করোনায় কমেছে মৃত্যু ও শনাক্ত

আগের সংবাদ

পুত্র সন্তানের মা হলেন শুভশ্রী

পরের সংবাদ

তবুও ভাবি, আমি তো বেঁচে আছি

প্রকাশিত: সেপ্টেম্বর ১২, ২০২০ , ৪:২০ অপরাহ্ণ আপডেট: সেপ্টেম্বর ১২, ২০২০ , ৪:২৩ অপরাহ্ণ

১৯৭৫-এর ১২ সেপ্টেম্বর আমাকে যখন ময়মনসিংহ কারাগারের কনডেম সেলে (যেখানে ফাঁসির আসামিদের রাখা হয়) নিয়ে গেল তখন আমার কাছে মনে হয়েছে যে আমি স্বর্গে এসেছি। এটা আমার জন্য বেহেস্ত। যেখানে ফাঁসির আসামিকে রাখা হয় সেখানে সূর্যের আলো-বাতাস অনুভব করা যায় না। কারণ ১৫ আগস্টের বিভীষিকাময় দিনটির শুরু থেকেই আমার ওপর যে অমানুষিক নির্যাতন করা হয়েছিল, তাতে আমি না পারি হাঁটতে, না পারি দাঁড়াতে। আমার অবস্থা ছিল এতটাই করুণ।

১৫ আগস্ট থেকেই খুনি চক্র আমাকে গৃহবন্দি করে রেখেছিল। গৃহবন্দি অবস্থায় ঘাতকের দল আমার ওপর তিনবার ভয়াবহ নির্যাতন চালায়। ১৭ আগস্ট মেজর শাহরিয়ার (যার ফাঁসি কার্যকর হয়েছে) এবং ক্যাপ্টেন মাজেদ (সম্প্রতি যার ফাঁসি হয়েছে) এই দুজন বাসা থেকে টেনেহিঁচড়ে আমাকে রেডিও স্টেশনে নিয়ে যায়। আমার মা তখন বেহুঁশ। সেখানে আমার ওপর নির্মম নির্যাতন চালানো হয়। ১৮ আগস্ট আমার বাসায় তৎকালীন ব্রিগেডিয়ার শাফায়েত জামিল এবং সাবেক নির্বাচন কমিশনার ব্রিগেডিয়ার সাখাওয়াত হোসেন (তখন মেজর ছিলেন) আমার সঙ্গে দেখা করতে আসেন এবং গোপন কিছু কথা বলেন। তারা চলে যাওয়ার পর আমার ওপর খুনি চক্রের নির্যাতন বেড়ে যায়। যে কথা শাফায়েত জামিল তার বইতে লিখেছেন এবং ব্রিগেডিয়ার সাখাওয়াতও তার বইতে উল্লেখ করেছেন যে আমার ওপর কি ধরনের অত্যাচার হয়েছে। ২৩ আগস্ট আমাকে এবং জিল্লুর রহমানকে (প্রয়াত রাষ্ট্রপতি) বঙ্গভবনে খুনি মোশতাকের কাছে ই এ চৌধুরী নিয়ে যান। ই এ চৌধুরী তখন ডিআইজি এবং স্পেশাল ব্রাঞ্চের প্রধান। সেখানে আমাদের ভয়ভীতি দেখানো হয় এবং খুনি খোন্দকার মোশতাক সরকারকে সমর্থনের জন্য প্রচণ্ড চাপ সৃষ্টি করা হয়। আমরা যখন কিছুতেই রাজি হইনি, তখন খুনি মোশতাক ভীতি প্রদর্শন করে ইংরেজিতে বলেছিল, You are waking on grave. If somebody enter your house and killed you, nobody will take responsibility. খুনি সরকারের সপক্ষে সম্মতি আদায়ে ব্যর্থ হয়ে আমাদের বাসভবনে ফিরিয়ে দেয়। এরপরই আনুষ্ঠানিকভাবে আমাকে ৬ সেপ্টেম্বর গ্রেপ্তার করা হয়। আমি, জিল্লুর ভাই, রাজ্জাক ভাই (প্রয়াত শ্রদ্ধেয় নেতা) এবং আবিদুর রহমান (তৎকালীন ‘দি পিপল’ পত্রিকার সম্পাদক)- এই চারজনকে গ্রেপ্তার করে পুলিশ কন্ট্রোল রুমে রাখে। সেখানে প্রায় ৩০ জন সেনাবাহিনীর কর্মকর্তা পুলিশ কন্ট্রোল রুম ঘিরে রাখে। প্রত্যেক দিন আমার ওপর সেনা সদস্যরা দুর্ব্যবহার করে। পুলিশ কন্ট্রোল রুমের বন্দিদশা থেকেই একদিন খুনি চক্র আমাকে রেডিও স্টেশনে নিয়ে যায়। সেদিন রাতে আমি এবং রাজ্জাক ভাই একটি কক্ষে এক সঙ্গে ঘুমাচ্ছিলাম।

