দেশকে বিভাজিত করতে সাম্প্রদায়িকতাকে ইস্যু করছে সরকার

আগের সংবাদ

দ্বিতীয় শিরোপা ঘরে তুলল সিডনি থান্ডার

পরের সংবাদ

অনন্য উচ্চতায় সাকিব

প্রকাশিত: নভেম্বর ২৮, ২০২০ , ৯:৪২ অপরাহ্ণ আপডেট: নভেম্বর ২৮, ২০২০ , ১০:১৯ অপরাহ্ণ

বঙ্গবন্ধু টি-টোয়েন্টি কাপে গাজী গ্রুপ চট্টগ্রামের বিপক্ষে খেলতে নেমে শনিবার নতুন রেকর্ড স্পর্শ করলেন বিশ্বসেরা অলরাউন্ডার সাকিব আল হাসান। তিনি মাঠে নামেন ক্রিকেটপ্রেমীদের নতুন কিছু উপহার দেয়ার জন্য। তাই বঙ্গবন্ধু টি-টোয়েন্টি কাপে সবাইকে চমকে দিয়ে ওপেনিংয়েই নেমে গেলেন তিনি। নিয়মিত ওপেনার ইমরুল কায়েসকে তিন নম্বরে পাঠিয়ে তার জায়গায় ওপেনিংয়ে ব্যাট করতে নামেন সাকিব। আর তৃতীয় ওভারেরই টি-টোয়েন্টি ক্রিকেটে ৫ হাজার রানের মাইলফলক স্পর্শ করলেন বিশ্বসেরা অলরাউন্ডার। তবে সাকিবের রেকর্ডের দিনে তার দল খুলনা জয় তুলে নিতে ব্যর্থ হয়েছে। চট্টগ্রামের বোলার মোস্তাফিজের সামনে কোমর সোজা করে দাঁড়াতে পারেনি মাহমুদউল্লাহর বাহিনী। ফলে ৮৬ রানে অলআউট হয়েছে খুলনা। এত অল্প রানের জবাবে লিটনের অপরাজিত হাফ সেঞ্চুরিতে ভর করে ৯ উইকেটে জিতেছে চট্টগ্রাম। এ জয়ে বল হাতে ৩.৪ ওভারের ৫ রান খচায় ৪ উইকেট শিকার করে ম্যাচ সেরা পুরস্কার লুফে নিয়েছেন কার্টার মাস্টার মোস্তাফিজ। তাছাড়া পরপর দুই ম্যাচে ৯ উইকেটের জয়ে পয়েন্ট টেবিলের শীর্ষে উঠে গেছে মোহাম্মদ মিঠুনের চট্টগ্রাম দল।

বঙ্গবন্ধু টি-টোয়েন্টি কাপে শনিবার টস জিতে খুলনাকে ব্যাটিংয়ে পাঠায় গাজী গ্রুপ চট্টগ্রামের দলপতি মিঠুন। তবে ব্যাট করতে নেমে শুরুতেই বড় এক চমক দেয় খুলনা। আগের দুই ম্যাচে এনামুল হক বিজয় এবং ইমরুল কায়েস ওপেনিং নামলেও, এই ম্যাচে বিজয়ের সঙ্গে নেমে যান সাকিব। কিন্তু ইনিংসের প্রথম ওভারের শেষ বলে ভুল বোঝাবুঝিতে রানআউট হন ৬ রান করা বিজয়। তিন নম্বরে নামেন ইমরুল কায়েস। অপরপ্রান্তে দেখেশুনে খেলার চেষ্টা করেন সাকিব। এমনকি তিনি তৃতীয় ওভারে লেগ সাইডে আলতো করে ছুঁয়ে দিয়ে নিজের ইনিংসের তৃতীয় রানটি নেন। আর এতে পূরণ হয়ে যায় সাকিবের টি-টোয়েন্টি ক্যারিয়ারের ৫ হাজার রান। বাংলাদেশের দ্বিতীয় ও বিশ্বের ৬৫তম ব্যাটসম্যান হিসেবে ক্রিকেটের এ ফরমেটে পাঁচ হাজারের মাইলফলকে পৌঁছে যান তিনি। তার আগে বাংলাদেশের তামিম ইকবাল (৫৮৬৪) করেছেন ৫ হাজার রান। তবে অলরাউন্ডার ক্যাটাগরিতে এই তালিকার তিন নম্বরে আছেন সাকিব। যেখানে তিনি ব্যাট হাতে ৫ হাজার রান ও বল হাতে ৩০০ উইকেটের রেকর্ডের মালিক। তার আগে শুধু দুই ক্যারিবীয় অলরাউন্ডার ডোয়াইন ব্রাভো ও আন্দ্রে রাসেল করে দেখিয়েছেন এই কীর্তি। ব্রাভোর নামের পাশে রয়েছে ৬৩৩১ রান ও ৫১২টি উইকেট, রাসেলের রয়েছে ৫৭২৮ রানের পাশাপাশি বরাবর ৩০০টি উইকেট। চলতি ম্যাচের বোলিং ইনিংস শুরুর আগে সাকিবের উইকেটসংখ্যা ৩৫৫টি। আর ব্যাট হাতেও তিনি সাজঘরে ফিরে গেছেন ঠিক ৫ হাজার রান পূরণ করেই।

সাকিব সাজঘরে ফিরে যাওয়ার পর আর কেউ ক্রিজে এসে দাঁড়াতে পারেনি। অধিনায়ক মাহমুদউল্লাহ ১, ইমরুল কায়েস ২১ ও আরিফুল হক ১৫ রান করেন। কারণ শেষের ওভারগুলোতে মোস্তাফিজ এমন কার্টার বিষ ঢাললেন যে দলীয় স্কোর একশতে পৌঁছাতে পারেনি খুলনা।
খুলনার ৮৬ রানের জবাবে কোনো ঝুঁকিই নেয়নি চট্টগ্রামের দুই ওপেনার লিটন ও সৌম্য। দলীয় ৭৩ রানে মাহমুদউল্লাহর বলে আউট হন ২৬ রান করা সৌম্য। তবে মুমিনুল হকের সঙ্গে ম্যাচ জিতেই মাঠ ছাড়েন লিটন। তিনি আসরে নিজের প্রথম ফিফটিও করেন। ৪৬ বলে ৫৩ রান করেন লিটন আর মুমিনুলের ব্যাট থেকে আসে ৫ রান।

মন্তব্য করুন

খবরের বিষয়বস্তুর সঙ্গে মিল আছে এবং আপত্তিজনক নয়- এমন মন্তব্যই প্রদর্শিত হবে। মন্তব্যগুলো পাঠকের নিজস্ব মতামত, ভোরের কাগজ লাইভ এর দায়ভার নেবে না।

জনপ্রিয়