সুবর্ণজয়ন্তীতেও পালন করা হবে মুজিববর্ষের কর্মসূচি

আগের সংবাদ

মর্যাদার লড়াইয়ে বার্সাকে হারালো রিয়াল

পরের সংবাদ

বন্ধ হচ্ছে এমআরপির কার্যক্রম

বিদেশ গমনেচ্ছুক সবাইকে নিতে হবে ই-পাসপোর্ট

প্রকাশিত: অক্টোবর ২৫, ২০২০ , ৯:৪০ পূর্বাহ্ণ আপডেট: অক্টোবর ২৫, ২০২০ , ৯:৪০ পূর্বাহ্ণ

‘আমরা অচিরেই দেশে এমআরপির নতুন আবেদন ও রি-ইস্যুর কার্যক্রম বন্ধ করে দেব। এমনকি আমরা এমআরপির ছাপা কমিয়ে ই-পাসপোর্টের ছাপা বাড়িয়েছি’

বিশ্বের সঙ্গে তাল মিলিয়ে এবার মেশিন রিডেবল পাসপোর্ট (এমআরপি) থেকে বেরিয়ে আসছে পাসপোর্ট ও ইমিগ্রেশন অধিদপ্তর। ইতোমধ্যে এমআরপির নতুন ও রি-ইস্যুর কার্যক্রম বন্ধ করার সিদ্ধান্ত নেয়া হয়েছে। এতে বিদেশ গমনেচ্ছুকদের নিতে হবে ই-পাসপোর্ট। পাসপোর্ট অধিদপ্তর সূত্রে এ তথ্য জানা গেছে।

সূত্র জানায়, ২০১০ সালের জুন মাসে হাতে লেখা পাসপোর্ট বন্ধ করে মেশিন রিডেবল পাসপোর্টের প্রচলন শুরু হয়। পরে ২০১৮ সালে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার ই-পাসপোর্ট কার্যক্রম উদ্বোধনের মধ্য দিয়ে পাসপোর্ট দুনিয়ার নতুন যুগে প্রবেশ করে বাংলাদেশ। ই-পাসপোর্টের মাধ্যমে প্রযুক্তির ব্যবহার নিশ্চিতে মেশিন রিডেবল পাসপোর্টের মেয়াদোত্তীর্ণ বা রি-ইস্যু এমনকি নতুন এমআরপির আবেদন আর গ্রহণ করবে না পাসপোর্ট অধিদপ্তর। বিদেশ গমনেচ্ছুক সবাইকে ই-পাসপোর্ট নিয়ে দেশের বাইরে যেতে হবে। এতে হয়রানি যেমন কমবে, তেমনই সময়ও সাশ্রয় হবে। ইমিগ্রেশনে আগের মতো অতিরিক্ত সময় ব্যয় করতে হবে না।

এ বিষয়ে জানতে চাইলে ই-পাসপোর্টের প্রকল্প পরিচালক ব্রিগেডিয়ার জেনারেল সাইদুর রহমান খাঁন এনডিসি, পিএসসি ভোরের কাগজকে বলেন, আমরা অচিরেই দেশে এমআরপির নতুন আবেদন ও রি-ইস্যুর কার্যক্রম বন্ধ করে দেব। এমনকি আমরা এমআরপির ছাপা কমিয়ে ই-পাসপোর্টের ছাপা বাড়িয়ে দিয়েছি। যাতে গ্রাহকরা যথাসময়ে ই-পাসপোর্টটি হাতে পান। তিনি বলেন, আমরা সবাইকে এমআরপি বাদ দেয়া ও ই-পাসপোর্ট গ্রহণের পরামর্শ দিচ্ছি।

ই-পাসপোর্টের সক্ষমতা সম্পর্কে জানতে চাইলে প্রকল্প পরিচালক বলেন, নতুন একটি সফটওয়্যারের সঙ্গে আমরা কাজ করছি। প্রথমদিকে যে সমস্যা ছিল সেটা অনেকাংশে কমেছে। আশা করছি সময়ের সঙ্গে আমাদের কাজের গতিও বাড়বে। অপর এক প্রশ্নের জবাবে এ কর্মকর্তা বলেন, সারাদেশে ৬৯টির মধ্যে ৫২টি আরপিওতে ই-পাসপোর্টের কার্যক্রম চলছে। আগামী ১৫ নভেম্বরের মধ্যে বাকি ১৭টি আরপিওতেও ই-পাসপোর্টের কার্যক্রম চালু হবে। এ কর্মকর্তা আরো বলেন, পাসপোর্ট গ্রাহকদের ঝামেলামুক্ত সেবা দিতে আমরা সার্বক্ষণিক কাজ করে যাচ্ছি।

ই-পাসপোর্টের উপপরিচালক লে. কর্নেল মোহাম্মদ শরীফুল ইসলাম, এনডিসি ভোরের কাগজকে বলেন, এখানে প্রতিদিন ত্রæটিপূর্ণ আবেদন নিয়ে অসংখ্য পাসপোর্ট গ্রাহক আসছেন। তাদের আমরা নির্ভুলভাবে আবেদন এনরোলমেন্ট করতে সহযোগিতা দিয়ে যাচ্ছি। যাতে তাকে পাসপোর্ট পেতে কোনো ভোগান্তিতে পড়তে না হয়।

ঢাকা বিভাগীয় পাসপোর্ট অফিস পরিচালক আবদুল্লাহ আল মামুন ভোরের কাগজকে বলেন, পাসপোর্ট গ্রাহকরা প্রতিনিয়ত যেভাবে আমাদের কাছে সেবা প্রত্যাশা করেন আমরা সেভাবেই দেয়ার চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছি।

এমএইচ

মন্তব্য করুন

খবরের বিষয়বস্তুর সঙ্গে মিল আছে এবং আপত্তিজনক নয়- এমন মন্তব্যই প্রদর্শিত হবে। মন্তব্যগুলো পাঠকের নিজস্ব মতামত, ভোরের কাগজ লাইভ এর দায়ভার নেবে না।

জনপ্রিয়