জাপানের নতুন প্রধানমন্ত্রীকে শেখ হাসিনার শুভেচ্ছা

আগের সংবাদ

পেঁয়াজ নিয়ে মন্ত্রী ও সচিবের মতভেদ

পরের সংবাদ

যাত্রীভর্তি ট্রেনে স্বস্তি-ভীতি

কাগজ প্রতিবেদক

প্রকাশিত হয়েছে: সেপ্টেম্বর ১৬, ২০২০ , ৩:২৬ অপরাহ্ণ

প্রায় ছয় মাস পর অনান্য যানবাহনের মত আজ থেকে শতভাগ যাত্রী নিয়ে ছুটলো ট্রেন। বুধবার (১৬ সেপ্টেম্বর) থেকে আগের মতো প্রতি আসনে যাত্রী নেওয়া হচ্ছে। ফলে দীর্ঘদিন পর ট্রেনের টিকেট শতভাগ করায় কাউন্টারে বিক্রি বেড়ে যাওয়ায় স্বস্তি প্রকাশ করেছেন সাধারণ যাত্রীরা।

এদিকে আজ থেকে ট্রেনের শতভাগ টিকিট বিক্রি শুরু করেছে বাংলাদেশ রেলওয়ে। ট্রেনের ৫০ ভাগ টিকিট কাউন্টারে এবং বাকি ৫০ ভাগ অনলাইনে মিলছে। আজ থেকে প্রতিটি সিটে যাত্রী পাশাপশি বসলেও আন্তঃনগর সব ট্রেনে স্ট্যান্ডিং টিকিট বিক্রি বন্ধ থাকছে বলে জানিয়েছে রেল কর্তৃপক্ষ। শতভাগ টিকিট দেওয়ার ফলে অনলাইন ও স্টেশনের কাউন্টারে টিকিট প্রত্যাশীদের ভিড় দেখা গেছে। তবে পাশাপশি বসে দুর পাল্লার ট্রেন যাত্রায় করোনা ঝুকি থাকতে পারে বলে কিছুটা ভীত যাত্রীরা। সুবর্ণা নামে রাজশাহীর এক যাত্রী বলেন, পাশাপশি বসে যাব, পাশের যাত্রী কোন ভাইরাস বহন করছেন কিনা সে নিয়ে ভয়ে আছি। তিনি রেলওয়েকে যাত্রীর তাপমাত্রা মাপা এবং স্বাস্থ্য পরীক্ষা করার দাবি জানান তিনি।

কাউন্টার থেকে ট্রেনের টিকিট সংগ্রহ করছেন যাত্রীরা। ছবিটি রাজধানীর কমলাপুর রেলস্টেশন থেকে তোলা। ছবি: ভোরের কাগজ।

গতকাল মঙ্গলবার (১৫ সেপ্টেম্বর) রেলওয়ের উপপরিচালক মো. নাহিদ হাসান খানের সই করা এক বার্তায় আজ থেকে ট্রেনের শতভাগ টিকিট বিক্রির কথা জানানো হয়। কমলাপুর ও বিমানবন্দর স্টেশনে টিকিট ছাড়া প্ল্যাটফর্মে প্রবেশের সুযোগও বন্ধ করা হয়েছে। এতে ট্রেনে অতিরিক্ত যাত্রী দাঁড়িয়ে নেওয়ার সুযোগ কমেছে অসাধু রেল কর্মকর্তাদের।

বুধবার সকালে সরজমিন কমলাপুর রেলস্টেশনে গিয়ে দেখা যায়, স্বাস্থ্যবিধি মেনে কাউন্টারে ট্রেনের ৫০ শতাংশ টিকিট বিক্রি করা হচ্ছে।টিকেট প্রত্যাশীদের ভিড়ও রয়েছে। টিকিট কেনার সময় দূরত্ব বজায় রাখতে আইন শৃঙ্খলা বাহিনী কাজ করছে। প্ল্যাটফর্মের প্রবেশপথে রয়েছে হ্যান্ড স্যানিটাইজার। শতভাগ টিকিট দেওয়ার ফলে অনলাইন ও কাউন্টার থেকে যাত্রার ১০ দিন আগে অগ্রিম টিকিট কিনতে পারছেন যাত্রীরা।

কমলাপুর স্টেশন। ফাইল ছবি।

কমলাপুর স্টেশনের ম্যানেজার মোহাম্মদ মাসুদ সারোয়ার বলেন, রেলওয়ের নির্দেশমত আজ থেকে আমরা শতভাগ টিকেট বিক্রি শুরু করেছি। টিকেট কিনতে আসা যাত্রীদের নিরাপদ দুরত্ব ও স্বাস্থ্যবিধি মেনে লাইনে দাড়ানোর জন্য অনুরোধ করা হচ্ছে। অনেক দিন পর সব আসনে যাত্রী নিয়ে চলছে ট্রেনগুলো। যাত্রীদের স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলতে উৎসাহিত করা হচ্ছে। মোবাইল অ্যাপ-অনলাইনে ৫০ শতাংশ টিকিট ও স্টেশন কাউন্টার থেকে ৫০ শতাংশ টিকিট বিক্রি করা হচ্ছে। ভোর ৬টা থেকে অনলাইনে ও সকাল ৮টা থেকে কাউন্টারে টিকিট কাটতে পারবেন যাত্রীরা। টিকেট সংখ্যা বেড়ে যাওয়ায় যাত্রীরা স্বস্তিবোধ করছেন বলে জানান তিনি।

দেশে করোনা ভাইরাসের সংক্রমণ বাড়ায় গত ২৪ মার্চ রাত থেকে ট্রেন চলাচল বন্ধ করে দেয়া হয়েছিল। দুই মাস পর গত ৩১ মে থেকে সীমিত পরিসরে আন্তঃনগর ট্রেন চালু করা হয়। তারপর কয়েকটি ধাপে মোট ১০৯ জোড়া অর্থাৎ ২১৮টি যাত্রীবাহী ট্রেন চালু করা হয়েছে। সব মিলে সারা দেশে ৩৬২টি যাত্রীবাহী ট্রেন চলাচল করে। পর পর সব ট্রেন চালু করা হবে বলে রেলসূত্রে জানা গেছে।

পিআর