেহেরপুর, যশোর, পটুয়াখালী ও মাদারীপুর। প্রতি জেলা থেকে একজন চিকিৎসক, একজন টেকনোলজিস্ট এবং একজন পরিসংখ্যানবিদকে এ পরীক্ষার জন্য প্রশিক্ষণ দেয়া হয়েছে। এই ১০ জেলার অভিজ্ঞতা নিয়ে পরবর্তীতে আরো ১০টি জেলায় পরীক্ষা চালু করা হবে। এভাবে ধাপে ধাপে সারাদেশে এন্টিজেন পরীক্ষা শুরু করা হবে।

স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের অতিরিক্ত মহাপরিচালক (গবেষণা ও উন্নয়ন) ও এন্টিজেন পরীক্ষা বিষয়ক কমিটির সভাপতি অধ্যাপক ডা. মীরজাদী সেব্রিনা ফ্লোরা জানান, ১০ জেলায় পরীক্ষা সংক্রান্ত নির্দেশনা চলে গেছে। এর আগে স্বাস্থ্য অধিদপ্তরে ওই ১০ জেলার সংশ্লিষ্ট প্রতিনিধিদের প্রশিক্ষণ দেয়া হয়েছে। প্রশিক্ষণ শেষে তারা এন্টিজেন কিট নিয়ে নিজ নিজ জেলায় চলে গেছেন।

প্রসঙ্গত, শরীরে করোনা ভাইরাসের উপস্থিতি শনাক্তের দ্রুততম পরীক্ষা হচ্ছে এন্টিজেন পরীক্ষা। সরকারের পক্ষ থেকে বারবারই বলা হচ্ছিল, খুব দ্রুতই এন্টিজেন পরীক্ষা শুরু হবে। গত ১৭ সেপ্টেম্বর কোভিড-১৯ বিষয়ক জাতীয় পরামর্শক কমিটির সভায় আরটিপিসিআর পরীক্ষার পাশাপাশি এন্টিজেন ও এন্টিবডি টেস্ট কার্যক্রম চালুর পরামর্শ দেয়া হয়। এর আগে গত ৫ জুলাই স্বাস্থ্য অধিদপ্তর এন্টিবডি ও এন্টিজেন সম্পর্কিত নীতিমালার খসড়া তৈরি করে মন্ত্রণালয়ে পাঠায়। ২৪ জুলাই এন্টিজেন টেস্টকে অনুমোদন দেয়ার সিদ্ধান্ত নেয় সরকার।

এর আগে ২৫ নভেম্বর এক অনুষ্ঠানে অধ্যাপক ডা. মীরজাদী সেব্রিনা ফ্লোরা জানিয়েছিলেন, সব ধরনের প্রস্তুতি শেষে ডিসেম্বর মাসে দেশের ১০টি এলাকায় এন্টিজেন পরীক্ষা চালু হবে। তবে ওই সময় পরীক্ষা শুরুর তারিখ ও এলাকার কথা জানাননি তিনি। তবে যেসব এলাকায় কোভিড-১৯ নমুনা পরীক্ষার জন্য আরটিপিসিআর মেশিন নেই কিন্তু করোনার সংক্রমণ বেশি সেই ১০টি এলাকায় এন্টিজেন পরীক্ষা শুরুর জন্য নির্ধারণ করা হবে বলে জানিয়েছিলেন তিনি।

দেরিতে পরীক্ষা শুরুর কারণ প্রসঙ্গে অধ্যাপক ডা. মীরজাদী সেব্রিনা ফ্লোরা বলেন, এন্টিজেন পরীক্ষা নিয়ে আমাদের পরামর্শ দেয়া হয়। কিন্তু কোন কিটটি ভালো এবং কোনটি ব্যবহার করলে সঠিক ফলাফল পাওয়া যাবে তা নিশ্চিত না হওয়া পর্যন্ত কাজ শুরু করা সম্ভব ছিল না। বিভিন্ন এন্টিজেন কিট নিয়ে পরীক্ষা করা হয়। তবে বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা এন্টিজেন কিট সম্পর্কে যে প্রস্তাবনা করেছে সেখানে তালিকাভুক্ত দুটি কিটের কথা বলা হয়। আমরা সেই দুটি কিটের কার্যকারিতা যাচাই করেছি। আর কিট আনার ক্ষেত্রেও বিভিন্ন প্রক্রিয়া সম্পন্ন করতে হয়েছে।

