রিজেন্ট চুক্তিতে স্বাস্থ্যের চারজন

আগের সংবাদ

আলাউদ্দীনের সাফল্যে অন্যরাও পাবদা চাষে হচ্ছেন আগ্রহী

পরের সংবাদ

দেশের প্রবৃদ্ধি এশিয়ায় সবচেয়ে ওপরে

প্রকাশিত: সেপ্টেম্বর ২৩, ২০২০ , ৬:৫৯ অপরাহ্ণ আপডেট: সেপ্টেম্বর ২৩, ২০২০ , ৮:৩১ অপরাহ্ণ

তথ্যমন্ত্রী ও আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক ড. হাছান মাহমুদ বলেছেন, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার গতিশীল নেতৃত্বের কারণেই করোনা মহামারির মধ্যেও দেশের অর্থনীতির চাকা সচল থেকেছে। ফলে আমাদের অর্থনৈতিক প্রবৃদ্ধি এশিয়ার প্রায় সব দেশের ওপরে।

বুধবার (২৩ সেপ্টেম্বর) সচিবালয়ে তথ্য মন্ত্রণালয় সভাকক্ষে সমসাময়িক বিষয়ে সাংবাদিকদের সঙ্গে মতবিনিময়কালে তিনি একথা বলেন। এসময় তথ্যমন্ত্রী করোনাকালে সাংবাদিকদের সাহসী ভূমিকার প্রশংসার মৃত্যুবরণকারী সাংবাদিকদের আত্মার শান্তি ও আক্রান্তদের দ্রুত আরোগ্য কামনা করেন।

এডিবি প্রকাশিত ২০২০ সালে এশিয়ার দেশগুলোর জিডিপি প্রবৃদ্ধির উদ্ধৃতি দিয়ে তথ্যমন্ত্রী বলেন, ২০২০ সালে বাংলাদেশের জিডিপি প্রবৃদ্ধি ৫ দশমিক ২ শতাংশ, যেখানে ভারতের প্রবৃদ্ধি ঋণাত্মক ০ দশমিক ৯, পাকিস্তানের ঋণাত্মক ০ দশমিক ৪, শ্রীলঙ্কার ঋণাত্মক ৫ দশমিক ৫, চীনের ১ দশমিক ৮, থাইল্যান্ডের ঋণাত্মক ৮, ফিলিপাইনের ঋণাত্মক ৭ দশমিক ৩, সিঙ্গাপুরের ঋণাত্মক ৬ দশমিক ২।

ড. হাছান বলেন, করোনায় যখন পৃথিবী স্তব্ধ, বাংলাদেশেও সবকিছু ছুটি ঘোষণা করা হলো, তখন অনেকেই দেশ নিয়ে নানা আশঙ্কা-শঙ্কা করেছিলেন। কারণ বাংলাদেশ একটি মধ্যম আয়ের উন্নয়নশীল খেটে খাওয়া মানুষের দেশ। যে দেশে কোটি কোটি মানুষ প্রাত্যহিক উপার্জনের ওপর নির্ভরশীল। এখানে ভয়াবহ পরিস্থিতি হতে পারে। কিন্তু দেশি-বিদেশি বিশেষজ্ঞদের সকল শঙ্কা-আশঙ্কা মিথ্যে প্রমাণ হলো। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সঠিক নেতৃত্ব, সময়োচিত পদক্ষেপ, মানুষের জন্য আর্থিক সহায়তা, খাদ্য সহায়তা, অর্থনীতিকে বাঁচানোর জন্য অর্থনৈতিক প্রণোদনা ঘোষণা এবং বাস্তবায়নের কারণে দেশে সাড়ে ৬ মাসে অনাহারে একজন মানুষেরও মৃত্যু হয়নি, খাদ্যের জন্য কখনো কোথাও হাহাকার হয়নি।

তথ্যমন্ত্রী বলেন, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা মানুষকে এই দুর্যোগ মোকাবিলায় আওয়ামী লীগের সমস্ত নেতাকর্মীকে সম্পৃক্ত করেছেন। নেতাকর্মীরা এই দুর্যোগ মোকাবিলায় ঝাঁপিয়ে পড়েছেন। গত সাড়ে ৬ মাস প্রধানমন্ত্রী একদিনও বসে থাকেননি, কাজ করছেন। শুধু মন্ত্রিসভার বৈঠক বা একনেক সভায়ই নয়, বিভিন্ন জেলা ও বিভাগের সঙ্গে অনলাইনে বৈঠক করছেন, অন্যান্য কাজও করছেন। এই সময় অনেক দেশে কাজকর্ম বন্ধ থাকলেও আমাদের দেশে তা হয়নি। সেই কারণে আমাদের অর্থনীতির চাকা সচল থেকেছে, এশিয়ার প্রায় সমস্ত দেশকে পেছনে ফেলেছে।

করোনা পরিস্থিতি নিয়ে তথ্যমন্ত্রী বলেন, করোনা মোকাবিলায় অনেক আলোচনা-সমালোচনা আছে। যদি পরিসংখ্যানের দিকে তাকাই, তাহলে এক্ষেত্রেও বাংলাদেশ অনেক দেশের তুলনায় ভালো অবস্থানে। আমাদের দেশে মৃত্যুর হার ১ দশকি ৪, ভারতে ১ দশমিক ৬, পাকিস্তানে ২ দশমিক ০৯, যুক্তরাজ্যে ১০ দশমিক ৩৬, বেলজিয়ামে ৯ দশমিক ৪৬, ফ্রান্সে ৬ দশমিক ৭১, জার্মানিতে ৩ দশমিক ৪২ ও যুক্তরাষ্ট্রে ৩ শতাংশের মতো। বাংলাদেশে আক্রান্তদের মধ্যে মৃত্যুর হার আরো কম হতো যদি আরো ব্যাপকভাবে মানুষ পরীক্ষা করতো। পরীক্ষার হার নিয়েও যে বক্তব্য আছে, সেটি নিয়েও বলতে চাই বাংলাদেশে যে পরিমাণ পরীক্ষা-নিরীক্ষা হচ্ছে সেটি প্রায় জাপানের কাছাকাছি। অর্থাৎ এক্ষেত্রেও আমরা অনেক দেশের তুলনায় ভালো অবস্থানে আছি।

এসএইচ

মন্তব্য করুন

যে মন্তব্যগুলো খবরের বিষয়বস্তুর সাথে মিল আছে এবং আপত্তিজনক হবে না সেই মন্তব্যগুলোই দেখানো হবে। প্রকাশিত মন্তগুলো পাঠকের নিজস্ব মতামত। পাঠকের কোন মন্তব্যের জন্য ভোরের কাগজ লাইভ কোন দায়ভার গ্রহণ করবে না।

জনপ্রিয়