জিল্লুর রহমান ও আবিদুর রহমান আরেকটি কক্ষে ছিলেন। হঠাৎ একদিন রাত ৩টার দিকে মেজর মহিউদ্দিন, মেজর হুদা, মেজর শাহরিয়ার আমাদের কক্ষে ঢুকেই চিৎকার করে বলে, ‘হু ইজ তোফায়েল’, ‘হু ইজ তোফায়েল’। রাজ্জাক ভাই আমার আগে জেগে উঠেন এবং আমাকে দেখিয়ে দেন। আমাকে দেখেই তারা আমার বুকে স্টেনগান চেপে ধরে। চোখের সামনে মৃত্যু উপস্থিত বিধায় সৃষ্টিকর্তার নাম স্মরণ করে বলি, ‘লা ইলাহা ইল্লাল্লাহু মুহাম্মাদুর রাসুলুল্লাহ।’ মৃত্যু তখন সন্নিকটে। আমি ওজু করার জন্য তাদের নিকট অনুরোধ করি। পাশেই বাথরুম ছিল। সেখানে আমাকে ওজু করতে দেয়। ওজু করে আসার পর খুনিরা আমার চোখ বাঁধে। আমি সহবন্দিদের কাছ থেকে বিদায় নেই এবং ভাবি আজই আমার শেষ দিন। তারপর বারান্দায় নিয়ে আমার দুহাত পিছমোড়া করে বাঁধে। এরপর মিনিট পাঁচেকের মধ্যে কোথাও নিয়ে যায়। অনুমান করি এটি রেডিও স্টেশন। পরে জেনেছি স্থানটি রেডিও স্টেশনই ছিল। সেখানে নিয়ে আমার হাতের বাঁধন খুলে চেয়ারের সঙ্গে বেঁধে অকথ্য নির্যাতন চালানো হয়। আমাকে বিভিন্ন প্রশ্ন করা হয়। চোখ বাঁধা থাকায় ইন্টারোগেশনকালে কারা প্রশ্ন করেছিল বুঝতে না পারলেও খুনি ডালিমের কণ্ঠস্বর স্পষ্ট চিনতে পেরেছি। ডালিম বলছিল, ‘শেখ মুজিব মেজর ডালিমকে ভালবাসত। কিন্তু শেখ মুজিব আমাকে আর্মি থেকে ডিসমিস করেছে। ‘Sheikh Mujib he is to loved Dalim very much, but he has been dismissed me from the army and Mr. Tofail you…’ বলেই সে বাম হাত দিয়ে আমাকে ঘুষি মারতে থাকে। তার ডান হাত নষ্ট ছিল। বঙ্গবন্ধু লন্ডনে তার চিকিৎসার ব্যবস্থা করিয়েছিলেন। সে যে বাম হাত দিয়ে ঘুষি মেরেছে আমি তা অনুমান করি। এরপর শুরু হয় প্রশ্নের পর প্রশ্ন। বঙ্গবন্ধুর ফান্ড ছিল আমার কাছে, রক্ষীবাহিনী, রক্ষীবাহিনীর অস্ত্র এসব বিষয়াদি নিয়ে লাগাতার প্রশ্ন করা হয়। এক পর্যায়ে তারা আমাকে রেখে নিজেদের মধ্যে শলা-পরামর্শ করে যে, আমাকে কী করবে? পরে অনেকগুলো প্রশ্ন করে খুনিরা আমাকে বলে, এই প্রশ্নগুলোর উত্তর দিতে হবে। কোথায় শেখ মুজিবের ফান্ড, কোথায় আমার অস্ত্র গেছে ইত্যাদি। খুনিরা আমায় বলে, ‘তোমার প্রাইভেট সেক্রেটারিকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে, সে ৬০ পৃষ্ঠার স্টেটমেন্ট দিয়েছে। সেখানে লেখা আছে তুমি কাকে কাকে অস্ত্র দিয়েছ। রক্ষীবাহিনীর ওখানে (রক্ষীবাহিনীর হেডকোয়ার্টার) গিয়ে তুমি পাল্টা কিছু করতে চেয়েছিলে।’

