বঙ্গবন্ধুর দেখানো পথে হাঁটতে হবে

আগের সংবাদ

নিরাপত্তার অতন্দ্র প্রহরী এবং আলোহীন প্রদীপেরা

পরের সংবাদ

৫৫ বছরের জীবনে ১৩ বছরই জেলে

প্রকাশিত: আগস্ট ১৫, ২০২০ , ৬:৪০ অপরাহ্ণ আপডেট: আগস্ট ১৫, ২০২০ , ৭:৪৭ অপরাহ্ণ

তিনি বেঁচেছিলেন মোটে ৫৫ বছর। তার জীবনের মূল্যবান সময়ই কেটে গেছে ঘরের বাইরে। রাজপথে, মাঠে-ময়দানে, আন্দোলন সংগ্রামে। আর এসবই করতেন মানুষের জন্য। মানুষের মুক্তি আর স্বাধীনতার জন্য। ব্যক্তিগত জীবনকে তিনি উৎসর্গ করেছিলেন স্বাধীনতাকামী, মুক্তিকামী মানুষের জন্য। আর এসব করতে গিয়ে তিনি দফায় দফায় আটক হয়েছিলেন তৎকালীন শাসকদের আইন-শৃঙ্খলাবাহিনীর হাতে।

পরিবার পরিজন, প্রিয়জন ছেড়ে প্রায় সময়ই তাকে থাকতে হতো কারাগারে, জেল হাজতে। এভাবে জীবনের প্রায় ৩ বছর কাটাতে হয়েছে জেলে। এসময়টার মধ্যে স্ত্রী-সন্তানরা প্রিয় মানুষটার দেখা পাননি। ছোট্ট সন্তানটি বাবার মুখ না দেখতে দেখতে ভুলে যেতে বসেছিল।

জীবনের এক চতুর্থাংশ সময় কারাগারে কাটানো মানুষটির জন্ম হয়েছিল ১৯২০ সালের ১৭ মার্চ গোপালগঞ্জের টুঙ্গিপাড়ায়। আর ১৯৭৫ সালের ১৫ আগস্ট সপরিবারে নরপিশাচদের হাতে নির্মমভাবে প্রাণ হারাতে হয়। তার বেঁচে থাকার ৫৫ বছর ৪ মাস ২৯ দিনে আন্দোলন সংগ্রামের কঠিন পথে হেঁটে হেঁটে প্রতিষ্ঠা করেছিলেন বাংলাদেশ নামক রাষ্ট্রের। বিশ্ব দরবারের সমুন্নত করেছেন বাংলাদেশ ও এ দেশের মানুষের মর্যাদা।

অথচ তার জীবনে ৪ হাজার ৬৮২ দিন করতে হয়েছে কারাভোগ। এর মধ্যে স্কুলের ছাত্র থাকা অবস্থায় ব্রিটিশ আমলে সাত দিন কারা ভোগ করেন। বাকি ৪ হাজার ৬৭৫ দিন তিনি কারাভোগ করেন পাকিস্তান সরকারের আমলে।

এমএইচ

মন্তব্য করুন

খবরের বিষয়বস্তুর সঙ্গে মিল আছে এবং আপত্তিজনক নয়- এমন মন্তব্যই প্রদর্শিত হবে। মন্তব্যগুলো পাঠকের নিজস্ব মতামত, ভোরের কাগজ লাইভ এর দায়ভার নেবে না।

জনপ্রিয়