ভেদাভেদ ভুলে নৌকার বিজয়ে কাজ করুন

আগের সংবাদ

বিশ্বব্যাপী সাইবার হামলায় রাশিয়া জড়িত!

পরের সংবাদ

বখাটেপনায় দুর্বিষহ হয়ে উঠেছে জনজীবন

আবু জাফর

প্রকাশিত হয়েছে: সেপ্টেম্বর ৩০, ২০২০ , ৯:২৯ অপরাহ্ণ

আজকাল বখাটেপনা অতি সাধারণ একটি দৃশ্য। বিংশ শতাব্দীর এই সময়ে এসেও মানুষের মানসিকতা নোংরামিতে বন্দি হয়ে পড়ে আছে। একটুখানি বোধশক্তিও কি নেই, যে এ মেয়েটিই কারো কলিজার কন্যা, কারো বা আদরের বোন নতুবা কারো স্বর্গতুল্য মা। কে শুনে কার কথা। যৌবনের মাদকতায় দুনিয়াময় যেন শুধু নারীই দেখে তারা। নারীরা যেন তাদের চোখে শুধুই দেহ। তাদের কাউকে আবার দেখবেন নারী মুক্তি আন্দোলনের সঙ্গেও জড়িত। এগুলো বড়ই আফসোসের কথা!

সামাজিক ক্যানসারে রূপ নিয়েছে বখাটেপনা। শহরের অলি-গলি থেকে গ্রামগঞ্জেও ক্রমাগত ছড়িয়ে পড়ছে বখাটেদের উৎপাত। স্কুল-কলেজ পড়ুয়া কন্যাশিশু থেকে গৃহবধূরাও রক্ষা পাচ্ছে না বখাটেদের হাত থেকে। গত কয়েকদিন আগে সিলেটের এমসি কলেজ থেকে তুলে নিয়ে ছাত্রাবাসের একটি কক্ষে তরুণীকে ধর্ষণ করে ৪ বখাটে। ধর্ষণের ঘটনায় অভিযুক্তরা সবাই এমসি কলেজের ছাত্র। গত শুক্রবার সন্ধ্যায় একটি প্রাইভেটকারযোগে স্বামীকে সঙ্গে নিয়ে এমসি কলেজে বেড়াতে আসেন দক্ষিণ সুরমার শিববাড়ির এক তরুণী। ক্যাম্পাসের সেই ৪ বখাটে পার্শ্ববর্তী কলেজ ছাত্রাবাসেই তরুণীর স্বামীকে বেঁধে ওই তরুণীকে ধর্ষণ করে। কতটা নির্মম একটু চিন্তা করেছেন! পরে পুলিশ গিয়ে স্বামীসহ ওই তরুণীকে উদ্ধার করে। পরে তরুণীকে ওসমানী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে পাঠানো হয়। এই ৪ ধর্ষকের গণধর্ষণকেও ধামাচাপা দেয়ার চেষ্টা করেন কথিত প্রভাবশালী নামের লম্পটরা। কলেজ ছাত্রাবাস বন্ধ থাকলেও এরা প্রতিদিন ছাত্রাবাসে রাতে জুয়া ও মাদকের আসর বসাত আর দিনে করত বখাটেপনা।

অনেকটা অভিভাবকদের লাগামহীন স্বাধীনতা, প্রভাবশালী ও রাজনৈতিক পৃষ্ঠপোষকতা পেয়ে বখাটেরা আরো বেপরোয়া হচ্ছে। আজকাল বাবা-মা কন্যাসন্তানকে স্কুল-কলেজে পাঠিয়ে নিশ্চিন্তে থাকতে পারে না। অনেকে ভিকটিম হয়েও প্রতিবাদ করছেন না। প্রতিবাদ করলেই বিপদে পড়তে হয় পুরো পরিবারকে। সমাজে অনেকটা অসহায় কন্যাশিশু ও ভুক্তভোগী পরিবারগুলো। পশুতুল্য বখাটেদের উৎপাত ক্রমেই করোনা থেকেও বড় মহামারিতে রূপ নিচ্ছে।

সরজমিনে দেখা যায়, বখাটেপনায় ইতোমধ্যে অনেক কন্যাশিশু আত্মহত্যা করছে। গণধর্ষণ, অপহরণ হওয়ার পরও ভিকটিম পরিবারগুলো মামলাও করতে পারে না। কারণ তাদের হয়তো বখাটের ভয় থাকে নয়তো প্রশাসনের প্রতি অনাস্থা থাকে। আবার এদিকে বখাটে ছেলেদের পরিবারও একরকম অসহায়। কিছু বলতে গেলেই বখাটেদের হাতে নির্যাতনের শিকার হয় স্বয়ং বাবা-মা। বখাটেদের এ ধরনের পাশবিক উৎপাত বন্ধ করা এখন সময়ের দাবি। যদি এখনো সচেতন না হই ভবিষ্যতে আমাদেরই কন্যাশিশুদের ভবিষ্যৎ অন্ধকারে হারিয়ে যাবে। প্রতিটি থানায় পুলিশের টহল জোরদার করা অতীব জরুরি। সোচ্চার হতে হবে বখাটেপনা ও ধর্ষকদের বিরুদ্ধে। ধর্ষকের ধর্ম-বর্ণ নেই, হতে পারেও না। রাজনৈতিক নেতা-নেত্রী, শিক্ষক-শিক্ষিকা, প্রশাসন-সুশীল সমাজ জনসাধারণ এক কাতারে এসে বখাটেপনার বিরুদ্ধে কঠোর আন্দোলন গড়ে তুলতে হবে। নতুবা সোনার বাংলাদেশের সব অর্জন ম্লান হয়ে যাবে।

শিক্ষার্থী, কুমিল্লা বিশ্ববিদ্যালয়।

[email protected]

এসআর