ঘরে ডেকে নিয়ে ছাত্রীকে ধর্ষণ, আটক মাদরাসার সুপার

আগের সংবাদ

মিডিয়াপাড়া পূজামণ্ডপে ভারতীয় হাইকমিশনার

পরের সংবাদ

বড় ব্যবধানে জিতল কলকাতা

প্রকাশিত: অক্টোবর ২৪, ২০২০ , ৮:৫৩ অপরাহ্ণ আপডেট: অক্টোবর ২৪, ২০২০ , ৮:৫৩ অপরাহ্ণ

ইন্ডিয়ান প্রিমিয়ার লিগে (আইপিএল) আজ নিতিশ রানা ও ভরুণ চক্রবর্ত্তীদের কল্যাণে উড়তে থাকা দিল্লি ক্যাপিটালসের বিপক্ষে ৫৯ রানে জিতেছে কলকাতা নাইট রাইডার্স। কলকাতার নির্ধারিত ২০ ওভারে ৬ উইকেটে ১৯৪ রানের জবাবে মাত্র ১৩৫ রানে অলআউট হয় দিল্লি। এ জয়ের মধ্য দিয়ে ১১ ম্যাচে ১২ পয়েন্ট নিয়ে টেবিলের চার নম্বরে ইয়ন মরগানের দল। কলকাতার হয়ে স্পিনার ভরুণ চক্রবর্ত্তী নেন পাঁচ উইকেট।

আবু ধাবির শেখ জায়েদ স্টেডিয়ামে আজ টস জিতে বল করার সিদ্ধান্ত নেয় দিল্লি। ব্যাট করতে নেমে শুরুর আভাসটা ভালো দেয়নি কলকাতা। মনে হচ্ছিল শেষ পর্যন্ত দেড়শ রানই পেরুতে পারবে না দুইবারের শিরোপা জয়ীরা। শুরুতে দলীয় ১১ রানে তারা হারায় ওপেনার শুভমান গিলকে। তাকে আউট করেন এবারের মৌসুমে বল হাতে গতির ঝড় তোলা এনরিচ নর্টজে। প্রোটিয়া এ পেসার এই মৌসুমে ঘণ্টায় ১৫৬ কিলোমিটারেরও বেশি গতিতে বল করছেন। শুভমান গিল সাজঘরে ফিরলেও আরেক ওপেনার নিতিশ রানা খেলতে থাকেন প্রান্ত ধরে। ত্রিপাতি ও কার্তিক বিদায় নেন অল্প কিছুক্ষণ ক্রিজে থেকে। এরপর রানার সঙ্গে জুটি বাঁধেন ক্যারিবিয়ান তারকা সুনিল নারাইন। এ জুটি থেকে আসে ১১৫ রান। এ সময় ৬৪ রান করে প্যাভিলিয়নে ফেরেন নারাইন। ৩২ বলে ৬ চার ও ৪ ছয়ে এই ইনিংস খেলেন তিনি। শেষ ওভারে মার্কাস স্টোইনিসের বলে ২০০ পেরুনোর ইঙ্গিত দিচ্ছিল কলকাতা।

১৯ ওভার শেষে কলকাতার রান ছিল ১৮৪। সেখান থেকে আর চার বল খেলে কলকাতার রান হয় ১৯৪। পরের বলে নিতিশ রানা ৮১ রান করে আউট হলে ২০০ পেরুনোর আশায় গুঁড়েবালি হয়। রানার ইনিংসটি সাজানো ছিল একটি ছয় ও ১৩টি চারের মারে। দলপতি ইয়ন মরগান করেন ১৭ রান। তিনি আউট হন ইনিংসের শেষ বলে। দিল্লি ক্যাপিটালসের হয়ে দুটি উইকেট পান কাগিসো রাবাদা। এ দুই উইকেট নিয়ে ১১ ম্যাচে তিনি শিকার করলেন মোট ২৩ উইকেট, যা টুর্নামেন্টে সর্বোচ্চ। দুটি করে উইকেট নিয়েছেন মার্কাস স্টোইনিস ও এনরিচ নর্টজেও। ১০ ম্যাচে নর্টজের উইকেট ১৪টি।

জবাবে প্যাট কামিন্স ঝড়ে ১৩ রানে আজিঙ্কা রাহানে ও আগের দুই ম্যাচে টানা সেঞ্চুরি হাঁকানো শিখর ধাওয়ানের উইকেট হারায় দিল্লি। এরপর জুটি বাঁধেন দলপতি শ্রেয়াস আয়ার ও উইকেটরক্ষক ব্যাটসম্যান রিশাভ প্যান্ট। এ জুটি থেকে আসে ৬৩ রান। ২৭ রান করা প্যান্টকে বিদায় করেন ভরুণ চক্রবর্ত্তী। শিমরন হেটমায়ারকে আউট করার কিছুক্ষণের মধ্যই ৪৭ রান করা শ্রেয়াস আয়ারকেও সাজঘরে ফেরান এ স্পিনার। শেষ দিকে চক্রবর্ত্তী ঝড়ে ১৩৫ রানে অলআউট হয় দিল্লি। কলকাতার হয়ে পাঁচ উইকেট পান ভরুণ। ৩ উইকেট নেন কামিন্স। এক উইকেট শিকার করেন লকি ফার্গুসন।

এসএইচ

মন্তব্য করুন

খবরের বিষয়বস্তুর সঙ্গে মিল আছে এবং আপত্তিজনক নয়- এমন মন্তব্যই প্রদর্শিত হবে। মন্তব্যগুলো পাঠকের নিজস্ব মতামত, ভোরের কাগজ লাইভ এর দায়ভার নেবে না।

জনপ্রিয়