পাঁচ থেকে সাতদিন ধরে যাদের মধ্যে করোনা ভাইরাসের উপসর্গ যেমন- জ্ব, কাশি, শ্বাসকষ্ট, দুর্বলতা, স্বাদ ও গন্ধ না পাওয়ার মতো উপসর্গগুলো আছে প্রাথমিকভাবে তাদের এন্টিজেন পরীক্ষা করা হবে। বিশেষজ্ঞরা বলছেন, দেরিতে শুরু হলেও এন্টিজেন পরীক্ষা করোনা রোগী শনাক্ত, মহামারিতে নেয়া পরিকল্পনাসহ নানা নীতিনির্ধারণে সাহায্য করবে। তবে এই পরীক্ষা চালু হলেই নমুনা পরীক্ষার সংখ্যা বেড়ে যাবে এমন ভাবনা সঠিক নয়। কারণ এই পরীক্ষার একটা বড় সীমাবদ্ধতা হচ্ছে, লক্ষণ উপসর্গ না থাকলে এন্টিজেন পরীক্ষার রিপোর্ট হবে ‘ফলস নেগেটিভ’। দ্বিতীয়ত হচ্ছে, বিশেষজ্ঞরা যেভাবে এন্টিজেন পরীক্ষা নীতিমালা প্রণয়ন করেছেন অনুমোদনের জন্য তা মন্ত্রণালয়ে পাঠানো হয়েছে। সেই নীতিমালা অনুযায়ী, যাদের এন্টিজেন পরীক্ষার ফলাফল ‘পজেটিভ’ হবে তাদের ‘পজেটিভ’ রোগী হিসেবে ধরা হবে। যাদের নেগেটিভ রিপোর্ট আসবে তাদের আরটিপিসিআর পরীক্ষা করতে হবে। তাই এন্টিজেন পরীক্ষা আরটিপিসিআর পরীক্ষার সহায়ক নয়।

কোভিড-১৯ বিষয়ে জাতীয় কারিগরি পরামর্শক কমিটির সদস্য ও বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয়ের সাবেক উপাচার্য অধ্যাপক ডা. নজরুল ইসলাম বলেন, কোভিড-১৯ সংক্রমণ শুরুর পর বিশ্বের অনেক দেশই এন্টিজেন ও এন্টিবডি পরীক্ষা চালু করে। এর পক্ষে-বিপক্ষে অনেক মতও রয়েছে। অনেক দেশ এই পরীক্ষা চালু করেও স্থগিত করে এবং পুনরায় তা চালু করে। বাংলাদেশেও এন্টিজেন ও এন্টিবডি পরীক্ষা চালুর কথা আমরা বলেছি। তবে সরকার এন্টিজেন পরীক্ষার অনুমতি দিলেও এন্টিবডি পরীক্ষার অনুমতি দেয়নি। এন্টিজেন পরীক্ষার মাধ্যমে একজন ব্যক্তির শরীরে করোনা ভাইরাসের উপস্থিতি আছে কিনা তা নির্ধারণ করা হয়। আর এন্টিবডি পরীক্ষার মাধ্যমে জানা যায়, করোনা থেকে যারা সুস্থ হয়েছেন তাদের শরীরে এন্টিবডি তৈরি হয়েছে কিনা।

এমআই

মন্তব্য করুন

খবরের বিষয়বস্তুর সঙ্গে মিল আছে এবং আপত্তিজনক নয়- এমন মন্তব্যই প্রদর্শিত হবে। মন্তব্যগুলো পাঠকের নিজস্ব মতামত, ভোরের কাগজ লাইভ এর দায়ভার নেবে না।

জনপ্রিয়