অগ্নিসংযোগের ঘটনা নেপথ্যদের বিরুদ্ধেও শিগগিরই ব্যবস্থা

আগের সংবাদ

অব্যাহতি পেলেন আ.লীগ সভাপতি ও ভারপ্রাপ্ত সাধারণ সম্পাদক

পরের সংবাদ

আপন মামাতো ভাই ধর্ষণ করলেন জমজ দুই বোনকে

প্রকাশিত: নভেম্বর ২২, ২০২০ , ৮:৩১ অপরাহ্ণ আপডেট: নভেম্বর ২২, ২০২০ , ৮:৩১ অপরাহ্ণ

রাজধানীর মুগদায় স্কুলছাত্রী জমজ দুই বোনকে ধর্ষণের অভিযোগে থানায় মামলা দায়ের করছে ভুক্তভোগীর পরিবার। এই ঘটনায় অভিযুক্ত মাছের দোকানের কর্মচারী আপন মামাতো ভাই ফরহাদ (২৩) পলাতক রয়েছে।

রবিবার (২২ নভেম্বর) বিকেলে শিশু দুটিকে স্বাস্থ্য পরীক্ষার জন্য ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের ওসিসি’তে ভর্তি করায় মুগদা থানা পুলিশ। মুগদা থানার উপ পরিদশর্ক (এসআই) শেখ এনামুল করিম জানান, রবিবার দুপুরে শিশু দুটির পরিবার থানায় গিয়ে অভিযোগ দেয়। এরপর অভিযোগটি মামলা আকারে নেয়া হয়। পরে শিশু দুটিকে স্বাস্থ্য পরীক্ষার জন্য হাসপাতালে নেয়া হয়।

মামলার এজহারের বিবরণ থেকে তিনি জানান, শিশু দুটির পরিবার মুগদা এলাকায় থাকে। তাদের বাবা মৃত আর মা গৃহিণী। ১১ বছরের জমজ দুই বোন স্থানীয় একটি স্কুলের ৪র্থ শ্রেণিতে পড়ে। বুধবার বিকেলে মামাতো ভাই ফরহাদ কৌশলে তাদের দুজনকে ডেকে একই এলাকায় ফরহাদের ৩য় তলা বাসায় নিয়ে যায়। এরপর সেখানে তাদের দুজনকে ভয়ভীতি দেখিয়ে ও আটকে রেখে মুখে গামছা গুজে দিয়ে প্রথমে একজনকে ধর্ষণ করে। পরে আরেকজনেও একইভাবে ধর্ষণ করে। ঘটনাটি কাউকে না বলার জন্য তাদেরকে আরো ভয় দেখায়। পরে দুইবোন বাসায় গিয়ে তার মায়ের কাছে সব বলে দেয়। এরপর ফরহাদের পরিবার পারিবারিকভাবে ঘটনাটির সমাধান করে দিতে চায়। এর জন্য দুইদিন তারা কাউকে অভিযোগ করেনি। পরশুদিন ফরহাদ ও তার পরিবার পলাতক হওয়ার পর তারা মামলার সিন্ধান্ত নেয়। সেই অনুযায়ী রবিবার দুপুরে থানায় গিয়ে মামলা দায়ের করেন।

এসআই আরো জানান, মামলা দায়েরের পর তাদের দুজনকে হাসপাতালে নিয়ে আসা হয়। অভিযুক্ত ফরহাদকে গ্রেপ্তারের জন্য চেষ্টা চলছে। হাসপাতাল থেকে প্রতিবেদন পেলে ঘটনাটি আরো পরিষ্কার হবে।

ভুক্তভোগীদের স্বজনরা জানান, তারা পাশাপাশি এলাকায় থাকেন। ঘটনাটি বুধবারই শিশু দুটির কাছ থেকে শুনতে পারেন তারা। তবে মামলা না করতে ফরহাদের বাবা তাদেরকে বিভিন্ন ভাবে বুঝায় এবং ভয়ভীতি দেখায়। শিশুদুটি বড় হলে একজনকে ফরহাদের বউ হিসেবে তুলে নিবে বলে আশ্বস্ত করতে চায়। তাতেও শিশু দুটির মা রাজি না হওয়ায় শুক্রবার ফরহাদ ও তার পরিবার বাসা থেকে পালিয়েছে। এরপরই তারা সিদ্ধান্ত নিয়ে থানায় গিয়ে মামলা দায়ের করেন।

এসআর

মন্তব্য করুন

খবরের বিষয়বস্তুর সঙ্গে মিল আছে এবং আপত্তিজনক নয়- এমন মন্তব্যই প্রদর্শিত হবে। মন্তব্যগুলো পাঠকের নিজস্ব মতামত, ভোরের কাগজ লাইভ এর দায়ভার নেবে না।

জনপ্রিয়