সেদিন ১৫ আগস্টের সকালে যখন রেডিওতে ডালিমের কণ্ঠস্বর শুনলাম তখন আমি সেনাবাহিনী প্রধান শফিউল্লাহ, তৎকালীন প্রধানমন্ত্রী ক্যাপ্টেন এম মনসুর আলী সাহেব, ভাইস প্রেসিডেন্ট সৈয়দ নজরুল ইসলাম সবার সঙ্গেই টেলিফোনে কথা বলেছি। খুনি চক্রের বিরুদ্ধে প্রতিরোধ গড়ে তোলার মনোবল নিয়ে শেরেবাংলা নগরে অবস্থিত রক্ষীবাহিনীর সদর দপ্তরে গিয়েছি। কিন্তু পরিস্থিতি এতটাই প্রতিক‚লে ছিল যে কিছুই করা সম্ভবপর হয়নি। কারণ খুনি চক্রের ষড়যন্ত্রের জাল ছিল কঠিন এবং তা ছিল জাতীয় ও আন্তর্জাতিক পর্যায়ের এক বহুবিস্তৃত নীলনকশা! মৃত্যুকে তুচ্ছ জ্ঞান করে রক্ষীবাহিনীর হেডকোয়ার্টারে যখন গিয়েছি তখন চারপাশে ১৪টি ট্যাংক। রক্ষীবাহিনীর গোলাবারুদ ওখানে থাকত না। সেসব গোলাবারুদের কোত ছিল বিডিআর (বর্তমান বিজিবি) ক্যাম্পে অর্থাৎ পিলখানায়। মেজর জেনারেল খলিলুর রহমান তখন বিডিআরের ডিজি। তিনি কোনোরকম সহযোগিতা করেননি। অস্ত্র না পেলে তো কিছু করা যাবে না। অপরদিকে সাভারে সেখানে ২০০০ আন্ডার ট্রেনিং রক্ষী ছিল। কিন্তু সাভারে ব্রিজের ওপর ট্যাংক বহর অবস্থান নেয়ায় কেউ যেতেও পারেনি আসতেও পারেনি। অর্থাৎ সবদিক থেকেই আমরা অবরুদ্ধ। রক্ষীবাহিনীর দুই উপপ্রধান আনোয়ার উল আলম শহীদ ও সারোয়ার হোসেন মোল্লা প্রতিরোধের আপ্রাণ চেষ্টা করেছিল। কিন্তু তারা কারো কাছ থেকে কোনো সাহায্য পায়নি। ষড়যন্ত্রকারী খুনি চক্র এতটাই নিখুঁতভাবে তাদের পরিকল্পনা বাস্তবায়ন করেছে যে আমরা ছিলাম নিরুপায়। রক্ষীবাহিনীর সদর দপ্তরে আমার উপস্থিতি জানাজানি হলে জিয়াউর রহমানের নির্দেশে ওখান থেকেই সিটি এসপি সালাম প্রায় ৫০ জন পুলিশ নিয়ে আমাকে গ্রেপ্তার করে গৃহবন্দি করে রাখে। রক্ষীবাহিনীর উপপ্রধান আনোয়ার উল আলম শহীদ ‘রক্ষীবাহিনীর সত্য-মিথ্যা’ শীর্ষক গ্রন্থে লিখেছেন, ‘কিন্তু বাঙালি জাতির দুর্ভাগ্য যে শোকে মুহ্যমান জাতীয় নেতারা (রাষ্ট্রীয় দায়িত্বপ্রাপ্ত) জাতির এই কঠিন সময়ে কিংকর্তব্যবিমূঢ় হয়ে পড়লেন। একমাত্র ব্যতিক্রম ছিলেন তোফায়েল আহমেদ। তিনি চেষ্টা করেছিলেন, কিন্তু সফল হননি।’ (পৃষ্ঠা-১৪৯)। বঙ্গবন্ধুকে রক্ষার্থে আমি চেষ্টা করেছি সে কথা আমি কখনো বলি না। কারণ আমরা কিছু করতে পারিনি; জাতির পিতাকে আমরা রক্ষা করতে পারিনি। বিষয়টি নিছক ব্যক্তিগত নয়, এটি আমাদের জাতীয় ব্যর্থতাই বটে!

