খেজুরের রস সংগ্রহের আধুনিক পদ্ধতি

আগের সংবাদ

কিউএস র‌্যাঙ্কিং ও কিছু কথা

পরের সংবাদ

শ্রদ্ধা সৃষ্টিশীল মানুষের প্রতি

প্রকাশিত: ডিসেম্বর ২, ২০২০ , ১১:০৮ অপরাহ্ণ আপডেট: ডিসেম্বর ২, ২০২০ , ১১:০৮ অপরাহ্ণ

ম্যারাডোনাকে নিয়ে স্মৃতি বলতে গেলে একটাই বুঝি তাহলো সে আমাদের টিভি পর্দার সামনে থেকে উঠতে দিত না। মানুষের পায়ের জাদু পুরো মনের দখল নেয়ার জন্য এমনভাবে মনকে আগলে ধরে রাখতে পারে তা কেবল ম্যারাডোনাকে দেখলেই বা তাকে বুঝলেই অনুধাবন করা যায়! নব্বই দশকে যখন থেকে খেলা বুঝি তখন থেকে সে হৃদয়ে গেঁথে গিয়েছে। আমাদের সময়ে স্কুল আর খেলা ব্যতীত অন্য কোনো নেশায় বুঁদ হওয়ার সুযোগই দেয়নি এই ম্যারাডোনা! কোনো খেলার ক্ষেত্রে নিজের দল আর বিরোধী দল থেকে কীভাবে মজার অনুভূতি উদযাপন করা যায় তা একেবারে সংস্কৃতি ও শিল্পের মধ্যে ঢোকানো মানুষের নাম হচ্ছে ম্যারাডোনা! জানি সে পৃথিবীতে নেই। ম্যারাডোনা পৃথিবীতে শারীরিকভাবে উপস্থিত থাকার সময়ও কি আমরা কখনো তাকে খুব কাছ থেকে দেখতে পেরেছি? না পারলেও মনে হতো আমাদের চারপাশটা পুরোটা ভরা। কানায় কানায় সব ভরে থাকার পর কীভাবে পুরো মনো জগৎ ফাঁকা হতে পারে তা যেন দিন দিনই আমরা উপলব্ধি করছি!
সবচেয়ে প্রিয় অভিনেতার মধ্যে একজন আলী যাকের তিনিও চলে গেছেন পৃথিবী ছেড়ে। এই যে আমাদের কাছে চলে যাওয়া আর অস্তিত্বহীন হয়ে পড়া প্রতিটি মানুষের আত্মারা প্রতিদিনই একবার করে আমাদের কাছে এসে বলে যায় তোমরা আজ থেকে শূন্য! তার মানে হলো যারা চলে যাচ্ছে তারাই আরো বেশি করে আমাদের হৃদয়ের অস্তিত্বে থেকে যাচ্ছে। দেহ মৃত্যুর পর আত্মার ছড়িয়ে পড়ার ভার আমরা নিতে অক্ষম হয়ে হয়ে এক সময় আমরা ভারীর দিকে ঢলে পড়ি! বুকের জমানো কষ্ট বলে আমরা যা ভাবি তা শুধুই শ্রদ্ধা আর না জানা কিছু ব্যথা!
আজকের সমাজে আইকনিক নামে যারা আসে তারা বেশির ভাগ সময়েই সাময়িক আনন্দ দেয়ার জন্য। ম্যারাডোনা, আলী যাকেররা যতদিন পৃথিবীতে ছিলেন ততদিন তাদের জয়-পরাজয়, কান্নার শব্দ, হেরে যেতে যেতে আবার উঠে দাঁড়ানো সব যেন আমাদের মতো করে আমরা দেখতাম। একজন খেলোয়াড়, একজন অভিনেতা সারা জীবন খেলে বা অভিনয় করেও কেন মানুষের মন পর্যন্ত পৌঁছতে পারে না জানেন?
চে’, আমাদের বঙ্গবন্ধু, রবীন্দ্রনাথ, নজরুলসহ আরো অনেক মানুষ! যারাই পেরেছে তারাই পৃথিবীতে বেঁচে আছে এখনো এবং থাকবে। পুরো বিশ্বকে এক জায়গায় এনে যেভাবে তার দিকে দৃষ্টিপাত ঘটিয়েছে এ মানুষগুলো তাতে তারা পৃথিবীর বড় বড় পুণ্য কাজ করে ফেলেছে। আমাদের সময়ে ম্যারাডোনার ‘আর্জেন্টিনা’ আর আলী যাকেরের ‘আজ রবিবার’ হলে ঘর থেকে বাহিরে গিয়ে বিনোদন নিতে হতো না। সুস্থ বিনোদন নিয়ে বাঁচতে শেখানো এ মানুষগুলোকে আমরা প্রাণের মধ্যে রেখেছি। কে বলে প্রস্থান হয়েছে বলে আর দেখা পাব না? সব সৃষ্টিশীল মানুষই বেঁচে থাকে আমাদের হৃদয়ের অস্তিত্বে। শ্রদ্ধা সব সৃষ্টিশীল মানুষের প্রতি।

শ্রীপুর, গাজীপুর।
[email protected]

মন্তব্য করুন

খবরের বিষয়বস্তুর সঙ্গে মিল আছে এবং আপত্তিজনক নয়- এমন মন্তব্যই প্রদর্শিত হবে। মন্তব্যগুলো পাঠকের নিজস্ব মতামত, ভোরের কাগজ লাইভ এর দায়ভার নেবে না।

জনপ্রিয়