শান্তিকালীন পদক পেল নৌবাহিনীর ৪০ সদস্য

আগের সংবাদ

ইউরোপের নতুন গোল্ডেন বয় হাল্যান্ড

পরের সংবাদ

জৈব সুরক্ষা বলয়ে ক্রিকেটাররা

প্রকাশিত: নভেম্বর ২১, ২০২০ , ৯:২৮ অপরাহ্ণ আপডেট: নভেম্বর ২১, ২০২০ , ৯:২৮ অপরাহ্ণ

যতই দিন গড়াচ্ছে ততই বঙ্গবন্ধু টি-টোয়েন্টি কাপ টুর্নামেন্ট ঘিরে উত্তেজনা বাড়ছে। সময়ের সঙ্গে টক্কর দিয়ে মাঠের খেলা শুরু হওয়ার দিন ঘনিয়ে এলো। ২৪ নভেম্বর থেকে মাঠে গড়াবে টুর্নামেন্টটি। তাই খেলা শুরুর আগে গতকাল পাঁচ দলের ক্রিকেটার ও কোচিং স্টাফসহ ১২৫ জনের কোভিড-১৯ পরীক্ষা করিয়েছিল বাংলাদেশ ক্রিকেট বোর্ড (বিসিবি)। যেখানে একজন ক্রিকেটার করোনা পজিটিভ হয়েছেন। তিনি গাজী গ্রুপ চট্টগ্রামের টপ অর্ডার ব্যাটসম্যান মাহমুদুল হাসান জয়। তাকে হোম অব ক্রিকেট মিরপুর একাডেমিতে আইসোলেশনে রেখে চিকিৎসার ব্যবস্থা করেছে বিসিবির মেডিকেল ইউনিট।

এছাড়া পরীক্ষা শেষে নেগেটিভ হওয়া ক্রিকেটাররা যাচ্ছেন জৈব সুরক্ষা বলয়ে। করোনাকালে ক্রিকেটারদের সংক্রমণ রোধে কঠিন নিয়ম-কানুন মানতে হয় তা আগেই জেনেছেন ক্রিকেটপ্রেমীরা। তাই বঙ্গবন্ধু টি-টোয়েন্টি কাপ টুর্নামেন্ট চলাকালীন পুরো সময় হোটেল থেকে মাঠ এবং মাঠ থেকে হোটেলে এই সুরক্ষা বলয়ের মধ্যেই থাকতে হবে তামিম-মুশফিকদের। পাঁচ দলের ৮০ ক্রিকেটারের সঙ্গে এই প্রতিযোগিতায় সরাসরি যুক্ত থাকবেন আরো ২৫০ জন। এর মধ্যে টিম ম্যানেজমেন্ট, ম্যাচ অফিসিয়াল, কর্মকর্তা, ব্রডকাস্টকর্মী, ধারাভাষ্যকার, মাঠকর্মী ও নিরাপত্তা রক্ষীও রয়েছেন। তাদের সবার বিষয় বেশ সর্তক বিসিবি। তাই টুর্নামেন্টের আগে পরে বা চলাকালীন কেউ করোনায় আক্রান্ত হলে জাতীয় ক্রীড়াপল্লী এবং জাতীয় সুইমিংপুলের হোস্টেলে আইসোলেশনে রাখা হবে। ক্রিকেটারদের রাখা হবে হোটেল সোনারগাঁওয়ে। ১৬ ক্রিকেটারের সঙ্গে পাঁচজন কোচিং স্টাফ, ম্যানেজার ও তিনজন সাপোর্টিং স্টাফ হোটেলে উঠবেন।

এছাড়া করোনা নেগেটিভ ক্রিকেটাররা শনিবার বেশ ফুরফুরে মেজাজে হোম অব ক্রিকেট মিরপুরে অনুশীলন করেছেন। এদিন পুরো স্টেডিয়াম জুড়ে ছিল উৎসবের আমেজ। মৃদু শৈত্য প্রবাহ উপেক্ষা করে সবালেই মাঠে আসেন তামিম, মুশফিক, সৌম্য ও মুমিনুলরা। তবে এবারের মিলনমেলাটা একটু ভিন্ন ছিল। এতদিন যারা কাঁধে কাঁধ মিলিয়ে একেছেন শত্রু বধের ছক, এখন তারা একে অন্যের বিপরীতে খেলবেন। হাত গুটিয়ে বসে নেই কোচিং স্টাফের সদস্যরাও। কেউ দূরে দাঁড়িয়ে নিবিড়ভাবে শিষ্যদের টেকনিক পর্যবেক্ষণ করছেন, আবার কেউ টেকনিক দেখিয়ে দিচ্ছেন। বল বয়, থ্রোয়ার, টিম বয়রাও বেশ ব্যস্ত। আর অনুশীলনে সাকিব-তামিমরা ব্যাটে-বলে শব্দে তুলছেন নতুন সুর লহরী।

অবশ্য দিনের শুরুটা করেছে মুশফিকুর রহিমের বেক্সিমকো ঢাকা। সকাল ৭টা থেকে শুরু হওয়া এই অনুশীলনের স্থায়িত্ব ছিল তিন ঘণ্টা। মাঠে এসেই ঢাকার ক্রিকেটারা দৌড়ঝাঁপ করে প্রথমে গা গরম করেছেন। এরপর নেমেছেন ব্যাটিং, বোলিং ও ফিল্ডিং অনুশীলনে। মুশফিকদের অনুশীলন চলাকালীন সকাল ৯টায় মাঠে আসেন তামিমের দল ফরচুন বরিশাল। এরপর মাঠে আসে গাজী গ্রুপ চট্টগ্রাম ও জেমকন খুলনা। আর সবার শেষে দেখা গেল সবুজ জার্সিধারী মিনিস্টার গ্রুপ রাজশাহীকে। নিয়ম অনুসারে প্রতিটি দলই অনুশীলনের শুরুটা করেছে ওয়ার্ম আপ দিয়ে। প্রথমে স্ট্রেস রানিং ও পরে ফুটবল। এরপর নেটে ব্যাটিং-বোলিং অনুশীলন।

তবে বেশ স্বাচ্ছন্দ্যে ব্যাটিং করে ঘাম ঝরিয়েছেন তামিম। কিছুতেই তার ব্যাটিং ক্ষুধা মিটছিল না। যতক্ষণ ব্যাটিং করেছেন, দুর্দান্ত দাপটে। অনুশীলন শেষে দলগুলো ফিরে গেছে টিম হোটেলে। আর এর মধ্য দিয়েই টুর্নামেন্ট উপলক্ষে বাংলাদেশ ক্রিকেট বোর্ডের তৈরি করা বায়ো বাবলে প্রবেশ করল পাঁচ দলের ক্রিকেটাররা।

এসআর

মন্তব্য করুন

খবরের বিষয়বস্তুর সঙ্গে মিল আছে এবং আপত্তিজনক নয়- এমন মন্তব্যই প্রদর্শিত হবে। মন্তব্যগুলো পাঠকের নিজস্ব মতামত, ভোরের কাগজ লাইভ এর দায়ভার নেবে না।

জনপ্রিয়
close