মূর্তি আর ভাস্কর্য এক নয়: ধর্ম প্রতিমন্ত্রী

আগের সংবাদ

আমাদের বক্তব্য ভাস্কর্যের বিরুদ্ধে, বঙ্গবন্ধুর বিরুদ্ধে নয়

পরের সংবাদ

ডকুমেন্ট ছাড়া ইট তৈরি, ইটভাটাকে ৫০ হাজার টাকা জরিমানা

প্রকাশিত: নভেম্বর ২৯, ২০২০ , ৮:০৮ অপরাহ্ণ আপডেট: নভেম্বর ২৯, ২০২০ , ৮:০৮ অপরাহ্ণ

চট্টগ্রামের বাঁশখালী উপজেলার পুকুরিয়া ইউনিয়নে চরজুঁইদন্ডি শংখ নদীর তীরে নতুনভাবে তৈরি করা হচ্ছে ইট ভাটা। সেই ইট ভাটাকে ভ্রাম্যমান আদালত অভিযান চালিয়ে পর্যাপ্ত ডকুমেন্ট দেখাতে না পারায় ৫০ হাজার টাকা জরিমানা আদায় করা হয়েছে। ভ্রাম্যমান আদালত নদীর তীরে গড়ে উঠা ইট ভাটার মালিক পক্ষকে সম্পূর্ণ ডকুমেন্ট ছাড়া ইট তৈরি না করার নির্দেশ দিয়েছেন।

রোববার (২৯ নভেম্বর) সকাল ১১ টার দিকে ভ্রাম্যমান আদালতের অভিযান পরিচালনা করেন সহকারী কমিশনার (ভূমি) মো. আতিকুর রহমান, চট্টগ্রাম পরিবেশ অধিদপ্তরের উপ-পরিচালক ও একদল পুলিশ। অভিযান সূত্রে জানা যায়, পুকুরিয়া ইউনিয়নের দক্ষিণ বুরুমছড়া চরজুঁইদন্ডি এলাকায় মো. ছৈয়দ নুর ১২/১৪ বছর পূর্বে চরের জায়গা ক্রয় করেন। এই জমিতে সরকারিভাবে ঝিকঝাক, ক্লিয়ন পরিবেশ সম্মত ইট তৈরির যে নির্দেশনা রয়েছে সেই নির্দেশ অমান্য করে তৈরি করা হচ্ছে ইটভাটা।

ওই জমির উপর ব্যবসার ধরণ পরিবর্তন করে চলতি বছর সাদাত ব্রীক্স নামের নতুন ইট ভাটা তৈরি করছিল। এই ইট ভাটা তৈরিকে কেন্দ্র করে স্থানীয় কৃষক ও মৎস্য ব্যবসায়ীদের মধ্যে বিরূপ প্রতিক্রিয়া দেখা দেয়। প্রশাসনের বিভিন্ন স্থানে অভিযোগ দাখিল করলে প্রশাসনের পক্ষ থেকে অভিযানে যায়। গতকাল রবিবার সকাল ১১টার দিকে ভ্রাম্যমান আদালত পরিবেশ অধিদপ্তরের ছাড়পত্র, জেলা প্রশাসকের ছাড়পত্র সহ প্রয়োজনীয় ডকুমেন্ট মালিকপক্ষকে দেখাতে বলেন। ইট ভাটার মালিক পক্ষের লোকজন কাগজপত্র দেখাতে না পারায় কৃষি জমিতে ইট ভাটার কার্যক্রমের জন্য ৫০ হাজার টাকা জরিমানা আদায় করা হয়েছে।

পুকুরিয়া ইউনিয়ন আওয়ামীলীগের সভাপতি সেলিম উদ্দীন বলেন, ইট ভাটার মালিককে কাগজপত্র তৈরি করে কাজ করার জন্য নির্দেশনা দিয়েছেন। মালিক না থাকায় ম্যনেজারের কাছ থেকে ৫০ হাজার টাকা জরিমানা আদায় করা হয়েছে। পুকুরিয়া ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যান আসহাব উদ্দীন বলেন, শংখ নদীতে জেগে উঠা চরের মধ্যে তিন ফসলী জমি মৎস্য চাষ, সব্জি খেত রয়েছে। ইট ভাটা হলে পরিবেশের ক্ষতি হয়ে মাছ ও ফসল নষ্ট হয়ে যাবে। ওই এলাকায় সরকারি জমি ও বন্দোবস্তির জমিও রয়েছে।

কৃষি কর্মকর্তা আবু সালেক বলেন, কৃষি জমিতে ইটভাটা তৈরি নিষেধ রয়েছে। কেউ যদি তা অমান্য করে তাদের বিরুদ্ধে আইনগত ব্যবস্থা নেওয়ারও বিধান রয়েছে। এই অভিযানের ব্যাপারে ইটভাটার মালিক ছৈয়দ নুর জানান, আমি এখন ঢাকায়। জরিমানা হয়েছে কিনা জানি না। বাঁশখালী সহকারী কমিশনা (ভূমি) আতিকুর রহমান বলেন, শংখ নদীর তীরে নতুন ইট ভাটার মালিক পক্ষ কাগজপত্র দেখাতে না পারায় ৫০ হাজার টাকা জরিমানা করা হয়েছে। সঠিক কাগজপত্র অনুকূলে না নিয়ে ইট তৈরির কাজ বন্ধ রাখার নির্দেশনা দিয়েছেন।

এসএইচ

মন্তব্য করুন

খবরের বিষয়বস্তুর সঙ্গে মিল আছে এবং আপত্তিজনক নয়- এমন মন্তব্যই প্রদর্শিত হবে। মন্তব্যগুলো পাঠকের নিজস্ব মতামত, ভোরের কাগজ লাইভ এর দায়ভার নেবে না।

জনপ্রিয়