মমতাকে দুর্গাপূজা উপহার পাঠালেন শেখ হাসিনা

আগের সংবাদ

কারো তদবিরে নয় এ পদে প্রধানমন্ত্রী আমাকে বসিয়েছেন

পরের সংবাদ

বিদ্যুৎ সংযোগ বিচ্ছিন্ন

পানির সংকটে আমন ধানের উৎপাদন ব্যাহত

প্রকাশিত: অক্টোবর ১৮, ২০২০ , ৯:৩৬ অপরাহ্ণ আপডেট: অক্টোবর ১৮, ২০২০ , ৯:৩৮ অপরাহ্ণ

যশোরের কেশবপুর উপজেলার মজিদপুর এলাকায় ভরা আমন ধান চাষের মৌসুমে পল্লী বিদ্যুৎ কর্তৃপক্ষ সেচ বিদ্যুৎ সংযোগ বিচ্ছিন্ন করায় কৃষকরা দিশেহারা হয়ে পড়েছেন। রবিবার (১৮ অক্টোবর) দুপুরে উপজেলা পরিষদ চত্বরে ক্ষতির মুখেপড়া নারী-পুরুষরা ধান গাছ নিয়ে সমবেত হন। উপজেলা সেচ কমিটির সভাপতি ও উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তার নিকট বিদ্যুৎ এর পুনঃ সংযোগ দিয়ে আমন ধান রক্ষার জন্য আবেদন করেছেন।

জানা গেছে, উপজেলার মজিদপুর গ্রামের আব্দুল আজিজের ছেলে আব্দুল গণির মালিকানাধীন সেচ মোটরে এলাকার অর্ধ শতাধিক কৃষক ২০১৪ সাল থেকে আমন ও বোরো ধান আবাদ করে আসছিল। এ সেচের আওতায় ৩০ থেকে ৩২ বিঘা জমিতে আমন ধান আবাদ চলছে। শেষ মুহুর্তে কেশবপুর পল্লী বিদ্যুৎ সমিতি সেচ সংযোগের সংযোগ লাইন ৮ অক্টোবর বিচ্ছিন্ন করে দেয়।

কৃষকরা জানান, ধানে থোড় আসার সময়ে বিদ্যুৎ সংযোগ বিচ্ছিন্ন করায় তারা অর্থনৈতিকভাবে ক্ষতিগ্রস্থ হচ্ছেন। এ মহুর্ত্বে সংযোগ না দিলে ধান আবাদ করা সম্ভব হবে না।

কেশবপুর পল্লী বিদ্যুতের ডিজি এম আব্দুল লতিফ মোড়ল সাংবাদিকদের জানান, একই এলাকার নূর আলী বিভিন্ন দপ্তরে সংযোগ বিচ্ছিন্ন করার আবেদন করলে দেখা যায় আব্দুল গণির যে স্থানে সেচ মোটর বসানোর কথা ছিল, সেটা সেখানে করেনি। তাই সংযোগ বিচ্ছিন্ন করা হয়েছে।

তবে কৃষকদের স্বার্থের কথা ও ২০১৪ সাল থেকে বিদ্যুৎ সংযোগ কীভাবে পেলো প্রশ্ন করা হলে তিনি বলেন, উপজেলা সেচ কমিটি নির্দেশনা দিলে সংযোগ দেয়া সম্ভব।

কৃষক আব্দুল হামিদ, হাফেজ আবুল কালাম, আনায়োর আলী, আব্দুল লতিফ, হাবিবুর রহমানসহ কৃষকরা জানান, এ মুহুর্তে সেচ সংযোগ চালু করা না হলে কৃষকরা অর্থনৈতিক ক্ষতিগ্রস্থ হবেন। তাদের ধান চাষের সুযোগ সৃষ্টি করা না হলে তারা ধান আবাদ রক্ষায় মানববন্ধনসহ বিভিন্ন কর্মসূচি নিতে বাধ্য হবেন।

এসআর

মন্তব্য করুন

খবরের বিষয়বস্তুর সঙ্গে মিল আছে এবং আপত্তিজনক নয়- এমন মন্তব্যই প্রদর্শিত হবে। মন্তব্যগুলো পাঠকের নিজস্ব মতামত, ভোরের কাগজ লাইভ এর দায়ভার নেবে না।

জনপ্রিয়