এরপর আসে বিভীষিকাময় ১০ সেপ্টেম্বরের রাত। তখন রোজা। শাহবাগস্থ পুলিশ কন্ট্রোল রুমে বন্দি। আমি তারাবির নামাজ পড়ে রাজ্জাক ভাইয়ের পাশে ঘুমিয়ে ছিলাম। গভীর ঘুম। সেখান থেকে খুনি চক্র আমাকে তুলে নিয়ে যায়। তারপর সেই একই প্রশ্ন। কোথায় কাদের কাছে অস্ত্র ডিসট্রিবিউট করেছি, আমার প্রাইভেট সেক্রেটারি ৬০ পৃষ্ঠার স্টেটমেন্ট ও নানারকম তথ্য দিয়েছে। আমি কাকে কাকে অস্ত্র দিয়েছি। বঙ্গবন্ধুর টাকা-পয়সা কোথা থেকে আসত, কীভাবে দিত। আর্মির লোকজনের সঙ্গে বিশেষ করে কর্নেল র‌্যাংকের নিচে কারো সঙ্গে আমি দেখা করতাম না। বড় বড় অফিসার কোথায় তারা এখন। তারা কি তোমাকে হেল্প করতে পারে? এরপর অকথ্য ভাষায় গালিগালাজসহ শারীরিক নির্যাতন। খুনিরা আমাকে টার্গেট করেছিল। আমার তখন হুঁশ নেই। আমি তাদের সোজাসাপ্টা একটি কথাই বলেছিলাম, ‘বঙ্গবন্ধুর ভালো কাজের সঙ্গে আমি যেমন জড়িত, যদি কোনো ভুল হয়ে থাকে তবে তার সঙ্গেও জড়িত। এর বেশি আর আমি কিছু বলতে পারব না।’ খুনিরা যখন নির্যাতন কিছুক্ষণের জন্য বিরতি দেয় তখন অজ্ঞাত একজন মানুষ আমার মাথায় হাত বুলিয়ে খুব করুণ কণ্ঠে চাপাস্বরে বলতে থাকেন, ‘আল্লা আল্লা করেন, আল্লা আল্লা করেন।’ তার মনে হয়েছিল মৃত্যু আমার অবধারিত। সন্ধ্যার সময় খুনি মেজর শাহরিয়ার আসে। একগাদা লিখিত প্রশ্ন আমাকে দিয়ে বলে, ‘এর উত্তর দিতে হবে।’ আমার তখন হুঁশ নেই, আমি আধমড়া। এই বেহুঁশ অবস্থায় আমাকে পুলিশ কন্ট্রোল রুমে দিয়ে যায়। অসহ্য যন্ত্রণায় আমি চিৎকার করতে থাকি। তখন রাজ্জাক ভাই, জিল্লুর ভাই আমার শুশ্রুষা করেন। কিছুক্ষণ পর যিনি আমাকে গ্রেপ্তার করেছিলেন, সেই সিটি এসপি সালাম ডাক্তার নিয়ে আসেন। সন্ধ্যার দিকে আমাকে, আবিদুর রহমান, রাজ্জাক ভাই এবং জিল্লুর ভাই- এই চারজনকে সেন্ট্রাল জেলে নিয়ে যাওয়া হয়। সেখানে আমাদের নামধাম লিপিবদ্ধ করে সেপ্টেম্বরের ১১ তারিখ আমাদের চারজনকে জেলগেটে নিয়ে আবিদুর রহমান এবং আমাকে ময়মনসিংহ এবং রাজ্জাক ভাই ও জিল্লুর ভাইকে কুমিল্লা কারাগারে প্রেরণ করে।

