নির্যাতনে নিহত সাদিয়ার বাড়িতে পুলিশ সুপার

আগের সংবাদ

দুর্নীতির খবর: বিচক্ষণ সায় প্রধানমন্ত্রীর

পরের সংবাদ

ট্রাম্প-বাইডেন শেষ বিতর্ক

প্রকাশিত: অক্টোবর ২৬, ২০২০ , ১০:৩৫ অপরাহ্ণ আপডেট: অক্টোবর ২৬, ২০২০ , ১০:৩৫ অপরাহ্ণ

বৃহস্পতিবার ২২ অক্টোবর দুই প্রেসিডেন্ট প্রার্থী ট্রাম্প ও বাইডেনের মধ্যে দ্বিতীয় ও শেষ বিতর্ক অনুষ্ঠিত হয় টেনেসির ন্যাশভিল শহরে। মডারেটর ছিলেন এনবিসির সাংবাদিক ক্রিশ্চিনা ওয়াকার। ৫৫ মিলিয়ন মার্কিনি এটি দেখেছেন। সাধারণত দুই প্রেসিডেন্ট প্রার্থীর মধ্যে তিনটি বিতর্ক অনুষ্ঠিত হয়, এবার হয়েছে দুটি, সৌজন্যে কোভিড-১৯। ২৭ সেপ্টেম্বরে প্রথম বিতর্কের পর প্রেসিডেন্ট ট্রাম্প করোনায় আক্রান্ত হন এবং সেজন্য দ্বিতীয় বিতর্ক হতে পারেনি। প্রথম বিতর্কে অযথা বাকবিতণ্ডা হওয়ায় ‘বিতর্ক কমিশন’ বলেছিল, শেষ বিতর্কে একজন কথা বলার সময় অন্যজনের মাইক ‘মিউট’ বা বন্ধ থাকবে। দ্বিতীয় বিতর্ক ভালো হয়েছে। মিডিয়া জানাচ্ছে, হুমকিতে কাজ হয়েছে, আসলে কারো মাইক মিউট ছিল না। বিতর্কে কে জিতেছেন? এর সঠিক উত্তর কারো জানা নেই, এ প্রশ্নের উত্তর হচ্ছে, সেটি নির্ভর করে আপনি কাকে জিজ্ঞাসা করছেন? প্রায় সব মিডিয়ার বক্তব্য হচ্ছে, ট্রাম্প ভালো করেছেন, তবে জিতেছেন বাইডেন। এ মুহূর্তে মার্কিন প্রায় সব জরিপ বলছে, বাইডেন ট্রাম্প থেকে এগিয়ে। উপসংহারে গিয়ে তারা ‘আস্তে’ করে বলছেন, এরপরও ট্রাম্প ইলেকটোরাল ভোটে জিতে যেতে পারেন। ২০১৬ নির্বাচনে তাই হয়েছিল, হিলারি ক্লিনটন সর্বদা এগিয়ে ছিলেন, জিতেছেন ট্রাম্প। সম্ভবত এবারো তাই হবে।

শেষ বিতর্কের পর কি ট্রাম্পের অবস্থান ভালো হবে? সম্ভাবনা আছে, কারণ তিনি কৃষ্ণাঙ্গ ভোটারদের কাছে পৌঁছতে সক্ষম হয়েছেন। তিনি বলেছেন, আব্রাহাম লিঙ্কনের পর কালোদের জন্য তার মতো কোনো প্রেসিডেন্ট করেননি। একই সঙ্গে তিনি কালোদের স্মরণ করিয়ে দিয়েছেন, বাইডেন ১৯৯৪ সালে কালোদের ‘সুপার-প্রেডিটর’ বলেছেন; ৮০-৯০ দশকে যেসব ক্রাইম বিলের সপক্ষে ভোট দিয়েছেন তাতে ইয়ং কালোরা জেলে গেছে। বাইডেন এই জায়গায় তার ভুল স্বীকার করেন এবং ভুল থেকে শিক্ষা নিয়েছেন বলে মন্তব্য করেন। বাইডেন বলেছেন, আমেরিকাতে প্রাতিষ্ঠানিক ‘বর্ণ-বৈষম্য’ আছে। তিনি কালোদের জন্য আরো কি করবেন তা ব্যাখ্যা দেন, এ পর্যায়ে ট্রাম্প বলেন, ৮ বছর ভাইস প্রেসিডেন্ট ছিলেন, ৪৭ বছর ধরে রাজনীতি করছেন, তখন কেন করেননি? ট্রাম্প আরো বলেন, ‘বাইডেন ইজ অল টক, নো অ্যাকশন’। মডারেটর বিএলকে (বø্যাক লাইফ মেটার্স) সম্পর্কে বাজে উক্তি প্রসঙ্গ উত্থাপন করলে ট্রাম্প বলেন, যখন ওরা পুলিশকে ‘পিগস ইন এ বাস্কেট’ বলে সেøাগান দিচ্ছিল, প্রেসিডেন্ট হিসেবে আমি তখন বসে থাকতে পারি না, সেটা অন্ধকার রাত্রি ছিল, কারা এ সেøাগান দিচ্ছিল আমি জানি না। রেস প্রসঙ্গে বাইডেনের ভালো করা উচিত ছিল, তিনি তা করেননি।

