ম্যারাডোনা : এক উজ্জল নক্ষত্রের কালো অধ্যায়

আগের সংবাদ

পরিকল্পিত, না দুর্ঘটনা?

পরের সংবাদ

আগামী মাসেই শুরু

এন্টিজেন পরীক্ষার জট খুলছে

প্রকাশিত: নভেম্বর ২৫, ২০২০ , ১১:৫৩ অপরাহ্ণ আপডেট: নভেম্বর ২৬, ২০২০ , ৯:৫৭ পূর্বাহ্ণ

দীর্ঘ চার মাসের বেশি সময় ধরে ঝুলে থাকা এন্টিজেন পরীক্ষা অবশেষে চালু হতে যাচ্ছে। সব ধরনের প্রস্তুতি শেষে ডিসেম্বর মাসে দেশের দশটি এলাকায় এই পরীক্ষা চালু করা হবে। তবে নির্দিষ্ট তারিখে কোনো দশটি এলাকায় এই পরীক্ষা চালু হবে তা এখনই বলতে রাজি নয় স্বাস্থ্য অধিদপ্তর। তবে যেসব এলাকায় কোভিড-১৯ নমুনা পরীক্ষার জন্য আরটিপিসিআর মেশিন নেই কিন্তু সেখানে করোনার সংক্রমণ বেশি এর ভিত্তিতেই ওই দশটি এলাকা নির্ধারণ করা হবে।
প্রসঙ্গত, সরকারের পক্ষ থেকে বারবারই বলা হচ্ছে খুব দ্রুতই এই এন্টিজেন টেস্ট শুরু হবে। ১৭ সেপ্টেম্বর কোভিড-১৯-বিষয়ক জাতীয় পরামর্শক কমিটিও তাদের সভায় পিসিআর পরীক্ষার পাশাপাশি এন্টিজেন ও এন্টিবডি টেস্ট কার্যক্রম চালুর পরামর্শ দেয়। এর আগে গত ৫ জুলাই স্বাস্থ্য অধিদপ্তর এন্টিবডি ও এন্টিজেন সম্পর্কিত নীতিমালার খসড়া তৈরি করে মন্ত্রণালয়ে পাঠায়। ২৪ জুলাই এন্টিজেন টেস্টকে অনুমোদন দেয়ার সিদ্ধান্ত নেয় সরকার। কিন্তু চার মাস পেরিয়ে গেলেও এর বাস্তবায়ন নেই।
গতকাল বুধবার স্বাস্থ্য অধিদপ্তরে কোভিড-১৯ এবং স্বাস্থ্য বিষয়ক অন্যান্য হালনাগাদ তথ্য অবহিতকরণ এক সভায় অধিদপ্তরের অতিরিক্ত মহাপরিচালক (পরিকল্পনা ও উন্নয়ন) এবং এন্টিজেন পরীক্ষাবিষয়ক কমিটির সভাপতি অধ্যাপক ডা. মীরজাদী সেব্রিনা ফ্লোরা বলেন, এন্টিজেন পরীক্ষা নিয়ে আমাদের পরামর্শ দেয়া হয়েছে। কিন্তু কোন কিটটি ভালো এবং কোনটি ব্যবহার করলে সঠিক ফলাফল পাওয়া যাবে তা নিশ্চিত না হওয়া পর্যন্ত কাজ শুরু করা সম্ভব নয়। বিভিন্ন এন্টিজেন কিট নিয়ে আমরা পরীক্ষা করছি। ইতোমধ্যে বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা এন্টিজেন কিট সম্পর্কে তাদের যে প্রস্তাবনা দিয়েছে সেখানে তালিকাভুক্ত দুটি এন্টিজেন পরীক্ষার কিটের কথা বলা হয়েছে। আমরা সেই দুটি কিটের কার্যকারিতা যাচাই করেছি। কিট আনার প্রক্রিয়াও অনেক আগে শুরু হয়ে গেছে। আমরা খুব শিগগিরই তা হাতে পেয়ে যাব।
তবে এন্টিজেন পরীক্ষা চালু করলেই যে নমুনা পরীক্ষার সংখ্যা বেড়ে যাবে তা কিন্তু নয়। এই পরীক্ষার একটা বড় সীমাবদ্ধতা হচ্ছে, লক্ষণ উপসর্গ না থাকলে এন্টিজেন পরীক্ষার রিপোর্ট হবে ‘ফলস নেগেটিভ’। দ্বিতীয়ত হচ্ছে, বিভিন্ন বিশেষজ্ঞরা যেভাবে এন্টিজেন পরীক্ষা নীতিমালা প্রণয়ন করেছে অনুমোদনের জন্য তা মন্ত্রণালয়ে পাঠানো হয়েছে। সেই নীতিমালা অনুযায়ী, যাদের এন্টিজেন পরীক্ষার ফলাফল ‘পজেটিভ’ হবে তাদের ‘পজেটিভ’ রোগী হিসেবে ধরা হবে। যাদের নেগেটিভ রিপোর্ট আসবে তাদের আরটিপিসিআর পরীক্ষা করতে হবে। তাই এন্টিজেন পরীক্ষা আরটি পিসিআর পরীক্ষার সহায়ক নয়।
আগামী মাসেই যেসব পরীক্ষাগারে (জেলা সদর হাসপাতালে আরটিপিসিআর ল্যাব নেই) এবং সংক্রমণের মাত্রা বেশি সেইসব এলাকায় এন্টিজেন পরীক্ষা চালু করা হবে। এই কাজের জন্য প্রশিক্ষিত জনবল তৈরিতে আগামী সপ্তাহ থেকে শুরু হচ্ছে প্রশিক্ষণ। এ বিষয়ে প্রশিক্ষণ পরিকল্পনা চূড়ান্ত হয়ে গেছে।

 

 

ডিসি

মন্তব্য করুন

খবরের বিষয়বস্তুর সঙ্গে মিল আছে এবং আপত্তিজনক নয়- এমন মন্তব্যই প্রদর্শিত হবে। মন্তব্যগুলো পাঠকের নিজস্ব মতামত, ভোরের কাগজ লাইভ এর দায়ভার নেবে না।

জনপ্রিয়