বঙ্গবন্ধুর প্রতিকৃতিতে ডুয়েট নতুন ভিসির শ্রদ্ধা নিবেদন

আগের সংবাদ

স্বামীর জন্য রক্ত জোগাড় করতে গিয়ে ধর্ষণের শিকার গৃহবধূ

পরের সংবাদ

প্রধানমন্ত্রীর মানবিক সহায়তার টাকা আত্মসাত চৌকিদারের

প্রকাশিত: সেপ্টেম্বর ২৬, ২০২০ , ১০:০০ অপরাহ্ণ আপডেট: সেপ্টেম্বর ২৬, ২০২০ , ১০:০৩ অপরাহ্ণ

করোনাকালীন প্রধানমন্ত্রীর দেয়া মানবিক সহায়তার অর্ধশতাধিক ব্যক্তির টাকা হাতিয়ে নিয়েছেন ইউনিয়ন পরিষদের এক চৌকিদার। এই বিষয়ে ভুক্তভোগীরা লামা উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তার (ইউএনও) কাছে লিখিতভাবে অভিযোগ দিয়েছেন। তবে ইউএনও অভিযোগ পেয়েও নিরবতা পালন করছেন বলে জানিয়েছেন ভুক্তভোগীরা। এই বিষয়ে ইউএনও মো. রেজা রশিদ বলেন, স্থানীয়দের কাছ থেকে লিখিত অভিযোগ পেয়েছি। আইনগত ব্যবস্থা নেয়ার জন্য অভিযোগটি থানায় পাঠানো হয়েছে।

তবে লামা থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) মো. মিজানুর রহমান বলেছেন ভিন্ন কথা। ওসি বলেন, ওই চৌকিদার আত্মসাতকৃত টাকা ভুক্তভোগীদের দিয়ে দিয়েছেন। এখন কেউ বাদী হয়ে থানায় লিখিত অভিযোগ করলে পরবর্তী আইনগত ব্যবস্থা নেয়া হবে।

স্থানীয়দের অভিযোগ, রূপসীপাড়া ইউনিয়নের ৭নং ওয়ার্ডের চৌকিদার বেলাল হোসেন প্রধানমন্ত্রীর দেয়া মানবিক সহায়তার আড়াই হাজার টাকা করে শতাধিক ব্যক্তির প্রায় আড়াই লক্ষ টাকা নিজের মোবাইল বিকাশে নিয়ে নেয়। এই ঘটনায় প্রথমে ১১ জন অসহায় ব্যক্তি ইউএনও বরাবরে লিখিত অভিযোগ দায়ের করেন।

মোহাম্মদ সুমন নামের এক অভিযোগকারী জানান, চৌকিদার বেলাল হোসেন বিকাশে টাকা এসেছে কিনা তা যাচাই করার জন্য তাঁর কাছে যান। ওই সময় বেলাল বিকাশ ব্যালেন্স চেক করার ছলে সেই টাকা নিজের বিকাশ নম্বরে নিয়ে নেন।

অপর অভিযোগকারী মমতাজ বেগম বলেন, বেলাল চৌকিদার আমাদের পূর্বপরিচিত। যে কোনো সময় পরিষদে গেলেই তাঁর দেখা মেলে। সেই সুবাধে বিকাশে টাকা এসেছে কিনা যাচাইয়ের জন্য তাঁর কাছে যাই। তবে বেলাল ব্যালেন্স চেক করার ছলে আমার ২ হাজার ৫০০ টাকা তাঁর নিজের মোবাইলে নিয়ে যায়। একই ধরনের অভিযোগ স্থানীয় শতাধিক ভুক্তভোগী ব্যক্তির।

একাধিক ভুক্তভোগী আক্ষেপ করে বলেন, প্রধানমন্ত্রীর দেয়া মানবিক সহায়তার টাকা বেলাল চৌকিদার প্রতারণার মাধ্যমে আত্মসাত করে। ২ সেপ্টেম্বর ইউএনওর দপ্তরে সশরীরে উপস্থিত হয়ে অভিযোগ দেই। ইউএনও সরেজমিন পরিদর্শন করে আইনগত ব্যবস্থা নিবেন এই আশা ছিল। তবে এই বিষয়ে কোনো প্রদক্ষেপ নিতে দেখা যায়নি।

স্থানীয় ইউনিয়ন পরিষদের মেম্বার আবদুল মান্নান জানান, সাধারণ মানুষের সরলতার সুযোগ নিয়ে বেলাল চৌকিদার অসংখ্য মানুষের মানবিক সহায়তার টাকা আত্মসাত করেছে। এটা খুবই দুঃখ জনক।

ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান ছাচিং প্রু মারমা বলেন, ইউএনও মহোদয়কে অভিযোগ দেয়ার ২৪ দিন অতিবাহিত হলো। এখন পর্যন্ত কোনো ব্যবস্থা না নেয়ায় ভুক্তভোগীদের মধ্যে হতাশা নেমে এসেছে।

প্রধানমন্ত্রীর মানবিক সহায়তার টাকা আত্মসাতের বিষয়ে চৌকিদার বেলাল হোসেন বলেন, সোলার প্যানেল বিতরণের সময় কিছু লোক বিকাশ থেকে টাকা ক্যাশ আউট করার জন্য আমাকে দিয়েছে। সেসব টাকা আমার কাছে আছে। আমি পালাইয়া যাইনি। সহায়তা প্রাপ্তদের বলে দিয়েছি, টাকা লাগলে এসে নিয়ে যেতে।

এসআর

মন্তব্য করুন

খবরের বিষয়বস্তুর সঙ্গে মিল আছে এবং আপত্তিজনক নয়- এমন মন্তব্যই প্রদর্শিত হবে। মন্তব্যগুলো পাঠকের নিজস্ব মতামত, ভোরের কাগজ লাইভ এর দায়ভার নেবে না।

জনপ্রিয়