পরিবেশ বা ক্লাইমেট চেঞ্জ প্রশ্নেও বাইডেন ভালো করতে পারেননি। বরং এখানে তিনি সবচেয়ে বড় ভুলটি করেন। ট্রাম্প বলেন, আমি এনার্জি ইন্ডিপেন্ডেন্ট করেছি, মার্কিন বাতাস, জল পরিষ্কার, স্বচ্ছ।
লিডারশিপ প্রশ্নে বাইডেন ভালো করেছেন। শুরুতে করোনা প্রসঙ্গে বাইডেন ভালো করেছেন, আরো ভালো করা যেত। ইমিগ্রেশন প্রশ্নেও বাইডেন ভালো করেছেন এবং মা-বাবা থেকে সন্তানকে পৃথক করার প্রসঙ্গটি ভালোই তুলেছেন। ট্রাম্প তার নতুন ওয়ালের কথা জানান। ন্যাশনাল সিকিউরিটি প্রশ্নে ট্রাম্প ভালো করেছেন। রিপাবলিকানরা সবসময় এ প্রশ্নে ভালো করেন। রাশিয়া, ইরান আমাদের নির্বাচনে প্রভাবিত করছে প্রসঙ্গে বাইডেন বেশ শক্তভাবে বলেন, এটি সার্বভৌমত্বের প্রশ্ন, যেই হস্তক্ষেপ করুক, তাকে মূল্য দিতে হবে।

বিতর্ককালে জো বাইডেন দুই-তিনবার আটকে যান, দুঃখ প্রকাশ করেন, এমনকি তার বক্র হাসি ঠিক ততটা সুখকর ছিল না। উত্তর কোরিয়া প্রসঙ্গে ট্রাম্প ভালো করেছেন। তিনি ওবামা-বাইডেন প্রশাসনকে এজন্য দায়ী করেছেন। ওবামার সময় উত্তর কোরিয়া আন্তঃমহাদেশীয় ক্ষেপণাস্ত্র পরীক্ষা করেছে, এ প্রসঙ্গে বাইডেনকে মডারেটর সরাসরি প্রশ্ন করলে তিনি তা এড়িয়ে যান। স্বাস্থ্যবিমা বা হেলথ কেয়ার প্রশ্নে বাইডেন ভালো করেছেন। তিনি জানান, তিনি জয়ী হলে, ওবামা কেয়ার হবে ‘বাইডেন কেয়ার’। এ সময়ও বাইডেন একবার আটকে যান। করোনা স্টিম্যুলাস প্রশ্নে মডারেটরের প্রশ্নের উত্তরে ট্রাম্প সরাসরি বলেন, স্পিকার পেলোসি রাজনীতি করছেন, তাই স্টিম্যুলাস পাস হচ্ছে না। এ পর্যায়ে ট্রাম্প আরো বলেন, আমরা এবার হাউসে জিতব। মডারেটর এ সময় বাইডেনকে প্রশ্ন করেন, আপনি ডেমোক্র্যাটদের নেতা, আপনি কেন বিলটি পাসের জন্য পুশ করছেন না? বাইডেন বলেন, ‘আই ডিড’। ন্যূনতম বেতন ১৫ ডলার প্রশ্নে বাইডেন রাজি, ট্রাম্প রাজি নন!
যুক্তরাষ্ট্র থেকে
শিতাংশু গুহ : কলাম লেখক।
[email protected]

এসএইচ

মন্তব্য করুন

খবরের বিষয়বস্তুর সঙ্গে মিল আছে এবং আপত্তিজনক নয়- এমন মন্তব্যই প্রদর্শিত হবে। মন্তব্যগুলো পাঠকের নিজস্ব মতামত, ভোরের কাগজ লাইভ এর দায়ভার নেবে না।

জনপ্রিয়