সাংবাদিকতা ও কথাসাহিত্যের ব্যক্তিত্ববান মানুষ

আগের সংবাদ

অপারেশন থিয়েটারে ইউএনও ওয়াহিদা

পরের সংবাদ

ধীরে ধীরে ছন্দে ফিরছে টাইগাররা

প্রকাশিত: সেপ্টেম্বর ৩, ২০২০ , ৯:২৫ অপরাহ্ণ আপডেট: সেপ্টেম্বর ৩, ২০২০ , ৯:২৫ অপরাহ্ণ

দরোজায় কড়া নাড়ছে শ্রীলঙ্কা সিরিজ। তাই নিজেদের ঝালিয়ে নিতে মিরপুরে ঐচ্ছিক অনুশীলনে ব্যস্ত তামিম ইকবাল-মুশফিকুর রহিমরা। বাংলাদেশ ক্রিকেট বোর্ডের দেয়া (বিসিবি) শিডিউল অনুসারে বৃহস্পতিবার বিভিন্ন ভাগে ভাগ হয়ে মিরপুরে মূল মাঠে ব্যাটিং এবং বোলিং করেছেন ১২ ক্রিকেটার। তাদের অনুশীলন দেখে বোঝা যাচ্ছে ধীরে ধীরে ছন্দে ফিরছেন টাইগাররা।

বিসিবির দেয়া অনুশীলন সূচি অনুযায়ী বৃহস্পতিবার মিরপুরে সকালের শুরুতেই মূল মাঠের সেন্টার উইকেটে ব্যাটিং করেন তামিম। তাকে বোলিং করেছেন স্পিনার তাইজুল। বেশ স্বাচ্ছন্দ্যে ব্যাটিং করে ঘাম ঝরিয়েছেন টাইগার ওপেনার তামিম। কিছুতেই তার ব্যাটিং ক্ষুধা মিটছিল না। যতক্ষণ ব্যাটিং করেছেন, দুর্দান্ত দাপটে। সিংহভাগ বলই গিয়ে পড়েছে সীমানায় ও সীমানার বাইরে। অন্যদিকে দীর্ঘক্ষণ রানিং আর জিম করেছেন মুশফিকুর রহিম। অনুশীলনে তার অলসতা নেই তা ক্রিকেটপ্রেমীরা ভালোই জানেন। এরপরে ব্যাটিং অনুশীলন করেন মুশফিক। তিনি প্রায় ঘণ্টাব্যাপী আগ্রাসী ব্যাটিং করেন। নেট বোলারদের বলগুলো ব্যাটের কাছে আসতেই ঠুসঠাস ধ্বনিতে মুখরিত হয়ে উঠছিল গোটা হোম অব ক্রিকেটের চত্বর। দেখে একবারও মনে হয়নি করোনা কারণে প্রায় ৬ মাস ব্যাটিংয়ের সঙ্গে কোনো সম্পর্কই ছিল না মুশফিকের।

টি-টোয়েন্টি অধিনায়ক মাহমুদউল্লাহ রিয়াদ সেন্টার উইকেটে দীর্ঘক্ষণ ব্যাটিং করেছেন। তাই বলে হাত গুটিয়ে বসে ছিল না টাইগার দলের বোলাররা। বোলিং অনুশীলন করেছেন মুস্তাফিজ-বিপ্লব-তাইজুলরা। এছাড়া ট্রেইনারের সঙ্গে অনুশীলন করেছেন আল আমিন, তাসকিন, শফিউলরা। নিজেদের বোলিংয়ে ধার ফিরে পেতে বৃহস্পতিবার মিরপুরে ঘণ্টাব্যাপী ঘাম ঝরিয়েছেন মোস্তাফিজ ও তাসকিন। একটা সময় ১৩০ কিলোমিটার বেগে, লাইন-লেংথ মেনে লাগাতার ডেলিভারি করতে পারলে তাদের নিয়ে রোল পড়ে যেত গণমাধ্যমে। প্রশংসা বুলি ছুটতো ভক্তদের মুখে। কিন্তু টাইগার ক্রিকেট যে এখন অনেকটাই পরিণত বিষয়টা ভালো মতো জানেন তাসকিন। তিনি বললেন, আমরা এতদিন স্বাস্থ্যবিধি মেনে একক অনুশীলন করেছি। এখন বল হাতে আমরা ব্যাটসম্যানদের বোলিং করতে পেরেছি। এজন্য স্বস্তি লাগছে।

এছাড়া গত ফেব্রুয়ারি-মার্চে জিম্বাবুয়ের বিপক্ষে শেষ সিরিজে ব্যাট হাতে রানের ঝঙ্কার তুলেছিলেন লিটন দাস। নান্দসিক সেই ফর্ম হয়ত পরের সিরিজগুলোতেও তিনি দেখাতে পারতেন। কিন্তু তাতে বাদ সাধল প্রাণঘাতী করোনা ভাইরাস। অতিমারির কারণে গত ৬ মাস থাকতে হয়েছে ঘরবন্দি। যদিও লিটন এখন অনুশীলনে ব্যস্তু তবুও সবকিছুই আবার নতুন করে শুরু করতে হবে। আর সেই মিশনে তাকে প্রেরণা জোগাচ্ছে সবশেষ খেলা জিম্বাবুয়ে সিরিজের অতিমানবীয় সেই ব্যাটিং।

এমএইচ

মন্তব্য করুন

খবরের বিষয়বস্তুর সঙ্গে মিল আছে এবং আপত্তিজনক নয়- এমন মন্তব্যই প্রদর্শিত হবে। মন্তব্যগুলো পাঠকের নিজস্ব মতামত, ভোরের কাগজ লাইভ এর দায়ভার নেবে না।

জনপ্রিয়