সুরমা সেতু এ্যাপ্রোচ সড়ক ও টোল প্লাজা নির্মাণ কাজের উদ্বোধন

আগের সংবাদ

চীন সেনার অবস্থান নিয়ে বিস্ফোরক তথ্য রাজনাথের

পরের সংবাদ

প্রতারণার ফাঁদ পেতে ৪০ লাখ টাকা নিয়ে লাপাত্তা জাহিদ

প্রকাশিত: সেপ্টেম্বর ১৭, ২০২০ , ৪:৫৫ অপরাহ্ণ আপডেট: সেপ্টেম্বর ১৭, ২০২০ , ১০:০২ অপরাহ্ণ

প্রতারণার ফাঁদ পেতে ১৫ ব্যবসায়ীর ৪০ লাখ টাকা নিয়ে জাহিদ হাসান নামের এক পাইকারী ব্যবসায়ী লাপাত্তা হয়েছেন। ১২ সেপ্টেম্বর থেকে রাজধানীর গুলিস্তান সুন্দরবন স্কয়ার মার্কেটের ব্যবসায়িক প্রতিষ্ঠান জাহিদ টেলিকম তালাবদ্ধ রয়েছে। এ ঘটনায় নাটোরের গুরুদাসপুর উপজেলার এক ক্ষতিগ্রস্ত ক্ষুদ্র ব্যবসায়ী আব্দুস সালাম বাদী হয়ে নাটোর আদালতে একটি মামলা দায়ের করেছেন।

খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, ব্যবসায়ী আব্দুস সালাম নাটোরের গুরুদাসপুর উপজেলার স্থায়ী বাসিন্দা। তিনি ঢাকার জাহিদ টেলিকম থেকে পাইকারী দরে মোবাইল ফোন কিনে গুরুদাসপুর পৌর সদরের চাঁচকৈড়সহ আশপাশের বাজারে বিক্রি করতেন। তিনি ব্যাংকের মাধ্যমে টাকা লেনদেন করে কুরিয়ার সার্ভিসের মাধ্যমে মালামাল আনা নেয়া করতেন দীর্ঘদিন ধরে। ৮ সেপ্টেম্বর ৮ শত থেকে শুরু করে ১০ হাজার ৩ শত টাকার মধ্যে সিম্ফনি, রিয়েলমি, নোকিয়াসহ ১০৪টি মোবাইল সেট ক্রয় করেন। এসব পণ্যের মূল্য বাবদ ইসলামি ব্যাংক চাঁচকৈড় শাখার মাধ্যমে (চালান নং- ডিজি ১৯৯৩১৯০) ২ লাখ ৩২ হাজার টাকা জাহিদকে পাঠান তিনি।

ক্ষতিগ্রস্থ ব্যবসায়ী আব্দুস সালাম জানান, ব্যবসায়িক সূত্রে তিনি এভাবেই মালামাল ক্রয়-বিক্রয় করছিলেন। সর্বশেষ ১০৪টি মোবাইল ফোন কেনার পর নির্দিষ্ট সময় পেরিয়ে গেলেও পাইকার ব্যবসায়ী জাহিদ ওই মোবাইল সেটগুলো না পাঠিয়ে সময়ক্ষেপণ করছিলেন। এক পর্যায়ে মোবাইল ফোনে যোগাযোগও বন্ধ করে দেন জাহিদ। পরে ঢাকা গিয়ে জাহিদের ব্যবসা প্রতিষ্ঠান বন্ধ পাওয়া যায়। তার মতো আরো ১৫জন ব্যবসায়ী ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছেন বলে খোঁজ নিয়ে তিনি জানতে পারেন।

ওই মার্কেটের ব্যবসায়ী রবিউল আউয়াল প্রধান জাহিদের ব্যবসায়িক অংশীদার। রবিউল আউয়াল বলেন, তিনিও জাহিদের কাছে টাকা পাবেন। তবে আব্দুস সালামের দায়ের করা প্রতারণা মামলায় জাহিদ ছাড়াও জাহিদের ব্যবসায়িক অংশীদার রবিউল আউয়াল প্রধান, একই মার্কেটের ব্যবসায়ী জাহিদের শ্বশুর মতিউর রহমান বাচ্চু ও আপন ভগ্নিপতি মাসুমকে অভিযুক্ত করা হয়েছে।

লালমনিরহাটের ক্ষুদ্র ব্যবসায়ী মানসুর, ইকবাল হোসেন, আমিন, গোপীবাগের আব্দুস সাত্তারসহ ১৫ ব্যবসায়ী বলেন, বিশ্বাস করে জাহিদের সঙ্গে তারা ব্যবসা করছিলেন। কিন্তু প্রতারক জাহিদের খপ্পড়ে পরে সব হারিয়ে নিঃস্ব হয়ে গেছেন তারা।

রাজধানীর গুলিস্তান সুন্দরবন স্কয়ার মার্কেটের ব্যবসায়ী সংগঠনের সাংগঠনিক সম্পাদক সাজু বলেন, তারা বিষয়টি নিয়ে পুলিশের শরণাপন্ন হয়েছেন। কমিটির পক্ষ থেকে চেষ্টা চালানো হচ্ছে।

অভিযুক্ত জাহিদের মোবাইল ফোন বন্ধ থাকায় তার কোনো বক্তব্য পাওয়া যায়নি। তবে জাহিদের শ্বশুর মতিউর রহমান বাচ্চু বলেন, পারিবারিক মতামত উপেক্ষা করে জাহিদ তার মেয়েকে বিয়ে করেছেন। জাহিদের প্রতারণার ব্যাপারে তার কোনো হাত নেই।

গুরুদাসপুর থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) মো. মোজাহারুল ইসলাম বলেন, মামলার নথি পেলে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেয়া হবে।

এসআর

মন্তব্য করুন

খবরের বিষয়বস্তুর সঙ্গে মিল আছে এবং আপত্তিজনক নয়- এমন মন্তব্যই প্রদর্শিত হবে। মন্তব্যগুলো পাঠকের নিজস্ব মতামত, ভোরের কাগজ লাইভ এর দায়ভার নেবে না।

জনপ্রিয়