ময়মনসিংহ কারাগারে ১২ তারিখ সকালের দিকে পৌঁছাই। তখন আমার শারীরিক অবস্থা খুবই খারাপ। আমাকে আর আবিদুর রহমানকে ফাঁসির আসামির কনডেম সেলে রাখে। এক রুমে দুজন থাকার নিয়ম নেই। হয় থাকতে হবে তিনজন, নয় একজন। গভীর রাতে জেল সুপার, জেলার এবং সুবেদার আলী আহমদ এসে কনডেম সেলে যারা অন্য আসামি ছিল তাদের অন্যত্র সরিয়ে নেন। এখানে আমি প্রায় ৫ মাস সূর্যের আলো দেখিনি। এই ময়মনসিংহ কারাগারেই ৩ নভেম্বর জেলহত্যার সংবাদ পাই। কারাগারের জেল সুপার তখন নির্মলেন্দু রায়। বঙ্গবন্ধু যখন কারাগারে বন্দি তখন তিনি ডেপুটি জেলার ছিলেন। বঙ্গবন্ধুর সঙ্গে অনেকবার তিনি গণভবনে দেখা করতে এসেছেন। আমি তখন তাকে দেখেছি। নির্মলেন্দু রায় আমার প্রতি সহানুভ‚তিশীল ছিলেন। আমি কখনো ভাবিনি যে বেঁচে থাকব। বঙ্গবন্ধুর স্নেহ-আদর-ভালোবাসা পেয়েছি। তিনি বুকে টেনে নিয়েছেন। পৃথিবীর যেখানে গিয়েছেন, বাংলাদেশের যেখানে গিয়েছেন আমাকে সঙ্গী করেছেন। প্রতিদিন সকাল ৯টায় ধানমন্ডির ৩২ নম্বরে গিয়ে বঙ্গবন্ধুর সঙ্গে অফিসে যেতাম। আবার রাতে বঙ্গবন্ধুকে তাঁর বাসভবনে পৌঁছে দিয়ে বাড়ি ফিরতাম। যেদিন ১৪ আগস্ট বঙ্গবন্ধুর সঙ্গে আমার শেষ দেখা, সেদিন বঙ্গবন্ধুকে বাসায় পৌঁছে দেই এবং বঙ্গবন্ধু আমাকে বলেন, ‘কাল সকালে আসবি। তুই ডাকসুর ভিপি ছিলি। তুই আমার সঙ্গেই ইউনিভার্সিটিতে যাবি।’ বঙ্গবন্ধুর সঙ্গে এটাই আমার শেষ দেখা ও কথা! পরদিনের পরিস্থিতি এমন হতে পারে তা ছিল কল্পনাতীত! তবুও ভাবি, যা হোক আমি তো বেঁচে আছি। কিন্তু সারাজীবন মনের গভীরে এই দুঃখ থেকে যাবে, যে মহান নেতা জাতির পিতা পরম মমতা-স্নেহ-আদর-ভালোবাসায় সিক্ত করে সর্বদা ছায়া দিয়ে নিজের সঙ্গে রেখেছেন- যার স্নেহ-আদর-ভালোবাসা আমার জীবনে পাথেয়- তাঁর মৃত্যুতে কিছুই করতে পারিনি, বেদনার এই অবিরাম ভার আমাকে চিরদিন বয়ে বেড়াতে হবে!

তোফায়েল আহমেদ : আওয়ামী লীগ নেতা; সংসদ সদস্য; সভাপতি, বাণিজ্য মন্ত্রণালয় সম্পর্কিত সংসদীয় স্থায়ী কমিটি, জাতীয় সংসদ।

[email protected]

এসআর

মন্তব্য করুন

খবরের বিষয়বস্তুর সঙ্গে মিল আছে এবং আপত্তিজনক নয়- এমন মন্তব্যই প্রদর্শিত হবে। মন্তব্যগুলো পাঠকের নিজস্ব মতামত, ভোরের কাগজ লাইভ এর দায়ভার নেবে না।

জনপ্রিয়