পাঁচ পৌরসভায় উপনির্বাচন ১০ অক্টোবর

আগের সংবাদ

পাটা ধোয়া শাপলা বিল প্রকৃতির বুকে নকশি কাঁথা

পরের সংবাদ

মসজিদে বিস্ফোরণ: বাসায় ফেরার ছাড়পত্র একজনের

প্রকাশিত: সেপ্টেম্বর ৭, ২০২০ , ৫:৩৬ অপরাহ্ণ আপডেট: সেপ্টেম্বর ৭, ২০২০ , ৫:৩৬ অপরাহ্ণ

নারায়ণগঞ্জে মসজিদে বিস্ফোরণে দগ্ধদের মধ্যে এই প্রথম মো: মামুনকে (৩০) হাসপাতাল থেকে ছাড়পত্র দেওয়া হয়েছে। তার শরীরের ১৫ শতাংশ দগ্ধ ছিলো বলে জানিয়েছেন শেখ হাসিনা জাতীয় বার্ন ও প্লাস্টিক সার্জারী ইনস্টিটিউটের সমন্বয়ক ডা. সামন্ত লাল সেন।

তিনি জানান, বিস্ফোরণে মামুনের শরীরের ১৫ শতাংশ দগ্ধ হয়েছিলো। তবে তার শ্বাসনালী দগ্ধ হয়নি। তার শারীরিক অবস্থার উন্নতি হওয়ায় তাকে আজ বিকেলে চিকিৎসকদের পরামর্শে হাসপাতাল থেকে ছাড়পত্র দেওয়া হয়েছে। তবে তাকে ২সপ্তাহ পর আবার ফলোআপ চিকিৎসার জন্য আসতে বলা হয়েছে। এছাড়া কোনো সমস্যা দেখা দিলে আমাদের সাথে যোগাযোগ করতে বলা হয়েছে।

ডা. সেন বলেন, বিসবফোরণে এখানে ৩৭ জনকে ভর্তি করা হয়েছিলো। এদের মধ্যে ২৭ জন মারা গেছেন। আর এই প্রথম এক রোগীকে ছাড়া হলো। বাকি ৯ জন এখনও আইসিইউ ও পোস্ট অপারেটিভ ওয়ার্ডে ভর্তি রয়েছে। তাদের অবস্থা আশঙ্কাজনক।

এদিকে ছাড়পত্র পাওয়া দগ্ধ মামুনের ভায়রা মোসলেম উদ্দিন জানান, মামুনের বাবার নাম মৃত লতিফ। স্ত্রী রুবি বেগমকে নিয়ে তল্লা এলাকায় থাকতেন।তার বাড়ি পটুয়াখালি গলাচিপায়। নারায়ণগঞ্জে কাউসার গার্মেন্টস চাকরী করতেন তিনি। তার কোনো সন্তানাদি নেই।

তিনি বলেন, মামুনের দুই পা, বাম হাত, চুল, ঠোট, নাক, বাম কান ও গলায় কিছুকিছু অংশ দগ্ধ হয়েছিলো। রবিবার রাতে তাকে ওয়ার্ডে স্থানান্তর করা হয়েছিলো। আজ দুপুরে তার পুড়া যায়গায় ড্রেসিং করা হয়। এরপর চিকিৎসকরা তাকে ছেড়ে দেওয়ার সিদ্ধান্ত জানান আমাদের। তবে তার ঘা এখনও শুকায়নি। ঘা শুকাতে সময় লাগবে।

স্ত্রী রুবি বেগম বলেন, ঘটনার রাতে লোকজন তাকে ধরাধরি করর বাসায় নিয়ে যায়। সেখান থেকে সঙ্গে সঙ্গে তাকে হাসপাতালে নিয়ে আসি। হাসপাতাল থেকে ঔষধপত্র লিখে দিয়েছেন। তাকে এখন নারায়ণগঞ্জের বাসায় নিয়ে যাবো।

এমএইচ

মন্তব্য করুন

খবরের বিষয়বস্তুর সঙ্গে মিল আছে এবং আপত্তিজনক নয়- এমন মন্তব্যই প্রদর্শিত হবে। মন্তব্যগুলো পাঠকের নিজস্ব মতামত, ভোরের কাগজ লাইভ এর দায়ভার নেবে না।

জনপ্রিয়