‘২১ নয় ২২ সালে শেষ হবে পদ্মা সেতুর কাজ’

আগের সংবাদ

করোনার প্রভাব পড়েছে ফুলবাড়ীয়ার হাতপাখা শিল্পে

পরের সংবাদ

এখনো কাজ শুরু করেনি ঠিকাদারী প্রতিষ্ঠান

মদন পৌরসভার রাস্তার বেহাল দশা

প্রকাশিত: আগস্ট ২৬, ২০২০ , ৬:৪০ অপরাহ্ণ আপডেট: আগস্ট ২৬, ২০২০ , ৬:৪১ অপরাহ্ণ

এ রাস্তাটি খুবই বেহাল অবস্থা। আমি সড়ক ও জনপথ বিভাগে একাধিকবার যোগাযোগ করেছি। কিন্তু এর কোনো সুফল পাচ্ছি না। বিষয়টি খুবই দুঃখ জনক। এমন প্রতিক্রিয়া ব্যক্ত করেন পৌর মেয়র আব্দুল হান্নান তালুকদার শামীম।

নেত্রকোণার-মদন-খালিয়াজুরি সড়কের সংস্কার কাজের সময়সীমা শেষ হলেও এখনো কাজ শুরু করেনি ঠিকাদারী প্রতিষ্ঠান। এতে দুর্ভোগে পড়েছে এলাকাবাসী। এ নিয়ে এলাকার জনসাধারণের মধ্যে ক্ষোভের সৃষ্টি হয়েছে। ঠিকাদারী প্রতিষ্ঠান কাজ শুরু না করেই কার্যাদেশের মেয়াদ বৃদ্ধির জন্য পুনরায় আবেদন করেন। এতে কাজ বাস্তবায়ন নিয়ে এলাকাবাসীর মধ্যে সংশয়ের সৃষ্টি হয়েছে।

নেত্রকোণা সড়ক ও জনপথ বিভাগ সূত্রে জানা যায়, নেত্রকোনা-মদন-খালিয়াজুরী সড়কে ১১.৯৬২ কিলোমিটার সড়ককে ৯ কোটি টাকা সংস্কার কাজের জন্য ২৯ জানুয়ারি ২০২০ তারিখে রানা বিল্ডার্স প্রাইভেট লিমিটেড নামীয় প্রতিষ্ঠানকে কার্যাদেশ দেয়া হয়। রেজভি কনস্ট্রাকশন ঠিকাদারী প্রতিষ্ঠান এর কাজ বাস্তবায়ন করবে। ২৮ জুলাই ২০২০ তারিখের মধ্যে সংস্কার কাজ শেষ করার কথা ছিল। কিন্তু সংস্কার কাজ শেষ করার মেয়াদের তারিখ থেকে একমাস অতিবাহিত হলেও এখনো সংস্কার কাজ শুরু করতে পারেনি ঠিকাদারি এ প্রতিষ্ঠানটি। এদিকে কাজটি যাতে হাত ছাড়া না হয়, কাগজে কলমে কার্যাদেশ বৃদ্ধির জন্য পাঁয়তারা করছে।

নেত্রকোনার-মদন সড়কে মদন সরকারি কলেজ মোড় থেকে তেলিগাতী পর্যন্ত গর্তে ভরা। এরই মধ্যে পৌর সদরের ২ কিলোমিটার সড়কে খানা-খন্দের সৃষ্টি হয়েছে। রাস্তা সংস্কার না করায় সামান্য বৃষ্টি হলেই কাঁদা-পানি জমে চলাচলের অনুপযোগী হয়ে পড়ে। আলহাজ্ব মহিউদ্দিন মার্কেট, মুক্তিযোদ্ধা কমপ্লেক্স মোড়সহ পুরো ২ কিলোমিটারে বড় আকারের গর্ত হওয়ায় বৃষ্টি হলে পায়ে হেঁটে তো দূরের কথা অটো বা রিক্সা দিয়েও চলাচল করা সম্ভব হয় না। দীর্ঘক্ষণ যানজট লেগে থাকে। প্রায়ই ঘটছে দূর্ঘটনা। দীর্ঘদিনেও এমন অবস্থার প্রতিকার না হওয়ায় এলাকাবাসীর মাঝে ক্ষোভের সৃষ্টি হয়েছে।

দুর্ভোগের শিকার পৌরসভার বাসিন্দা সত্যজিত বৈশ্য, রফিকুল ইসলাম, জাহিদ হাসান জানান, দীর্ঘদিন ধরে সড়কের এ বেহাল অবস্থা থাকলেও দেখার মনে হয় কেউ নেই। আমরা পৌর সদরের বেহাল সড়কে যাতায়াত করতে প্রতিদিন নানা দুর্ভোগে পড়ছি। সামান্য বৃষ্টি হলেই যাতায়াতের অনুপযোগী হয়ে পড়ে সড়কটি। দ্রুত সংস্কারের জন্য উর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষের হস্তক্ষেপ কামনা করছেন তারা।

পৌর মেয়র আব্দুল হান্নান তালুকদার শামীম জানান, এ রাস্তাটি খুবই বেহাল অবস্থা। আমি সড়ক ও জনপথ বিভাগে একাধিকবার যোগাযোগ করেছি। কিন্তু এর কোনো সুফল পাচ্ছি না। বিষয়টি খুবই দুঃখ জনক।

এ ব্যাপারে বাস্তবায়নকারী ঠিকাদারী প্রতিষ্ঠান রেজভি কনস্ট্রাকশনের ম্যানেজিং ডাইরেক্টর হোসেন আহম্মেদ পান্না জানান, বৃষ্টির মধ্যে কাজ করা সম্ভব হয় নি। এ দিকে কাজের সময়সীমাও শেষ হয়ে গেছে। সময়সীমা বৃদ্ধির জন্য সংশ্লিষ্ট দপ্তরে আবেদন করেছি। অনুমতি পেলে আগস্ট-সেপ্টেম্বর মাসের মধ্যে কাজ শুরু করা হবে।

নেত্রকোনা সড়ক ও জনপথ বিভাগের সহকারী প্রকৌশলী রাজিব কুমার দাস জানান, এ ঠিকাদার মদন ও কেন্দুয়া নিয়ে দুটি কাজ পেয়েছে। কেন্দুয়ার কাজ প্রায় শেষ পর্যায়ে। এরমধ্যে মদন উপজেলার কাজের সময়সীমা শেষ হয়ে গেছে। কাজের সময় সীমা আরো ৬ মাস বৃদ্ধির জন্য আবেদন করেছেন ঠিকাদারী প্রতিষ্ঠান।

এসআর

মন্তব্য করুন

খবরের বিষয়বস্তুর সঙ্গে মিল আছে এবং আপত্তিজনক নয়- এমন মন্তব্যই প্রদর্শিত হবে। মন্তব্যগুলো পাঠকের নিজস্ব মতামত, ভোরের কাগজ লাইভ এর দায়ভার নেবে না।

জনপ্রিয়