শারদীয় দুর্গোৎসব মুখ্যত বাঙালির

আগের সংবাদ

আবহমানকালের শারদোৎসব

পরের সংবাদ

১৪ মাস পর মুক্তি

কাশ্মীর নিয়ে যা বললেন মেহবুবা

প্রকাশিত: অক্টোবর ২৩, ২০২০ , ৯:১৬ অপরাহ্ণ আপডেট: অক্টোবর ২৩, ২০২০ , ৯:১৮ অপরাহ্ণ

জম্মু ও কাশ্মীরের সাবেক মুখ্যমন্ত্রী মেহবুবা মুফতি ১৪ মাস পর মুক্তি পাওয়ার পর এই প্রথম সম্মেলনে যোগ দিয়ে বিভিন্ন দাবি তুলে ধরেন তিনি। সম্মেলনে তিনি বলেন, কাশ্মীরের আলাদা পতাকা ফেরত দিতে হবে। তিনি বলেন, দেশ সংবিধানের ভিত্তিতে চলবে। ভারতীয় জনতা পার্টির (বিজেপি) ইশতেহার ভিত্তিতে নয়। ভোট চাইবার জন্য বিজেপির কাছে দেখানোর মতো কিছুই নেই। তাই তারা ৩৭০ ধারার উত্থাপন করছে।

সংবাদ সম্মেলনে তিনি সাফ জানালেন, যতদিন না কাশ্মীরের পৃথক পতাকা ফেরত দেয়া হচ্ছে, ততদিন জাতীয় পতাকাকে সম্মান করবেন না তিনি। প্রসঙ্গত, এ দিন বিহারের বিধানসভা নির্বাচনের আগে সাসারামের জনসভায় আসেন প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি। সেই প্রচারেও প্রধানমন্ত্রী ৩৭০ ধারার কথা উল্লেখ করেন।

এই প্রসঙ্গে মেহবুবা মুফতি বলেন, ‘ওরা বলেছিল, আপনারা জম্মু ও কাশ্মীরে জমি কিনতে পারবেন। আমরা ৩৭০ ধারা তুলে দিয়েছি। এবার ওরা বলছে, বিনামূল্যে ভ্যাকসিন দেয়া হবে। আজ প্রধানমন্ত্রী ৩৭০ ধারার উল্লেখ করে ভোট চেয়েছেন। দেশের সমস্যা সমাধান করতে ব্যর্থ হয়েছে সরকার। মেহেবুবাকে তার ডেস্কে রাখা জম্মু ও কাশ্মীরের পতাকা সম্পর্কে জিজ্ঞাসা করা হলে তিনি স্পষ্ট বলেন, ‘এটাই আমাদের পতাকা।

কাশ্মীরের সাবেক এ মুখ্যমন্ত্রী বলেন, ‘আমাদের পতাকা ফিরে পেলে আমরা আবার তেরঙ্গাকে (ভারতীয় পতাকা) হাতে তুলে নেব। অর্থনীতির দিক দিয়ে আমরা বাংলাদেশেরও পেছনে চলে গেছি। বেকারত্ব হোক বা অন্য কোনো ইস্যু, ওরা সব কিছুতেই ব্যর্থ।’ তিনি আরও বলেন, ‘যখন কেন্দ্র সব কিছুতে ব্যর্থ হয়, তখন ওদের কাশ্মীর আর ৩৭০ ধারা মনে পড়ে।’

শুক্রবার বিহারের জনসভায় মোদি বলেন, ‘সকলেই অপেক্ষায় ছিলেন কবে ৩৭০ ধারা উঠবে। কিন্তু কেউ কেউ (কংগ্রেস) বলছিলেন, ক্ষমতায় এলে ওই ধারা আবার ফিরিয়ে আনা হবে। তারপরেও তারা বিহারে ভোট চাওয়ার সাহস পায় কীভাবে? এটা বিহারের অপমান নয়? এই রাজ্য তাদের ছেলে-মেয়েদের সীমান্তে পাঠিয়েছে দেশের নিরাপত্তা সুনিশ্চিত করতে।’

এসএইচ

মন্তব্য করুন

খবরের বিষয়বস্তুর সঙ্গে মিল আছে এবং আপত্তিজনক নয়- এমন মন্তব্যই প্রদর্শিত হবে। মন্তব্যগুলো পাঠকের নিজস্ব মতামত, ভোরের কাগজ লাইভ এর দায়ভার নেবে না।

জনপ্রিয়
close