এক সপ্তাহের মধ্যে উপকমিটির তালিকা জমা দেয়ার আহবান

আগের সংবাদ

মিথ্যা মামলার শিকার প্রবাসী পরিবার

পরের সংবাদ

ভিসিসহ ৩ গুরুত্বপূর্ণ পদ খালি শেকৃবির

শেকৃবি প্রতিনিধি

প্রকাশিত হয়েছে: সেপ্টেম্বর ১৬, ২০২০ , ৪:৩৯ অপরাহ্ণ

রাজধানীর শেরেবাংলা কৃষি বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য অধ্যাপক ড. কামাল উদ্দিন আহাম্মদ মেয়াদ শেষে বিদায় নিয়েছেন গত ১৪ আগস্ট। মেয়াদ শেষ হওয়ার একই দিনে বিদায় নিয়েছেন উপ-উপাচার্য ড.মো.সেকেন্দার আলী এবং ট্রেজারার ড.মো.আনোয়ারুল হক বেগ। তাই শীর্ষ তিনটি পদ খালি থাকায় অনেকটা অভিভাবকহীন হয়ে পড়েছে বিশ্ববিদ্যালয়টি। এমনকি উপাচার্য ও ট্রেজারার না থাকায় এ বিশ্ববিদ্যালয়ে শিক্ষক, কর্মকর্তা ও কর্মচারীদের আগস্ট ও সেপ্টেম্বর মাসের বেতন পাওয়া নিয়ে তৈরী হয়েছে সংশয়। বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষকদের মধ্য থেকেই যোগ্য প্রার্থীদের উপাচার্য, উপ-উপাচার্য ও কোষাধ্যক্ষের পদে অতি দ্রুত নিয়োগের দাবি জানিয়েছেন এ বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষক,কর্মকর্তা ও কর্মচারীরা।

এব্যাপারে সদ্য সাবেক ট্রেজারার ড.মো.আনোয়ারুল হক বেগ জানান, গুরুত্বপূর্ণ পদগুলো শুন্য থাকায় আগস্ট মাসের বেতন পায়নি কেউ। আগামী ২০ তারিখের মধ্যে নিয়োগ কাজ সম্পন্ন না হলে সেপ্টেম্বর মাসের বেতন নিয়েও তৈরি হবে জটিলতা। যেহেতু মাসের ২০ তারিখ থেকে বেতন প্রদানের কাজ শুরু হয় এবং ২৮-২৯ তারিখের দিকে ব্যাংকে টাকা আসতে শুরু করে। তাই আমি বলবো এই করোনার সংকটময় সময়ে দ্রুত নিয়োগ কাজ সম্পন্ন করলে সকল শিক্ষক, কর্মকর্তা, কার্মচারীদের জন্য কল্যানকর হয়।

বিশ্ববিদ্যালয়ের জনসংযোগ কর্মকর্তা মো.বশিরুল ইসলাম জানান, উপাচার্যের অনুমতি ছাড়া বিশ্ববিদ্যালয়ে কর্মরত শিক্ষক, কর্মকর্তা ও কর্মচারীদের বেতন তোলা, ফল প্রকাশ করা, ফাইল অনুমোদন করাসহ বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রয়োজনে জরুরি কোনো সিদ্ধান্ত নেওয়া সম্ভব নয়।

ইতোমধ্যেই শীর্ষ এই তিন পদে নিয়োগ পেতে প্রায় ১৮ জন শিক্ষক সংশ্লিষ্ট দফতরে জীবনবৃত্তান্ত জমা দিয়েছেন বলে জানা যায়। কবে নাগাদ বিশ্ববিদ্যালয়টি অভিভাবক পাচ্ছে, তা নিয়ে ব্যাপক ধোঁয়াশারও সৃষ্টি হয়েছে।

এ বিশ্ববিদ্যালয়ের সদ‍্য সাবেক উপাচার্য অধ্যাপক ড. কামাল উদ্দিন আহাম্মদ পূনরায় উপাচার্য হতে পারেন অথবা সাবেক উপ-উপাচার্য অধ্যাপক ড. শহীদুর রশীদ ভুঁইয়া উপাচার্য হতে পারেন বলে ক্যাম্পাসে গুঞ্জন চলছে। এছাড়াও এ পদের জন্য জীবন বৃত্তান্ত জমা দিয়েছেন সদ‍্য সাবেক উপ-উপাচার্য অধ্যাপক ড. মো. সেকেন্দার আলী এবং কোষাধ্যক্ষ অধ্যাপক ড. মো. আনোয়ারুল হক বেগ।

এছাড়াও গুঞ্জন রয়েছে উপ-উপাচার্য পদে আসতে পারেন মৃত্তিকা বিজ্ঞান বিভাগের অধ্যাপক ড. অলক কুমার পাল অথবা কীটতত্ত্ব বিভাগের অধ্যাপক ড. মোহাম্মদ আলী। ট্রেজারার পদে শিক্ষক সমিতির সভাপতি অধ্যাপক ড. নজরুল ইসলাম এবং সাধারণ সম্পাদক অধ্যাপক ড. মিজানুর রহমানের মধ্যে কেউ আসতে পারেন বলে ধারনা করা হচ্ছে।

ডিসি